দুর্ঘটনা এড়াতে মেহেরপুর পুলিশ সুপারের বিশেষ উদ্যোগ

ছবি: বার্তা২৪

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, মেহেরপুর

ব্যস্ততম তিন রাস্তার মোড়ে ডিভাইডার না থাকায় প্রায়ই ঘটতো দুর্ঘটনা। সম্প্রতি মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের (পিপিএম) উদ্যোগে ডিভাইডার স্থাপন করা হয়েছে। যা এলাকার মানুষের মাঝে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। এতে মেহেরপুর শহরের কলেজ মোড় এলাকা এখন দুর্ঘটনা মুক্ত।  

জানা গেছে, মেহেরপুর শহরে প্রবেশদ্বার হিসেবে কলেজ মোড় অন্যতম। মেহেরপুর ও মুজিবনগরে চলাচলকারী যানবাহনগুলো কলেজ মোড় থেকে ভাগ হয়ে চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া অভিমুখে যায়। সরকারি কলেজ মোড়ের পাশে রয়েছে ছোটছোট দোকানপাট ও পেট্রোল পাম্প। গোল চত্বর থেকে মাত্র দুশো গজ দুরে সরকারী কলেজের প্রধান ফটক। এই গোল চত্বরের তিনটি প্রধান সড়কের কারণে ভোর থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত যানবাহনের ভিড় থাকে। বিশেষ করে সকাল ৯টার দিকে ভিড় অনেক বেড়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, মেহেরপুর শহর থেকে ছেড়ে আসা যানবাহনগুলো চুয়াডাঙ্গা সড়কে প্রবেশ করার সময় এবং ওয়াপদা মোড়ের দিক চলাচলকারী যানবাহনগুলো ট্রাফিক আইন না মেনে চলাচল করেছে। ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। এছাড়াও চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা লোকাল বাসগুলো দ্রুত গতিতে শহরে প্রবেশের সময় ট্রাফিক আইন না মানায় বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটেছে একাধিকবার। গোল চত্ত্বরের অব্যবস্থাপনার কারণে ট্রাফিক পুলিশ যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা আনতে পারেননি।

জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, দুর্ঘটনা এড়াতে মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান (পিপিএম) বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তিনি রোড ডিভাইডার পিলার দিয়ে কলেজ মোড়টাকে ট্রাফিক আইন অনুযায়ী ঘিরে দিয়েছেন। পুলিশ সদস্যরা নিজেরাই এগুলো স্থাপন করেন। এখন সব ধরনের যানবাহন ট্রাফিক সিগন্যাল অনুযায়ী চলাচল করছে। যার ফলে এখন দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেন পথচারীরা।

এ প্রসঙ্গে মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কলেজ মোড়ের সমস্যা আপাতত জোড়াতালি দিয়ে সমাধান করা গেছে। সমস্যা হচ্ছে, আমাদের সড়কের গোল চত্বর একেবারে ক্রুটিপূর্ণভাবে নির্মাণ করেছে সড়ক বিভাগ। এগুলো ভেঙে সঠিক নিয়মে নির্মাণ করা গেলে জেলার অন্যান্য গোল চত্বর এলাকার সমস্যাগুলো সমাধান হবে।

 

জেলা এর আরও খবর