সাতক্ষীরায় মহাজোট থেকে ছিটকে পড়েছে লাঙ্গল

ছবি: সংগৃহীত

সাতক্ষীরার চারটি আসনে জট লেগেই আছে মহাজোটে। আসন সমঝোতা না হওয়ায় এ জট খুলছে না। এই আসনগুলোতে মহাজোট থেকে ছিটকে পড়েছে লাঙ্গল।

তাই জোটের বাইরেও জাতীয় পার্টি সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) ও সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে পারে বলে দলের একাধিক সূত্র ইঙ্গিত দিয়েছে। অপরদিকে সারাদেশে বিএনপির ২০৬টি আসনে প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

জানা গেছে, শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) ২৪০ আসনে নৌকার প্রার্থীদের চূড়ান্ত প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বাক্ষরকৃত উক্ত বরাদ্দপত্রে সাতক্ষীরা-১ আসন দেয়া হয়েছে মহাজোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সভাপতি অ্যাড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহকে। অপরদিকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙা স্বাক্ষরকৃত বরাদ্দপত্রে এ আসনে লাঙ্গল প্রতীক দেয়া হয়েছে সাবেক প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ দিদারকে। এ আসনে বিএনপি জোটের মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিব।

শুক্রবার মহাজোটের প্রতীক নৌকা বরাদ্দের সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সমঝোতা হওয়া আসনের বাইরে যেকোনো আসনে মহাজোটের শরিকরা চাইলে তাদের দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে পারবেন।

সাতক্ষীরা-২ আসনে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন বর্তমান এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। এ আসনে জাতীয় পার্টির জেলা সভাপতি শেখ আজহার হোসেন মহাজোটের প্রার্থী মনোনীত হলেও দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অনীহার কারণে সেটি হাতছাড়া হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে শেখ মতলুব হোসেন লিয়ন লাঙ্গল প্রতীক বরাদ্দ পাচ্ছেন বলে দলের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

অপরদিকে সাতক্ষীরা সদর আসনে বিএনপি কোনো প্রার্থীর নাম প্রকাশ করেনি। ফলে আসনটি ঐক্যফ্রন্টের শরিক জামায়াতের মুহাদ্দিস আব্দুল খালেক ধানের শীষের চূড়ান্ত প্রার্থী হচ্ছেন তা প্রায় নিশ্চিত। আবার জাসদের (রব) পক্ষে আফছার আলীর দাখিলকৃত মনোনয়নপত্র রিটার্নিং কর্মকর্তা বাতিল করলেও আপিলে সেটি বহাল রয়েছে। তিনি সদরের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হবার জন্য জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সাতক্ষীরা-৩ আসনে মহাজোটের প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী ডা. রুহুল হক এমপি। তার মনোনয়ন অনেক আগেই নিশ্চিত হয়েছে। এ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জামায়াতের হাফেজ রবিউল বাশার।

সাতক্ষীরা-৪ আসনে মহাজোটের নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন বর্তমান এমপি এসএম জগলুল হায়দার। তবে সম্প্রতি বিকল্পধারায় যোগদানকারী সাবেক এমপি এইচএম গোলাম রেজা দলীয় প্রতীক নিয়ে মাঠে থাকতে পারেন বলে জানা গেছে। অপরদিকে জাতীয় পার্টির আব্দুস সাত্তার মোড়ল মাঠ ছাড়ছেন কিনা তা স্পষ্ট নয়। এ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জামায়াতের সাবেক এমপি গাজী নজরুল ইসলাম।

জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান আশু বলেন, ‘জেলায় এখনো জাতীয় পার্টির কোনো প্রার্থী মহাজোটের মনোনয়ন পাননি বলে শুনেছি।’

নির্বাচন এর আরও খবর

//election count down //sticky sidebar