প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা চালালে আইনগত ব্যবস্থা

ছবি: বার্তা২৪

একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা চালালে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ।

সচিব বলেন, ‘প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই প্রচারণার সুযোগ থাকে। এর আগে কোনো প্রার্থী বা রাজনৈতিক দল প্রচারণা চালাতে পারবেন না। যদি এটার ব্যত্যয় ঘটে তবে তাদের বিরুদ্ধে আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শুক্রবার (৯ নভেম্বর) দুপুরে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে তিতি সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, তফসিল ঘোষণার পর সাত দিনের মধ্য জেলা, উপজেলা ও সিটি করপোরেশনের আওতাধীন এলাকায় যেখানে পোস্টার, ব্যানার, গেইট, তোরণ ও আলোকসজ্জা আছে সেগুলো অপসারণ করার জন্য বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী ও পৌর সভার মেয়রদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আগামী সাত দিনের মধ্যে স্ব-উদ্যোগে এগুলো যদি নামিয়ে অথবা ভেঙে না ফেলেন তবে নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা ভঙ্গের দায়ে তারা দণ্ডিত হবেন এবং আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘৪৬টি জেলায় মোট ৬৬ জন রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছি আমরা। ৬৪টি জেলার জেলা প্রশাসককে রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়াও ঢাকা ও চট্টগ্রাম মেট্রো এলাকায় স্থানীয় বিভাগীয় কমিশনারকে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ৫৮০ জনের মতো উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার ভূমি এবং জেলা অথবা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আছে, তাদেরকে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে।

হেলালুদ্দীন বলেন, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল যারা জোটগতভাবে নির্বাচন করতে চায়, তারা আগামী তিন দিনের ভেতরে জানাবেন তারা কোনো জোটে গিয়ে নির্বাচন করবেন। নিবন্ধিত নয় এমন কোনো রাজনৈতিক দল যদি নিবন্ধিত আছে এমন দলের সাথে জোটগতভাবে নির্বাচন করতে চায় সেক্ষেত্রে ইসির কিছু করার থাকবে না।’

নির্বাচন এর আরও খবর