Alexa

মাদকচক্র ও অপরাধে রোহিঙ্গারা, সীমান্ত জনপদে চরম অসন্তোষ

মাদকচক্র ও অপরাধে রোহিঙ্গারা, সীমান্ত জনপদে চরম অসন্তোষ

ছবি: সংগৃহীত

মুহিববুল্লাহ মুহিব, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, কক্সবাজার, বার্তা ২৪.কম

মিয়ানমার থেকে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের অনেকেই মাদক ব্যবসা, পাচার ও অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। মাদক লেনদেনকারী অনেক রোহিঙ্গা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর হাতে আটক ও নিহত হয়েছে। মানবিক কারণে আশ্রয় গ্রহণকারী রোহিঙ্গাদের এমন বেআইনি ও অসামাজিক কর্মকাণ্ড ক্রমবর্ধমান হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় সীমান্তবর্তী জনপদ বৃহত্তর কক্সবাজারে সৃষ্টি হয়েছে নাগরিক চরম অসন্তোষ ও সামাজিক অস্থিতিশীলতা।

প্রাপ্ত্য তথ্যানুযায়ী, চলতি ২০১৯ সালের ১ থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত সময়কালে অন্তত চার রোহিঙ্গা ইয়াবা পাচার করতে গিয়ে গোলাগুলিতে নিহত হয়েছে। আগের বছরের শেষ দুই মাসে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ইয়াবা ও অন্যান্য মাদকসহ আটক হয়েছে অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা। তাছাড়া বিভিন্ন সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের বিভিন্ন ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা, গাঁজা, বিয়ার ও বিদেশি সিগারেটসহ বিপুল মাদক দ্রব্য উদ্ধার করে।

জেলার মিয়ানমার সীমান্তবর্তী টেকনাফ উপজেলার নাফনদীল উলুবনিয়া, খারাইগ্যাঘোনা, হোয়াইক্যং, লম্বাবিল, ঊনছিপ্রাং, কাঞ্জরপাড়া, নয়াপাড়া, ঝিমংখালী, মিনাবাজার, নয়াবাজার, খারাংখালী, মৌলভী বাজার, হোয়াব্রাং, সুলিশ পাড়া-কাস্টমস ঘাট, পূর্ব ফুলের ডেইল, নাটমোরা পাড়া-জালিয়াপাড়া, চৌধুরী পাড়া, রঙ্গিখালী লামার পাড়া, রঙ্গিখালী, আলীখালী পয়েন্ট দিয়ে মোচনী, নয়াপাড়া ও জাদিমোরায় অবস্থানকারী ভাসমান রোহিঙ্গারাও মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বার্তা২৪কে জানান, রাতের বেলা ফিনী বা ঠেলা জালে মাছ শিকারের অজুহাতে ইয়াবার চালান আনা-নেওয়া ও পাচারে জড়িয়ে পড়েছে ক্যাম্পের বাইরে থাকা ভাসমান রোহিঙ্গারা। রাতের অন্ধকারে তারা এসব কাজ করে যাচ্ছে।

একাধিক স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ জানুয়ারি (শনিবার) ভোরে টেকনাফের হ্নীলার নাফনদীর রঙ্গীখালী মোহনায় মিয়ানমার থেকে মাদক নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় বিজিবির সাথে ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় গুলিতে মারা যায় দুই রোহিঙ্গা। তারা হলেন, মিয়ানমারের আকিয়াবের মন্ডু নাগাকুরাস্থ সিকদার পাড়ার মোহাম্মদ আলমের ছেলে আয়াজ উদ্দিন (২৭) ও একই এলাকার বদিউর রহমানের ছেলে ছৈয়দুল আমিন (২৫)।

আরোও জানা যায়, গত ৫ জানুয়ারি (শনিবার) কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ অংশ থেকে দুই রোহিঙ্গার গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মাদকের টাকা নিয়ে ভাগ-ভাটোয়ারার সময় তাদের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে এ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ। নিহতরা হলেন- টেকনাফের উনছিপ্রাংয়ের পুটিবনিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি-ব্লকের বাসিন্দা মৃত আবুল কাশেমের ছেলে খাইরুল আমিন (৩৫) ও একই ব্লকের হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. আব্দুল্লাহ (৪০)।

