Barta24

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

English

দুর্ঘটনা এড়াতে মেহেরপুর পুলিশ সুপারের বিশেষ উদ্যোগ

দুর্ঘটনা এড়াতে মেহেরপুর পুলিশ সুপারের বিশেষ উদ্যোগ
ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
মেহেরপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যস্ততম তিন রাস্তার মোড়ে ডিভাইডার না থাকায় প্রায়ই ঘটতো দুর্ঘটনা। সম্প্রতি মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের (পিপিএম) উদ্যোগে ডিভাইডার স্থাপন করা হয়েছে। যা এলাকার মানুষের মাঝে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। এতে মেহেরপুর শহরের কলেজ মোড় এলাকা এখন দুর্ঘটনা মুক্ত।  

জানা গেছে, মেহেরপুর শহরে প্রবেশদ্বার হিসেবে কলেজ মোড় অন্যতম। মেহেরপুর ও মুজিবনগরে চলাচলকারী যানবাহনগুলো কলেজ মোড় থেকে ভাগ হয়ে চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া অভিমুখে যায়। সরকারি কলেজ মোড়ের পাশে রয়েছে ছোটছোট দোকানপাট ও পেট্রোল পাম্প। গোল চত্বর থেকে মাত্র দুশো গজ দুরে সরকারী কলেজের প্রধান ফটক। এই গোল চত্বরের তিনটি প্রধান সড়কের কারণে ভোর থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত যানবাহনের ভিড় থাকে। বিশেষ করে সকাল ৯টার দিকে ভিড় অনেক বেড়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, মেহেরপুর শহর থেকে ছেড়ে আসা যানবাহনগুলো চুয়াডাঙ্গা সড়কে প্রবেশ করার সময় এবং ওয়াপদা মোড়ের দিক চলাচলকারী যানবাহনগুলো ট্রাফিক আইন না মেনে চলাচল করেছে। ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। এছাড়াও চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা লোকাল বাসগুলো দ্রুত গতিতে শহরে প্রবেশের সময় ট্রাফিক আইন না মানায় বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটেছে একাধিকবার। গোল চত্ত্বরের অব্যবস্থাপনার কারণে ট্রাফিক পুলিশ যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা আনতে পারেননি।

জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, দুর্ঘটনা এড়াতে মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান (পিপিএম) বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তিনি রোড ডিভাইডার পিলার দিয়ে কলেজ মোড়টাকে ট্রাফিক আইন অনুযায়ী ঘিরে দিয়েছেন। পুলিশ সদস্যরা নিজেরাই এগুলো স্থাপন করেন। এখন সব ধরনের যানবাহন ট্রাফিক সিগন্যাল অনুযায়ী চলাচল করছে। যার ফলে এখন দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেন পথচারীরা।

এ প্রসঙ্গে মেহেরপুর পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কলেজ মোড়ের সমস্যা আপাতত জোড়াতালি দিয়ে সমাধান করা গেছে। সমস্যা হচ্ছে, আমাদের সড়কের গোল চত্বর একেবারে ক্রুটিপূর্ণভাবে নির্মাণ করেছে সড়ক বিভাগ। এগুলো ভেঙে সঠিক নিয়মে নির্মাণ করা গেলে জেলার অন্যান্য গোল চত্বর এলাকার সমস্যাগুলো সমাধান হবে।

 

আপনার মতামত লিখুন :

পঞ্চগড়ে তিস্তায় ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

পঞ্চগড়ে তিস্তায় ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু
তিস্তা নদীতে ডুবে মারা যাওয়া দুই শিশু

পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় তিস্তা নদীতে নিখোঁজের প্রায় ৭ ঘণ্টা পর আব্দুল্লাহ (৯) ও শাওন (৬) নামে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছেন স্থানীয়রা।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলাধীন টেপ্রীগঞ্জ ইউনিয়নের রামগঞ্জ বিলাসী চিলাহাটিপাড়া এলাকার তিস্তা নদী থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত আব্দুল্লাহ ওই এলাকার ফারুক হোসেনের ছেলে এবং নিহত অপর শিশু শাওন একই এলাকার আলিউল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার দুপুরে আব্দুল্লাহ ও শাওন খেলার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়। বিকেলে তারা দুজন বাড়িতে না ফিরলে উভয়ের পরিবার তাদের খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পার্শ্ববর্তী তিস্তা নদীর পাড়ে তাদের কাপড় দেখতে পায়।

স্থানীয়রা নদীতে নেমে খোঁজাখুঁজি করে দুই শিশুকে না পেয়ে ডোমার ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা স্থানীয়দের সহযোগিতায় দীর্ঘ ৭ ঘণ্টা খোঁজাখুজির পর রাত সোয়া ১২টায় আব্দুল্লাহ ও শাওনের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

দেবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল হাসান সরকার বার্তাটয়েন্টিফোর.কমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

চুয়াডাঙ্গায় ইয়াবাসহ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আটক

চুয়াডাঙ্গায় ইয়াবাসহ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আটক
রফিকুল ইসলাম ববি

চুয়াডাঙ্গায় ইয়াবাসহ দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববিকে আটক করেছে বিজিবি।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) দামুড়হুদা উপজেলার মুন্সীপুর বিজিবির ক্যাম্পের সামনে থেকে ২০ পিস ইয়াবাসহ তাকে আটক করা হয়।

আটক রফিকুল ইসলাম ববি উপজেলার দর্শনা পৌর শহরের কেরুজ ফুলতলা মহল্লার আব্দুল খালেকের ছেলে।

দামুড়হুদা থানা সূত্রে জানা যায়, গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে মুন্সীপুর বিজিবির ক্যাম্পের নায়েক জুলহাস সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ববির মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে তার দেহ তল্লাশি করেন। এ সময় তার কাছে ২০ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়।

দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকুমার বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে দামুড়হুদা থানায় রাতে একটি মামলা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র