Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

সূচক ও লেনদেন কমলেও মূলধন বেড়েছে ১৩‘শ কোটি টাকা

সূচক ও লেনদেন কমলেও মূলধন বেড়েছে ১৩‘শ কোটি টাকা
ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মার্চের প্রথম সপ্তাহের মতই দ্বিতীয় সপ্তাহে মোট পাঁচ কার্যদিবস দেশের দুই পুঁজিবাজারে লেনদেন হয়েছে। আলোচিত এ সপ্তাহে সূচক, লেনদেন ও বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে।

তবে ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোবাকো, ব্রাক ব্যাংক, ডার্চ বাংলা ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা এবং সিঙ্গার বিডিসহ বেশিকিছু বড় বড় কোম্পোনির শেয়ারের দাম বাড়ায় বিনিয়োগকারীদের বাজার মূলধন বেড়েছে ১ হাজার ৩৮১ কোটি ৭০ লাখ ১০ হাজার টাকা।

দুই পুঁজিবাজারের মধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বিনিয়োগকারীদের বাজার মূলধন বেড়েছে ৬ হাজার ৬৩৬ কোটি ৩৭ লাখ ৪০ হাজার ৬৩ টাকা। অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূলধন বেড়েছে ৭ হাজার ১৮০ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

তবে আগের সপ্তাহে ডিএসইতে কমেছে ২ হাজার ৫০ কোটি ৯০ লাখ ৩৭২ টাকা। সিএইতে মূলধন কমেছিল ২ হাজার ২৫০ কোটি ৯০ লাখ ৬ হাজার টাকা।

বিদায়ী সপ্তাহে (১০-১৪ মার্চ) দুই পুঁজিবাজারের মধ্যে ডিএসইতে তিন সূচক বেড়েছে। আর সূচক কমেছে দু’দিন। তবে অপরদিকে সিএসইতে সূচক কমেছে চারদিন, আর বেড়েছে একদিন।

ডিএসই সূত্র মতে, মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে দুই হাজার ৮৮৪ কোটি ১১ লাখ ১৪ হাজার ৮৯৭ টাকার। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ৯৭৯ কোটি ৯২ লাখ ৬৬ হাজার ২০ টাকার। যা শতাংশের হিসেবে কমেছে ৩ দশমিক ২২ শতাংশ।

যার দৈনিক লেনদেনের গড়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৭৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা। এর আগের সপ্তাহে দৈনিক লেনেদেন হয়েছিল ৫৯৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ দিন লেনদেন কমেছে প্রায় ২০ কোটি টাকা।

গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭০টির, কমেছে ২৬২টির; আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮ কোম্পানির শেয়ার।

বেশির ভাগ কোম্পানির শোয়ারের দাম কমায় তিন সূচকের মধ্যে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের চেয়ে ৩৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৬৫৩ পয়েন্টে।

একই অবস্থায় লেনদেন হয়েছে অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)। বিদায়ী সপ্তাহে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৯৯ কোটি ৭৩ লাখ ৮০ হাজার ৪৩১ টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১২২ কোটি ৭৩ লাখ ৫১ হাজার ৩৫৪ টাকা।

এ সপ্তাহে লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৫৪টি কোম্পানির, কমেছে ২৩০টি কোম্পানির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

এর ফলে আগের সপ্তাহের চেয়ে ৪৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৩৫১ পয়েন্টে।

আপনার মতামত লিখুন :

ত্রিপুরা নয়, উত্তরাঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আমদানিতে আগ্রহী বাংলাদেশ

ত্রিপুরা নয়, উত্তরাঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আমদানিতে আগ্রহী বাংলাদেশ
বাংলাদেশ ভারত সহযোগিতা বিষয়ক স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমেদ কায়কাউস বলেছেন, ত্রিপুরার পরিবর্তে উত্তরাঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে ভাবছে বাংলাদেশ। কারণ আমাদের কুমিল্লা অঞ্চলে এখন তেমন সংকট নেই।

সোমবার (২৬ আগস্ট) বাংলাদেশ ভারতের বিদ্যুৎ খাতের সহযোগিতা সংক্রান্ত যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সিনিয়র সচিব বলেন, এখন ত্রিপুরা থেকে ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করা হচ্ছে। আরও বাড়তি বিদ্যুৎ আমদানি করা হলে ওই অঞ্চলের বিদ্যুৎ কেন্দ্র বসিয়ে রাখতে হবে। ওই অঞ্চলে রয়েছে গ্যাস ভিত্তিক সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র। এর চেয়ে ভালো হয় যদি আমরা উত্তরাঞ্চল দিয়ে বিদ্যুৎ আমদানি করি।

রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় এলাকায় আমাদের সংকট রয়েছে। এসব অঞ্চলে ঘাটতি সামাল দিতে তেল ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালাতে হচ্ছে। যা অনেক ব্যয় বহুল। এর চেয়ে যদি কমদামে বিদ্যুৎ আমদানি করা যায় সে বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।ভারতের পক্ষ থেকেও ইতিবাচক সাড়া মিলেছে।

