Barta24

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

English

বিরোধীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ ‘রাজনৈতিক’ নাকি ‘সৌজন্যতা’?

বিরোধীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ ‘রাজনৈতিক’ নাকি ‘সৌজন্যতা’?
ছবি: সংগৃহীত
রেজা-উদ্-দৌলাহ প্রধান
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দলীয় সরকারের অধীনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে একাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় রাজনৈতিক দলগুলোকে ধন্যবাদ জানাতে চান আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের সঙ্গে যৌথসভায় প্রধানমন্ত্রী তার এই ইচ্ছার কথা জানান।

নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রীর এমন ইচ্ছা রাজনৈতিক সংস্কৃতিতেও বিরল বলে মনে করছেন অনেকে। ফলে এটা নিয়ে শুরু হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। তবে প্রধানমন্ত্রীর এই ইচ্ছা শুধুই ‘সৌজন্যতা’ নাকি ‘রাজনৈতিক কৌশল’ সেটাও বুঝতে চান অনেকে। এমনকি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাই জানেন না এটার মূল উদ্দেশ্য কী। তবে প্রধানমন্ত্রীর দাওয়াতের অপেক্ষায় আছেন অনেক দলের নেতা।

নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের দেশি-বিদেশি বিভিন্ন মহলের শুভেচ্ছা বার্তায় সিক্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এখন তিনি দেশ গঠনে অনেকটা নির্ভার। রোববার প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে অফিসও করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলগুলোর আপত্তি ও দাবি ততটা আমলে না নিলেও তাদের সঙ্গে দেখা করতে চান। যেটাকে ইতিবাচক হিসেবে উল্লেখ করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাদের দাবি, প্রধানমন্ত্রীর এ ধরনের উদ্যোগের ফলে রাজনৈতিক দলের নেতাদের মধ্যে যেমন দেখা সাক্ষাৎ হবে তেমনি মতপার্থক্যগুলো পরিস্কার হবে। অনেক কঠিন বিষয়ও সহজেই সমাধান হতে পারে।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ একাধিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে দলীয় সরকারের অধীনে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দৃষ্টান্ত তৈরি হয়েছে। এই অর্জন সবার। এজন্য চলতি মাসের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে নির্বাচনে অংশ নেওয়া রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বসতে চান, ধন্যবাদ দিতে চান। তবে ধন্যবাদের আড়ালে বিভিন্ন আলাপ-আলোচনাও হবে। কেননা দেশকে এগিয়ে নিতে বিরোধীপক্ষের চিন্তা-ভাবনাগুলোও জানতে চান প্রধানমন্ত্রী।

তারা আরো জানান, নির্বাচনের আগে সংলাপে শুধু রাজনীতি নয়, দেশ গঠনের বিভিন্ন বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যে তাদের ভুলে যাননি, তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করার আগ্রহ যে তার আছে, সেই বিষয়টাই মুখ্য।

এদিকে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থীদের বিজয়ের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ বিএনপির নেতারা অভিযোগ করেছেন, নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। ফলে দেশে পুনরায় নির্বাচন হওয়া প্রয়োজন। এমনকি বিএনপি’র বিজয়ী প্রার্থীরা শপথও নেননি।

রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপের আগ্রহকে ইতিবাচকভাবে দেখছে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি জানিয়েছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী সবাইকে ডাকবেন সংলাপে, একটু তো ইঙ্গিত থাকবে কী কী বিষয় নিয়ে এই সংলাপ। যদি সেটা আমাদের কাছে বিবেচনাযোগ্য হয়, তখন আমরা কমিটিতে সিদ্ধান্ত নেবো।’

প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায় নিয়ে ড. কামাল হোসেনের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘ওনাদের প্রত্যাশা অনেক কিছু, সেটা থাকতেই পারে। এখন অপেক্ষা করতে হবে যে কী প্রক্রিয়ায় শুরু হয়। দাওয়াতটা কী প্রক্রিয়ায় হয় সেটা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘তাদেরকে দাওয়াত দেওয়া হবে। দাওয়াত যখন দেওয়া হবে সেখানে কথাবার্তা হবে। এটাই এক ধরনের সংলাপ।’

অন্যদিকে ‘সংলাপের’ বিষয় নাকচ করে দিয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘সংলাপের কথা তো বলা হয়নি। নির্বাচনের আগে যেসব রাজনৈতিক দলের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়েছিলেন তাদেরকে গণভবনে চা-পানির দাওয়াত দেওয়া হবে। যার ইচ্ছে হবে সে চা-পানি খেতে আসবে। তবে আমরা আশা করি সবাই আসবে।’

 

আপনার মতামত লিখুন :

মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে মির্জা ফখরুলের শোক

মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে মির্জা ফখরুলের শোক
অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ

প্রবীণ রাজনীতিবিদ অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) রাত ৭টা ৫০ মিনিটে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপের এই সভাপতি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৭ বছর।

