Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মেহেরপুরে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ

মেহেরপুরে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ
মেহেরপুরে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত। ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
মেহেরপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মেহেরপুরে এখন বয়ে যাচ্ছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। গতকালও তীব্র শৈত্যপ্রবাহে নাকাল ছিল এ অঞ্চলের জনজীবন।

রোববার (১৩ জানুয়ারি) মেহেরপুর অঞ্চলে ৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিস।

জানা গেছে, ভোর থেকে এলাকা থাকছে কুয়াশাচ্ছন্ন। এতে ভোর বেলায় হাঁটতে বের হওয়া মানুষের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। তীব্র শীতের কবলে পড়ে এ অঞ্চলে বোরো ধানের বীজতলার একটি বড় অংশ নষ্ট হয়েছে। এতে বোরো ধান আবাদে চারার সংকট দেখা দিয়েছে। 

অপরদিকে ঠান্ডায় এ অঞ্চলের মানুষের স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে। ভোরে কর্মজীবী-শ্রমজীবী মানুষ ঘর থেকে বের হলেও চায়ের দোকানে বসেই সময় কাটাচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

সার্ভার ত্রুটিতে ইমিগ্রেশনে সহস্রধিক যাত্রী আটকা

সার্ভার ত্রুটিতে ইমিগ্রেশনে সহস্রধিক যাত্রী আটকা
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বেনাপোল চেকপোস্ট আন্তর্জাতিক ইমিগ্রেশনে সার্ভার ত্রুটিতে পাসপোর্টের ভেরিফিকেশন সম্পূর্ণ  না হওয়ায় দেশ-বিদেশি প্রায় সহস্রধিক পাসপোর্ট যাত্রী আটকা পড়ে আছে। এতে এক প্রকার ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

সোমবার (২২ জুলাই) সকাল সাড়ে ৬টা থেকে সার্ভার অচল রয়েছে বলে জানান যাত্রীরা।

সূত্রে জানা যায়, ব্যবসা-চিকিৎসাসহ প্রয়োজনীয় কাজে প্রতিদিন এপথে সাড়ে ৫ থেকে ৭ হাজার পাসপোর্টধারী যাত্রী যাতায়াত করে থাকে। কিন্তু মাঝে মধ্যেই  কম্পিউটারে অনলাইন প্রক্রিয়ায় পাসপোর্টের কাজ করতে যেয়ে সার্ভার সমস্যায় আটকা পড়েন যাত্রীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/22/1563763428387.jpg
যাত্রীদের বসার কোন ব্যবস্থাও নেই 

 

ভারতগামী পাসপোর্টে যাত্রী আনুস সিং বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'ভোর ৬ টা থেকে ইমিগ্রেশনে লাইনে দাড়িয়ে আছি। কম্পিউটারে অনলাইনে সমস্যার কারণে পাসপোর্টের কাজ সম্পূর্ণ হচ্ছে না।' এ ধরনের সমস্যায় এখানে বিকল্প ব্যবস্থা থাকা দরকার বলেও মনে করেন তিনি।

যাত্রী আজিম বলেন, 'সার্ভার সমস্যায় প্রায় দেড় ঘণ্টা তিনি পরিবার নিয়ে ইমিগ্রেশনে লম্বা লাইনে দাড়িয়ে আছেন। কিন্তু এখানে যাত্রীদের বসার কোন ব্যবস্থা না থাকায় এ দুর্ভোগ আরও বেড়েছে।' 

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আবুল বাশার সকাল ৮ টায় বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'তাদের ইজ্ঞিনিয়াররা সার্ভার সচলের চেষ্টা করছেন। সচল হলেই পাসপোর্টেও কাজ শুরু হবে।' 

প্রতিদিন ভোর সাড়ে ৬ টা থেকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে পাসপোর্ট যাত্রী যাতায়াত শুরু হয়। আগে পাসপোর্টের আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ হতো হাতে কলমে। এখন সে কাজ করতে হয় সম্পূর্ণ অনলাইন প্রক্রিয়ায়। আর যাত্রীদের সকল তথ্য সেখানে সংরক্ষণ থাকে। তাই সার্ভার সচল না হলে কাজ করা সম্ভব হয়না।

এদিকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন ভবনে পাসপোর্ট যাত্রীদের বিশ্রামের কোন ব্যবস্থা নেই। বেনাপোল ইমিগ্রেশন ভবনের পাশেই একটি আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল থাকলেও সেখানে শতাধিক যাত্রী বিশ্রামের জায়গা নেই। ফলে এ ধরনের সমস্যায় পড়লে যাত্রীদের দুর্ভোগের সীমা থাকে না।

সরিষাবাড়ীতে যুবককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

সরিষাবাড়ীতে যুবককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ
গলা কাটা চক্রের সদস্য সন্দেহে যুবককে গণপিটুনি

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গলা কাটা চক্রের সদস্য সন্দেহে রুবেল মিয়া (৩২) নামে এক যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের কান্দারপাড়া বাজার জামে মসজিদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সরিষাবাড়ী উপজেলার তারাকান্দি যমুনা সার কারখানা এলাকায় রুবেল মিয়া (৩২) নামে ওই ব্যক্তি সকাল থেকে ঘোরাফেরা করতে থাকেন। দুপুর ২টার দিকে কান্দারপাড়া বাজার জামে মসজিদ এলাকার চা দোকানদার গোলাপ আলীর চায়ের দোকানে তিনি চা পান শেষে মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন তাকে গলা কাটা চক্রের সদস্য হিসেবে সন্দেহ করে গাছের সঙ্গে বেঁধে গণপিটুনি দেয়।

পরে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান, ইসাহাক আলী, ইমাম শরীফ উদ্দিনসহ কতিপয় লোকজন তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে খবর দেন।

খবর পেয়ে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস আই ইউনুস আলী ও সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা রুবেলকে মসজিদের ভিতর থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে তাকে জেএফসিএল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যান।

রুবেল মিয়অর দেহ তল্লাশি করে টুপি, আতর, পান, জর্দ্দা, ও কয়েকটি ঘুমের বড়ি পায় পুলিশ।

আটক যুবক টাঙ্গাইল জেলা ভুয়াপুর উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কষ্টাপাড়া গ্রামের মৃত গফুর মিয়ার ছেলে। তিনি পরিবার-পরিজনের কাছ থেকে বিতাড়িত। চুরি, ভিক্ষা ও প্রতারণা করাই তার রুবেলের কাজ বলে জানান তার বড় ভাই নুরুজ্জামান মিয়া।

জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ মাজেদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কোন মামলা হয়নি। আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থার নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র