ঝুঁকিহীন কেমিক্যাল কারখানাকে তাৎক্ষণিক ট্রেড লাইসেন্স

ছবি: বার্তা২৪

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

পুরান ঢাকার ঝুঁকিপূর্ণ কেমিক্যাল কারখানার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পাশাপাশি যে সব কেমিক্যাল কারাখানা জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি নয় বা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয়, সেসব কারখানাকে ‘অন দ্যা স্পটে’ ট্রেড লাইসেন্স নবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নগর ভবনের ব্যাংক ফ্লোরে ‘ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন ও কেমিক্যাল পল্লীতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থানান্তর’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি এই ঘোষণা দেন।

সাঈদ খোকন বলেন, আমরা ব্যবসা বাণিজ্যের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে চাই না। সেই সাথে নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্বও আমাদের। নাগরিকদের জানমালের নিরাপত্তা কোনোক্রমেই যেন হুমকিতে না পড়ে, সেই সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নগর কর্তৃপক্ষের।

ব্যবসায়ী নেতাদের দাবির প্রেক্ষিতে মেয়র বলেন, আপনারাই বলেছেন ২০টি কেমিক্যাল দাহ্য পদার্থ। এসব কেমিক্যালের উপর নজরদারি করার দাবি আপনাদের। এজন্য আগামী সপ্তাহে পুরান ঢাকার কেমিক্যাল কারখানাগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। এছাড়া ডিএসসিসি’র আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা, ডিএসসিসি’র রাজস্ব কর্মকর্তা, এফবিসিসিআই’র প্রতিনিধি, ফায়ার সার্ভিসের প্রতিনিধি, পরিবেশ অধিদফতরের প্রতিনিধি, স্থানীয় ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হবে।

খোকন বলেন, আগামী সপ্তাহ থেকে পুরান ঢাকায় এই কমিটি অভিযান পরিচালনা করবে। অভিযানে যদি কোনো কেমিক্যাল গোডাউন পাওয়া যায়, যেগুলোতে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর, জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি বা অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি আছে, সেসব কারখানার বিরুদ্ধে যাথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে মেয়র বলেন, যে সব কারখানা জনস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ নয় বা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয় এবং অভিযানের সময় যদি ওই টিম মনে করে কারখানাটির ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করা যায়, তাহলে অন দ্যা স্পটে ট্রেড লাইসেন্স দেওয়া হবে। আরা যারা ব্যবসা করছেন তারা ‍যদি পণ্য পরিবহন নিরাপদ দূরত্ব থেকে করেন, তাহলে উইন উইন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। আগামী দুই সপ্তাহব্যাপী এই অভিযান চলবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/12/1549966910279.jpg

মতবিনিময় সভায় এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, যতদিন পর্যন্ত পুরান ঢাকার কেমিক্যাল কারখানা কেমিক্যাল পল্লীতে স্থানান্তর না হয়, ততদিন ব্যবসা করার সুযোগ দিন। তাদের ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করার সুযোগ দিন। ব্যবসায়ীরা যেন পুলিশি হয়রানির শিকার না হয় সেদিকটা খেয়াল রাখুন।

ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, নিমতলীর ঘটনার পর আমরা ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করতে পারছি না। ট্রেড লাইসেন্সই আমাদের রুটি রুজি, এটা বন্ধ হয়ে গেলে আমাদের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে যাবে। তাই ২০টি ঝুঁকিপূর্ণ কেমিক্যাল গোডাউন ছাড়া অন্যদের ব্যবসা করার সুযোগ দিন। তা নাহলে আমাদের পুরান ঢাকার ব্যবসা অন্যত্রে চলে যাচ্ছে।

ডিএসসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য দেন ডিএসসিসি’র প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ইউসুফ আলী সরদার প্রমুখ।

জাতীয় এর আরও খবর