একটি টেকনিক্যাল টিম সমীক্ষা করবে। যদি অর্থনৈতিক ও টেকনিক্যালি সফলতার সম্ভাবনা থাকে তবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত বলে মন্তব্য করেন সিনিয়র সচিব।

এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিশেষ বিশেষ সময়ে আমাদের বিদ্যুৎ অব্যবহৃত থাকছে। সেই বিদ্যুৎ রফতানির বিষয়েও ভাবা হচ্ছে। স্টিয়ারিং কমিটি যদি একমত হয়, তাহলে আর কোনো জটিলতা নেই। তাদের ইতিবাচক মনোভাব রয়েছে। তারা এ বিষয়ে বিশ্লেষণ করে দেখবে।

সচিব বলেন, স্টিয়ারিং কমিটি দু'দেশের বিদ্যুৎ খাতের সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করার কাজ করে যাচ্ছে। নতুন নতুন উইন্ডো ওপেন করা হচ্ছে। আর সে সব বিষয় এগিয়ে নেবে টেকনিক্যাল টিম যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ।

তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে দিন দিন সম্পর্কের উন্নতি হচ্ছে। বিশেষ করে বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতার হার বাড়ছে। আরও কিভাবে সহযোগিতার ক্ষেত্র বাড়ানো যায় সে বিষয়ে আলোচনা করে যাচ্ছি।

এর আগে পৃথক যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে কথা বলেন দু'দেশের সচিব। সে সময় নির্দিষ্ট করে কিছুই বলেন নি। তারা বলেন, আমরা দু'দেশের সহযোগিতার সম্ভাব্য ক্ষেত্র নিয়ে আলোচনা করেছি।

রোববার (২৫ আগস্ট) হোটেল সোনারগাঁও এ শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী এ বৈঠক। বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষে সিনিয়র সচিব ডক্টর আহমেদ কায়কাউস বাংলাদেশের পক্ষে, ভারতের পক্ষে দেশটির বিদ্যুৎ সচিব শ্রী সুভাষ চন্দ্র গার্গি নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

প্রথম দিনে যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় দিনে অনুষ্ঠিত হয় যৌথ স্টিয়ারিং কমিটির ১৭ তম বৈঠক। এছাড়া    রোববার (২৫ আগস্ট) রামপালে নির্মাণাধীন বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন ভারতীয় বিদ্যুৎ সচিব।

 

সূচক কমছে পুঁজিবাজারে

সূচক কমছে পুঁজিবাজারে
ছবি: সংগৃহীত

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার (২৬ আগস্ট) সূচক কমে চলছে লেনদেন কার্যক্রম। এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসই’র প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ১৯ পয়েন্ট এবং সিএসইর প্রধান সূচক সিএসসিএক্স কমেছে ১০ পয়েন্ট।

এছাড়া একই সময়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৬৮ কোটি ২২ লাখ টাকা এবং সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

ডিএসই ও সিএসই’র ওয়েবসাইট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে সূচক কমে। লেনদেনের শুরু হয় সকাল সাড়ে ১০টায়, শুরুতেই সূচক কমে যায়। প্রথম ৫ মিনিটেই ডিএসইএক্স সূচক কমে ১ পয়েন্ট। এরপর থেকে সূচক কমার প্রবণতা বাড়তে থাকে। সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে সূচক কমে ৪ পয়েন্ট। সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক ৩ পয়েন্ট কমে। সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে সূচক ৮ পয়েন্ট কমে। সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে সূচক ১৪ পয়েন্ট কমে। বেলা ১১টায় সূচক ১৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়ায় ৫ হাজার ২০৪ পয়েন্টে।

অন্যদিকে, ডিএসই-৩০ সূচক ১১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ৮৩০ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহসূচক ৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ১৯৮ পয়েন্টে।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬৮ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। একই সময়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭৭টির, কমেছে ১৭৭টির এবং অপরিবর্তীত রয়েছে ৩৭টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে দাম বৃদ্ধি পাওয়া শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় আছে- সিলকো ফার্মা, আইটিসি, ইউনাইটেড পাওয়অর, ওরিয়ন ইনফিউশন, মুন্নু স্টাফলারস, মুন্নু সিরামিকস, কেডিএস অ্যাকসেসরিজ, ভিএফএসটিডিএল, জেএমআই সিঞ্জি এবং বেক্সিমকো লিমিটেড।

সিএসই

অন্যদিকে, একই সময়ে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ সূচক (সিএসইএক্স) ১০ পয়েন্ট কমে ৯ হাজার ৬৮৭ পয়েন্টে, সিএসই-৩০ সূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ২৩ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ১২ পয়েন্ট কমে ১৫ হাজার ৯৬৪ পয়েন্টে অবস্থান করে।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

একই সময়ে দাম বাড়ার ভিত্তিতের সিএসই’র শীর্ষ কোম্পানিগুলো হলো- ভিএএমএলআর বিবিএফ, এবি ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, বেঙ্গল উইন্ডসর, নিটল ইন্স্যুরেন্স, প্রিমিয়ার লিজিং, স্কয়ার টেক্সটাইল, যমুনা ব্যাংক এবং ট্রাস্ট ব্যাংক।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র