Barta24

রোববার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

পাকিস্তানে যেতে রাজি ভিলিয়ার্স

পাকিস্তানে যেতে রাজি ভিলিয়ার্স
এবি ডি ভিলিয়ার্স
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

এখনো পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরেনি। মাঝে মধ্যে দুই একটা দেশ সফরে গেলেও ক্রিকেটের বড় দলগুলো নিরাপত্তা শঙ্কায় দেশটিতে যেতে রাজি হচ্ছে না। তবে পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) হাত ধরে গত বছর দেশটিকে পা রেখেছেন বেশ কয়েকজন বিদেশি ক্রিকেটারই। হয়েছে বিশ্ব একাদশের ম্যাচও। এবারের এই টুর্নমেন্টের ৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে পাকিস্তানে। তারই পথ ধরে এবি ডি ভিলিয়ার্স নিশ্চিত করলেন তিনিও পাকিস্তান যবেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই তারকা পিএসএলে লাহোর কালান্দার্সের হয়ে লড়বেন। দলটির গ্রুপ পর্বের শেষ দুটি ম্যাচ খেলবেন লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে।

ডি ভিলিয়ার্স বলছিলেন, ‘আগামী ৯ ও ১০ মার্চ লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠেয় দুটি ম্যাচে আমি পাকিস্তানি সমর্থকদের সামনে খেলতে নামবো। কালান্দার্সের ভক্তদের সামনে ব্যাটে ঝড় তোলার অপেক্ষায় আছি আমি।’

সময়ের হিসাব বলছে ডি ভিলিয়ার্স পাকিস্তানে যাবেন প্রায় ১১ বছর পর। ২০০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে দেশটিতে সফরে গিয়েছিলেন তিনি। এবার পিএসএলে তার দল লাহোর কালান্দার্সের ম্যাচ খেলতে যাবেন পাকিস্তানে। পারিবারিক ব্যস্ততার কারণে গ্রুপপর্বের শেষদিকের ম্যাচ খেলবেন ভিলিয়ার্স।

সব মিলিয়ে গত ১৮ মাসে পাঁচজন প্রোটিয়া তারকা ক্রিকেটার পা রেখেছেন পাকিস্তানে। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে ফাফ ডু প্লেসিসের নেতৃত্বে পাকিস্তানে যায় আইসিসি বিশ্ব একাদশ। সেই দলে ছিলেন হাশিম আমলা, ডেভিড মিলার, ইমরান তাহির ও মরনে মরকেল।

১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে এবারের পিএসএল। উদ্বোধনী ম্যাচে লড়বে দুই ফেভারিট ইসলামাবাদ এবং লাহোর কালান্দার্স। শুরুতে মধ্যপ্রাচ্যে খেলা হলেও ৭ মার্চ টূর্নামেন্ট চলে যাবে পাকিস্তানে।

আপনার মতামত লিখুন :

সাকিব বনাম আফগানিস্তানের ম্যাচে, বাংলাদেশের জয়!

সাকিব বনাম আফগানিস্তানের ম্যাচে, বাংলাদেশের জয়!
ব্যাটিংয়ের পর বল হাতেও ম্যাজিক দেখালেন সাকিব, দল পেলো দুর্দান্ত এক জয়- ছবি: আইসিসি

এটি আরেকটি ম্যাচ যে ম্যাচকে আপনি নতুন নামে ডাকতে পারেন-‘সাকিবের ম্যাচ’!

চলতি বিশ্বকাপে সাকিব আল হাসান ব্যাট হাতে বিশ্বকে বিস্মিত করছিলেন। আফগান ম্যাচে আরেকবার বুঝিয়ে দিলেন কেন তাকে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বলা হয়? ব্যাটিংয়ে দুরন্ত! বোলিংয়ে দুর্দান্ত!! আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারানো ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শুধু সাকিব আর সাকিব!

ব্যাট হাতে ৫১ রান। বোলিংয়ে ১০ ওভারে ২৯ রানে ৫ উইকেট! বিশ্বকাপের মাঠে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে পাঁচ উইকেট লাভের কৃতিত্ব তার। চলতি বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ৪৭৬ রানের মালিক তিনি। উইকেট শিকার ১০টি। শুধু কি তাই? এবারের বিশ্বকাপেরও এক ম্যাচে কোনো বোলারের সেরা বোলিং এটি। পাকিস্তানের মোহাম্মদ আমিরের ৫/৩০ বোলিংকে টপকে গেলেন সাকিব।  

আরো আছে!

বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচে হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে পাঁচ উইকেট শিকারি দ্বিতীয় ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। তার আগে এই রেকর্ডটা ছিলো ভারতের যুবরাজ সিংহের। ২০১১ সালের বিশ্বকাপে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই অলরাউন্ডার পারফরমেন্স দেখিয়েছিলেন যুবরাজ।

এমন দুর্দান্ত ফর্মের ক্রিকেট শুধু স্বপ্নেই দেখেন ক্রিকেটাররা। সাকিব সেটাকে বাস্তবের জমিনে নামিয়ে এনেছেন।

তাও আবার কোথায়?

-একেবারে বিশ্বকাপের আসরে!

সাউদাম্পটনে বাংলাদেশের তোলা ২৬২ রানের জবাবে আফগানিস্তানের ব্যাটিংয়ের শুরুটা যেভাবে হয়েছিলো তাতে মনে হচ্ছিলো বড় সমস্যার মধ্যে পড়তে যাচ্ছে মাশরাফির দল। পড়েছিলোও বটে! প্রথম পাওয়ার প্লে’তে চলতি বিশ্বকাপে এই প্রথম কোনো উইকেট হারালো না আফগানিস্তান। তুললো নিজেদের সেরা সংগ্রহ ৪৮ রান। ধীরে ধীরে ম্যাচে অস্বস্তি ঘিরে ধরে বাংলাদেশকে।

১১ নম্বর ওভারে সাকিবের হাতে বল তুলে দিলেন মাশরাফি।

সাকিব স্বস্তি এনে দিলেন। আফগান ওপেনার রহমত শাহ আউট। দুই স্পেলে নিজের শুরুর পাঁচ ওভারেই ম্যাচের মোড় বদলে দিলেন সাকিব। শিকার করলেন ৩ উইকেট। এই সময় তার দাড়ায় বোলিং বিশ্লেষণ ৫-১-৬-৩! পরের তিন ওভারে আরেকটি উইকেট নিয়ে বিশ্বকাপে নিজের সেরা বোলিং পারফরমেন্স দেখালেন। ছাড়িয়ে গেলেন চার বছর আগের বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে (৪/৫৫) নিজের সেরা বোলিংকে।

ইনিংসের মাঝপথে সেই যে মুখ থুবড়ে পড়লো আফগানিস্তান, সেখান থেকে আর উঠে দাড়াতে পারলো না। শেষ ১৫ ওভারে ম্যাচ জয়ের জন্য আফগানদের প্রয়োজন দাড়ায় ১৩১ রান। হাতে ৫ উইকেট জমা। কিন্তু সাউদাম্পটনের এই পিচে শেষ পাঁচ উইকেটে সেটা যে তখন আফগানদের জন্য খালি পায়ে বরফের পাহাড়ে উঠার মতোই কঠিন।

এই ম্যাচে আফগানিস্তানের সেই কষ্ট শেষ হয় ৪৭ নম্বর ওভারে এসে। ঠিক ২০০ রানে।

ইনজুরিতে বিশ্বকাপ শেষ আন্দ্রে রাসেলের

ইনজুরিতে বিশ্বকাপ শেষ আন্দ্রে রাসেলের
আক্ষেপ নিয়েই বিশ্বকাপ অধ্যায় শেষ রাসেলের

ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেটে খেলতে গিয়ে সর্বনাশ হয়ে গেল আন্দ্রে রাসেলের। আইপিএলে খেলা শেষ করেই ভারত থেকে ছুটে গিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। ক্লান্ত এই অলরাউন্ডারের বিশ্বকাপ মিশনের শুরুটা তেমন ভাল ছিল না। কয়েক ম্যাচ লড়াইয়ের পর বাঁ হাটুর ইনজুরির কাছে হার মানলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই তারকা ক্রিকেটার। আইসিসি সোমবার জানিয়ে দিয়েছে এবারের বিশ্বকাপ শেষ রাসেলের!

ইনজুরিতে খেলতে পারেননি সবশেষ দুটি ম্যাচ। এর আগে খেলা চার ম্যাচে শিকার করেন ৫টি উইকেট। ব্যাট হাতে মোট ৩৬ রান। আক্ষেপেই বিশ্বকাপ শেষ ৩১ বছর বয়সী রাসেলের।

হাঁটুর সমস্যার কারণে ছিটকে যাওয়া আন্দ্রে রাসেলের বদলি হিসেবে সুনীল অ্যামব্রিসকে ডাক পেলেন দলে। ২৭ জুন ওল্ড ট্রাফোর্ডে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগেই যোগ দেবেন ক্যারবীয় শিবিরে। ৬টি ওয়ানডে খেলে ৩১৬ রান তুলেই ডাক পেলেন বিশ্বকাপ দলে।

এবারের বিশ্বকাপ মিশন রাউন্ড রবিন লিগের পরই শেষ জেসন হোল্ডারদের। সেমি-ফাইনালের লড়াই থেকে ছিটকে গেছে তারা। ভারত ছাড়াও উইন্ডিজ বিশ্বকাপে লড়বে শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানের সঙ্গে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র