দেয়ালে পিঠ, ঘুরে দাড়াও-মাহমুদউল্লাহর আহবান

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ

একটা জয় যেমন অনেক কিছু বদলে দিতে পারে। ঠিক তেমনই একটা হারও গলার আওয়াজকে অনেক নিচে নামিয়ে দিতে পারে।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে বাংলাদেশ দলের যে ছটফটে আত্মবিশ্বাস ছিলো; সিলেট টেস্টে ১৫১ রানের বিশাল হারের পর তাতে এখন অনেক ঘাটতি! শুধু আত্মবিশ্বাস কেন, আরো অনেককিছুতেই যে নড়বড়ে পুরো দল! ঢাকা টেস্টে তাই সিলেট টেস্টের একাদশ যে থাকছে না সেটা নিশ্চিত করে দিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বললেন-দলে কিছু বদল আসছে। কিছু মানে একটা নয়। কয়েকটা! এই বদলের কারন আর কিছু নয়; হারের প্রভাব!

একাদশে বদল আনার সঙ্গে সঙ্গে ঢাকা টেস্টে নিজ দলের খেলোয়াড়দের মনোভাবে যাতে একটা যুদ্ধের মেজাজ ছড়িয়ে দেয়া যায় সেই চেষ্টাই করছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ-‘মাঠের ক্রিকেটে খেলতে নামলে অস্ট্রেলিয়া বা জিম্বাবুয়ে প্রতিপক্ষ যেই হোক না কেন-আমাদের একটাই চিন্তা থাকে, পারফর্ম করা। জয় তুলে নেয়া। সিলেট টেস্টের পর আমরা পুরো দল এক জোট হয়ে বসেছি। নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা বলেছি। দলকে জানিয়েছি, পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে, এখন একটাই কাজ-শক্তভাবে ঘুরে দাড়ানো। এছাড়া আর কোন উপায় নেই।’

ওয়ানডে ক্রিকেটে মস্ত পালোয়ান। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে খেলতে নামলেই বাংলাদেশ যেন প্রতি ম্যাচেই ফাঁদে আটকে পড়া অসহায় শিকার! পেছনের আট টেস্ট ইনিংসে বাংলাদেশ কোনবারই দুশো রান পার করতে পারেনি। কারো একটা সেঞ্চুরি পর্যন্ত নেই!  টেস্টে বাংলাদেশের এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় সমস্যার ক্ষেত্রটা কি-সেটা খুঁজে বের করতে দেশি বা আর্ন্তজাতিক তদন্ত কমিটি গঠনের প্রয়োজন নেই। সমস্যাটা স্পষ্ঠত চিহ্নিত। মাহমুদউল্লাহও মানলেন সেটা-‘আসলে যে শৃঙ্খলা নিয়ে আমাদের টেস্টে ব্যাটিং করা উচিত, সেটাই আমরা দেখাতে পারছি না। সিলেট টেস্টে হারের পর আমরা আরেকবার বুঝতে পেরেছি আমাদের সবচেয়ে বড় দুঃশ্চিন্তার ক্ষেত্রটা হলো ব্যাটিং! অন্য ফরমেটের ক্রিকেটে আমরা যেভাবে স্বাচ্ছন্দের সঙ্গে ব্যাটিং করতে পারছি, টেস্টে সেটা পারছি না। তবে ঢাকা টেস্টের আগে ওটা নিয়ে বেশি চিন্তা করতে সবাইকে মানা করে দিয়েছি। কারণ বেশি চিন্তা করতে থাকলে নিজের স্বাভাবিক খেলায় তার প্রভাব পড়বে।’

নিজ মাটিতে খেলা। চেনা কন্ডিশন। ওয়ানডে সিরিজের তিন ম্যাচেই বিধ্বস্ত জিম্বাবুয়ে। প্রতিপক্ষের স্পিনের চেয়ে বাংলাদেশের স্পিন অনেক বেশি শক্তিশালী। শুধু তাই নয়; অভিজ্ঞতায়ও অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ। দলের শীর্ষসারির ব্যাটসম্যানদের প্রায় সবাই ঘরোয়া ক্রিকেটে বড় রান হাঁকিয়েছেন। এতসব একগাদা সুবিধা সঙ্গে নিয়ে সিলেট টেস্টে খেলতে নেমেছিলো বাংলাদেশ। আশা ছিলো সিলেটে জিতেই ঢাকায় সিরিজের শেষ টেস্ট খেলতে নামবে। ফল হলো উল্টো! সিলেটে বড় ব্যবধানে হেরে বাংলাদেশ এখন ঢাকা টেস্টে খেলতে নামছে সিরিজ বাঁচানোর লড়াইয়ে। এই টেস্ট জিততে না পারলে সিরিজ হারবে বাংলাদেশ। আর জিম্বাবুয়ে ঢাকা টেস্ট ড্র রাখতে পারলেই ট্রফি জিতে ফিরবে।

সিরিজ ফয়সালার বিবিধ এই সমীকরণের সামনে দাড়ানো উভয় দলের অধিনায়কের হাসিতেই মিললো অনেক প্রশ্নের সমাধান। তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ হাসির আড়ালে দুঃশ্চিন্তা লুকাতে পারলেন কই? আর জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার মুচকি হাসিতে যা মিললো তার নাম-স্বস্তি!

খেলা এর আরও খবর