শুক্রবার রাতে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত শোকবার্তা গণমাধ্যমে পাঠানো হয়। বিবৃতিতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও শোক প্রকাশ করেছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শোকবার্তায় বলেন, মোজাফফর আহমদ স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন অনন্য প্রধান সংগঠক ও প্রতিথযশা রাজনীতিক। বর্তমানের দেশের এই দুঃসময়ে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের মতো একজন গুণী রাজনীতিবিদের পৃথিবী থেকে চলে যাওয়াতে দেশে গভীর রাজনৈতিক শুন্যতার সৃষ্টি হলো। এ দেশের সামাজিক অগ্রগতি এবং মানুষের মুক্তির রাজনীতিতে তার অবদান ইতিহাসের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে এক অবিচ্ছেদ্য নাম অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। তার রাজনীতি ও সংগ্রাম এ দেশের মানুষের কাছে এক অবিস্মরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। বৃটিশ শাসনামল থেকে শুরু করে পাকিস্তান আমলের শেষে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন আন্দোলনে তিনি ছিলেন এক আপোষহীন সিপাহ্সালার। তার মৃত্যুতে দেশবাসী একজন প্রাজ্ঞ অভিভাবককে হারালো।

এদিকে বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, কিছুদিন আগে অসুস্থ থাকা অবস্থায় মোজাফফর আহমদকে দেখে এসেছিলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ওই সময় তিনি তার স্বাস্থ্য ও পরিবারের খোঁজ-খবর নিয়েছিলেন। তার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল ইসলাম ব্যথিত।

নারী ও শিশু অধিকার রক্ষায় বিএনপির নতুন সংগঠন

নারী ও শিশু অধিকার রক্ষায় বিএনপির নতুন সংগঠন
বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন

নারী ও শিশু অধিকার রক্ষায় নতুন একটি সংগঠন গঠন করেছে বিএনপি। ‘নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম’ নামে নবগঠিত এ সংগঠনের আহ্বায়ক করা হয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমানকে।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) সকালে রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সেলিমা রহমান বলেন, এটা একটি সামাজিক সংগঠন। বিএনপি গণতান্ত্রিক চেতনায় উদ্বুদ্ধ রাজনৈতিক দল, সামাজিক অধঃপতনের অরাজক পরিস্থিতির সময় নির্বিকার বসে থাকতে পারে না। খুন-ধর্ষণের পৈশাচিক বিকৃতি আমাদের রাষ্ট্র ও সমাজকে গ্রাস করে ফেলেছে। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে রাষ্ট্র ও সমাজের সর্বত্র ঘৃণা ছড়ানোর ফলে ক্ষমতাঘনিষ্ঠ সমাজবিরোধীরা আশকারা পাচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশব্যাপী ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের পরিস্থিতি জনমনে গভীর উৎকণ্ঠার জন্ম দিয়েছে। ধর্ষণ ও ধর্ষণ প্রচেষ্টার কারণে শিশু হত্যার ঘটনা এখন সংবাদপত্রের উল্লেখযোগ্য সংবাদ। অভিভাবকরা মেয়ে ও শিশু সন্তানের নিরাপত্তা নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। আইনের প্রয়োগ নেই বলেই সমাজবিরোধীরা ধর্ষণ-নিপীড়নে উৎসাহিত হচ্ছে। আইনের শাসনের অভাবে মাদকের বিস্তার এবং মূল্যবোধের অবক্ষয়সহ বিভিন্ন কারণে নারী ও শিশু নির্যাতন বাড়ছে। আমরা মনে করি, এই কারণগুলো সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে মোকাবিলা করতে হবে।

নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য জানাতে সেলিমা রহমান বলেন, নারী ও শিশু অধিকার রক্ষার যাবতীয় কার্যক্রমকে শক্তিশালী এবং বেগবান করা; নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করা; এই জনগোষ্ঠীর জীবন সামাজিক-অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে প্রতিবন্ধকতাপূর্ণ, এদের মধ্যে যারা ভিক্টিম হচ্ছে তাদের আইনগত ও চিকিৎসাগত সহায়তা দেয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা; বিশেষভাবে দুস্থ ভিক্টিমদের শারীরিক ও মানসিক চিকিৎসাসহ সম্ভাব্য আইনগত সহায়তা দেওয়া; ভিক্টিম নারী ও শিশুদের মানবাধিকার সমুন্নত রাখা; ‘নারীকে নির্যাতন করা অন্যায়’ এটি পরিবার থেকে শিশুকে শেখানো। এ সংগঠনের লক্ষ্য নারীর বর্তমান অবস্থা থেকে আরও বেশি ক্ষমতায়নে জনসচেতনতা বৃদ্ধির কার্যক্রমকে অগ্রাধিকার দান; নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে সচেতন যুব সমাজকে সম্পৃক্ত করা; যেকোন গণমাধ্যমে আলাপচারিতা ও পারস্পরিক কথাবার্তায় যাতে নারীবিদ্বেষী বক্তব্য প্রচার না পায়, সেক্ষেত্রে কার্যকর উদ্যোগ গড়ে তোলা।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, সব পেশার মানুষ এ সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন। পরে তিনি সংগঠনের সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন।

সংগঠনের উল্লেখযোগ্যরা হলেন—প্রধান উপদেষ্টা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, উপদেষ্টা: খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, জয়নুল আবেদীন, রুহুল কবির রিজভী। সদস্য সচিব: নিপুন রায়।

সদস্য: আজিজুল বারী হেলাল, আমিনুল হক, রাশেদা বেগম হিরা, মীর সরাফত আলী সপু, অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া, আফরোজা আব্বাস, বেবী নাজনীন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র