রোহিঙ্গা প্রতিরোধ কমিটির নেতা হামিদুল হক চৌধুরী বার্তা২৪কে বলেন, ‘যাদেরকে আমরা মানবিক কারণে আশ্রয় দিয়েছিলাম, তারা এখন বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে। শুধু মাদক নয়, খুন ও চুরি করছে তারা। এসব অপকর্ম এখনই বন্ধ করা প্রয়োজন।'

জানা গেছে, রোহিঙ্গাদের অসামাজিক কার্যক্রমে ক্ষুব্ধ ও বিরক্ত স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সঙ্গে তাদের দূরত্ব ও বিভেদ সৃষ্টি হচ্ছে। সীমান্তবর্তী অঞ্চলগুলোতে দেখা দিয়েছে চরম অসন্তোষ। উদ্বাস্তু সমস্যার পাশাপাশি উদ্বাস্তুদের একটি অংশের মাদক পাচার ও অপরাধমূলক কাজের সংশ্লিষ্টতায় স্থানীয় নাগরিক সমাজ ভীত ও উদ্বিগ্ন।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কমিটির নেতা মাহমুদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘শত কড়াকড়ির মধ্যেও রোহিঙ্গারা বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ছে ও বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে যাচ্ছে। অবিলম্বে এসব অপকর্ম বন্ধ করা প্রয়োজন। নচেৎ আগামীতে চরম হুমকির মুখে পড়বে দেশ ও দেশের মানুষ।'

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় পুলিশের তল্লাশি চৌকি বাড়ানো হয়েছে। পুলিশ নিয়মিত তল্লাশির পাশাপাশি টহলও জোরদার করেছে।’

টেকনাফস্থ ২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আছাদুদ-জামান চৌধুরী বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে যোগাযোগ রয়েছে। সে কারণে তারা বিভিন্ন সময় মাদক পাচারে কাজ করছে। কারণ এখানকার ইয়াবা ব্যবসায়ীরা এখন রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করছে। বিজিবি সীমান্ত এলাকায় সতর্কতা জারি করেছে।’

মাদকদ্রব্য অধিদপ্তর কক্সবাজারের সহকারী পরিচালক সোমেন মন্ডল বার্তা২৪কে বলেন, ‘সম্প্রতি রোহিঙ্গা শিবিরের বিভিন্ন ক্যাম্পে অভিযান পরিচালনা করে ইয়াবা, গাঁজাসহ বিভিন্ন মাদক উদ্ধার করা হয়েছে। বিশাল এলাকা হওয়ায় রোহিঙ্গারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এধরনের অভিযান অব্যাহত রাখবে মাদকদ্রব্য অধিদফতরের গোয়েন্দারা।

এদিকে গত ১৬ মাসে ৫৬ হাজার পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাকে ক্যাম্পে ফেরত আনা হয়েছে জানিয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম বার্তা ২৪.কমকে বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে ক্যাম্পে কাঁটাতার বেড়া নির্মাণের পরিকল্পানা নিয়েছে সরকার। দ্রুত সময়ের মধ্যে তা বাস্তবায়ন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট এলাকার জনপ্রতিনিধি, সিভিল সোসাইটি ও নাগরিক সমাজ মনে করে, দ্রুত প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি রেজিস্টার্ড উন্নয়ন সংগঠনগুলোকে দিয়ে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের মাদক পাচার, অপরাধমূলক কার্যক্রম মনিটরিং ও মোকাবেলা করা দরকার। তাছাড়া আইনশৃঙ্খলা সংস্থার উদ্যোগে সামাজিক প্রতিরোধ ও সচেতনামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা প্রয়োজন।

ফিচার এর আরও খবর

হেঁটে হেঁটে কলকাতা

হেঁটে হেঁটে কলকাতা

কলকাতার আয়তন এখন উত্তরে ব্যারাকপুর পেরিয়ে খড়দহে ঠেকেছে। দক্ষিণে গড়িয়া ছাড়িয়ে বারুইপুর। পূর্ব দিকে সল্টলেক, নিউ...