ব্যালট পেপার পাঠানো হবে ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে

নির্বাচন কমিশন থেকে আঞ্চলিক পর্যায়ে পাঠানো হচ্ছে ভোটগ্রহণ সামগ্রী, ছবি: সুমন শেখ, বার্তা২৪.কম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণের প্রায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ব্যালট পেপার ছাপানো বাদে সব কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সকাল থেকে আঞ্চলিক পর্যায়ে পাঠানো হচ্ছে ভোটগ্রহণ সামগ্রী। প্রথমদিনে ৩২টি জেলায় এসব সামগ্রী পাঠানো হচ্ছে। রোববার যাবে বাকি জেলাগুলোতে। আর ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে পাঠানো হবে ব্যালট পেপার।

ইসির ক্রয় ও মুদ্রণ শাখার প্রশাসনিক কর্মকর্তা কামরুল হাসান বার্তা২৪.কমকে জানান, ব্যালট পেপার বাদে অন্য সব নির্বাচনী সামগ্রী আমরা বিতরণ শুরু করেছি। অনেকগুলো জেলায় ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। তবে সবার শেষে যাবে ব্যালট পেপার। আমাদেরকে ২৭ ডিসেম্বরের মধ্যে ব্যালট বিতরণের সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

এই শাখার স্টোরকিপার আব্দুল্লাহ আল মামুন বার্তা২৪.কমকে জানান, শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সকাল থেকে রংপুর, রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলের ৩২ জেলায় নির্বাচনী সামগ্রী পাঠানো হচ্ছে। তবে নির্বাচনী সামগ্রীর মধ্যে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা এবং পোলিং অফিসারসহ ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের পরিচয়পত্র, নির্দেশিকা, ফরম ও প্যাকেট বিজি প্রেস থেকে সরবরাহ করা হবে। আর স্টাম্প প্যাড, অফিসিয়িাল সিল, মার্কিং সিল, ব্রাশ সিল, লাল গালা, অমোচনীয় কালির কলম, হেসিয়ান বড় ব্যাগ, হেসিয়ান ছোট ব্যাগ, চার্জার লাইট, ক্যালকুলেটর, স্ট্যাপলার মেশিন ও পিন নির্বাচন ভবনের গোডাউন থেকে বেলা ১টার মধ্যে সরবরাহ করা হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/08/1544250091452.jpg

রোববার ঢাকা, ফরিদপুর, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা, সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের ৩২ জেলায় আগামীকাল নির্বাচনী সামগ্রী সরবরাহ করা হবে।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, ভোটগ্রহণের জন্য যা যা প্রয়োজন সব কিছুই প্রস্তুত। ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পরের দিন ব্যালট পেপার ছাপানোর জন্য পাঠানো হবে। ব্যালটে সবার নাম পৃথকভাবে উল্লেখ থাকবে, তাই এগুলো ছাপতে একটু সময় লাগবে। তবে ভোটগ্রহণের সাতদিন আগে থেকে সেগুলো নির্বাচনী এলাকায় পাঠানো শুরু হবে।

জানা গেছে, পর্যাপ্ত পরিমাণে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স রয়েছে। তাই নতুন করে এবার আর ব্যালট বাক্স কেনার প্রয়োজন নেই। কোনো এলাকায় প্রয়োজন হলে যে এলাকায় বেশি আছে সেখান থেকে সমন্বয় করা হবে।

৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচন এর আরও খবর

//election count down