Alexa
independent day 2019

ক্ষতিগ্রস্তদের চাহিদা মেটাতে কাজ করব: হাবিবুন নাহার

ক্ষতিগ্রস্তদের চাহিদা মেটাতে কাজ করব: হাবিবুন নাহার

বন, পরিবেশ ও জলবায়ু উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার / ছবি: বার্তা২৪

মানজারুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর এবারের নতুন মন্ত্রি পরিষদে ঠাঁই পেয়েছেন বাগেরহাট-৩ (রামপাল-মংলা) আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন নাহার। উপমন্ত্রী হিসেবে তিনি বন, পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন। হাবিবুন নাহারের স্বামী তালুকদার আবদুল খালেক খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক এ দম্পতিকে নিয়ে খুলনাসহ সর্বত্র আলোচনায় মুখর। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ দম্পতিদের নিয়ে চলছে অনেক মন্তব্য। অধিকাংশ মন্তব্যই তাদের প্রশংসা সূচক।

রোববার (১৩ জানুয়ারি) বন, পরিবেশ ও জলবায়ু উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের সঙ্গে বার্তা২৪’র একান্ত সাক্ষাত হয়। এ সময় তিনি তার মন্ত্রীত্ব নিয়ে অনুভূতি প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘জলবায়ু পবির্তনজনিত ক্ষতিতে যারা ভুক্তভোগী, তারা যেনো সহায়তা পায় সেদিকে খেয়াল করব। আগে এ অঞ্চলে উপকূলের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের চাহিদা পূরণে কোনো ব্যয় করা হয়নি। আমি উপকূলীয় এলাকার সংসদ সদস্য হিসেবে উপকূলের ক্ষতিগ্রস্তদের চাহিদা মেটাতে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাব। জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য যে ফান্ড আছে সেগুলোতে বিভিন্ন এনজিওরা কাজ করে। আমাদের এ অঞ্চল দুর্যোগপ্রবণ হলেও এখানে এ পর্যন্ত কোনো ফান্ড আসেনি। বিশেষত বাগেরহাট-খুলনা-সাতক্ষীরা এ অঞ্চলটা সম্পর্কে আমার জানা আছে।’

উপ-মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে হাবিবুন নাহার বলেন, ‘দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। আমরা বিশ্বে মাথা উঁচু করে গর্বে দাঁড়িয়ে আছি। দেশের ঐতিহ্য বিশ্ব দরবারে এখন প্রশংসার দাবিদার। আমি আমার সেরাটা দিয়ে দেশের জন্য কাজ করব।’

মন্ত্রণালয় সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমার মন্ত্রণালয় সম্পর্কে আগে থেকে তেমন কোনো ধারণাই আমার ছিল না। তাই পূর্ব পরিকল্পিতও তেমন কিছু নেই। তবে আমার নির্বাচনী এলাকা সম্পর্কে আমার অনেক ধারণা আছে। আমার এলাকায় আছে সুন্দরবন। আগে আমার মোংলা রুটে দেখা যেত ঠেলাগাড়িতে কাঠ যাচ্ছে, সমিলে বনের কাঠের স্তুপ। আমি ২০০৮ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এ অঞ্চলে কঠোরভাবে এসব পর্যবেক্ষণ করেছি। সুন্দরবনের অন্যান্য অংশ থেকে যে কাঠ পাচার হয়, সে তুলনায় আমার এলাকা থেকে পাচার কম হয়। এখানে পাহারাদাররা সবাই খুব সতর্ক। বন ও বনজ সম্পদ রক্ষার্থে আমরা আগেও পদক্ষেপ নিয়েছি। আমার অঞ্চল ছাড়াও সুন্দরবন ও অন্যান্য বনের অংশ থেকে বনের গাছ-কাঠ যেনো পাচার না হয়, তার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।’

উপমন্ত্রী বলেন, ‘এ অঞ্চলের বড় একটি সম্পদ হলো মাছ। সুন্দরবনের বিভিন্ন নদী ও খালে আছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ আছে। কিছু মানুষ আছে অসাধু উপায়ে মাছ আহরণ করা জন্য প্রতিনিয়ত খালগুলোতে বিষ দিয়ে থাকে। এগুলো বন্ধ করতে বনবিভাগে কর্মরতদের দায়িত্ব পালন করা উচিত। কিন্তু তারা ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করেনা। যে কারণে আমাদের এ অঞ্চলের যে মাছ ছিলো, তা প্রায় নিঃশেষ। আমার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা থাকবে কঠোর হাতে এগুলো বন্ধ করতে।’

সর্বশেষে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে হাবিবুন নাহার বলেন, ‘আমার ওপর যিনি অভিভাবক হয়ে আছেন তিনি সব বিষয়ে ভালভাবে খেয়াল রাখেন। আমি শুধু তার সহায়ক হিসেবে কাজ করে যাব। সারা বাংলাদেশ নিয়ে আমার থেকে তার চিন্তাধারা অনেক বেশি। তবুও তার সহায়তায় যতটুকু সম্ভব আমি আপ্রাণ চেষ্টা করে যাব।’

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বেগম হাবিবুন নাহারের পৈতৃক বাড়ি বাগেরহাট জেলায়। নিঃসন্তান এ দম্পতি খুলনা মহানগরীর মুন্সীপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে বাস করেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগেও তিনি ২০০৮ ও ২০১৮ সালের উপ-নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বাগেরহাট-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

উপ-মন্ত্রী হাবিবুন নাহারের স্বামী তালুকদার আব্দুল খালেক ১৯৭৭ সাল থেকে ১৯৮৮ পর্যন্ত তৎকালীন খুলনা পৌরসভার মহসিনাবাদ ইউনিয়নের কমিশনার ছিলেন। এরপর ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ ও ২০১৪ সালে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে বাগেরহাট-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তারপর ২০০৮ খুলনা সিটি মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৩ সালে পরাজিত হলেও সর্বশেষ ২০১৮ সালের মে মাসে সিটি নির্বাচনে ২য় মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন তিনি।

জাতীয় এর আরও খবর