Alexa

আইন না মেনেই চলছে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম

আইন না মেনেই চলছে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম

ইটভাটাগুলোতে দেদারছে চলছে ঝুঁকিপূর্ণ শিশু শ্রম, ছবি: বার্তা২৪

মো. সাদের হোসেন বুলু, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম

ঢাকার দোহার ও নবাবগঞ্জ উপজেলার অধিকাংশ ইটভাটার মালিকেরা শ্রম আইন না মেনে ইট তৈরি ও ইট টানার কাজে শিশু শ্রমিকদের ব্যবহার করছেন। শিশু শ্রম নিরসনের লক্ষ্যে দেশে বর্তমান সরকার জাতীয় শিশুশ্রম নীতি প্রণয়ন করলেও অধিকাংশ ইটভাটা গুলোতে সেই নীতি মানা হচ্ছে না।

বরং উল্টো বাংলাদেশের প্রচলিত শ্রম আইন ও কারখানা আইন ও শিশু আইন অমান্য করে ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের দোহার ও নবাবগঞ্জের ইটভাটায় প্রায় ৪০০ শিশুকে কাজ করানো হচ্ছে। যাদের বেশির ভাগেরই বয়স ৮ থেকে ১০ বছর। প্রত্যেক ছেলে ও কন্যা শিশু ভোর ৬ টা থেকে বিকাল ৫ পর্যন্ত ভাটাগুলোতে কাজ করে থাকে। গড়ে ১০ ঘণ্টা কাজ করে এসব শিশু ভাটাতেই ঘুমায়। দৈনিক আয় ১০০-১২০ টাকা। এদের লেখাপড়া ও ধর্মীয় শিক্ষার কোন ব্যবস্থা নেই এসব ইটভাটায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/14/1547463398344.gif

সরেজমিনে দোহার ও নবাবগঞ্জের বিভিন্ন ইটভাটায় গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার শিকারীপাড়া এলাকার ডিএনবি ও চুনাকাটিবিল এলাকায় অবস্থিত জেবিসি, সাহেবখালীর জেবিসি, জেপিবি, মাঝিরকান্দা এলাকায় ডিএনবি ও শোল্লা পালিঝাপের এসএসবি ব্রিকস (এএবি) কৈলাইল ইউনিয়নে জেবিসি (এনডিএস) ব্রিকস, এনবিএস, কেএইচবি , জেবিসি (এনডিএস) নামের ব্রিকফিল্ড প্রতিষ্ঠানে শিশুশ্রমের ভয়াবহ চিত্র লক্ষ করা যায়।

দারিদ্র্যের কারণে এসব শিশুরা ইটভাটার কাজে যুক্ত হতে বাধ্য হচ্ছে বলে জানায় স্থানীয় অধিবাসী ও শিশুদের অভিভাবকরা। সুযোগ বুঝে ইটভাটার মালিকেরা এসব শিশুদের স্বল্প বেতনে দিন রাত কাজ করাচ্ছেন। আর এসব শিশুদের বেশিরভাগ সিলেট, সাতক্ষিরা, সিরাজগঞ্জ ও রাজবাড়ি এলাকা থেকে কথিত দালাল চক্র নিয়ে এসে বার্ষিক চুক্তিতে ইটভাটার মতো কায়িক শ্রমের প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করছে।

বাংলাদেশ সরকার জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ এবং ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম প্রতিরোধ ও নিরসনে কাজ করলেও, মালিকরা এ দেশের বহু দারিদ্র শিশুকে বিভিন্ন কায়িক ও ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমে নিয়োজিত করার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক বলে মনে করেন সচেতন নাগরিকগণ। তাদের দাবি ইটভাটাসহ যেসব প্রতিষ্ঠান শিশুদের নিয়োগ করছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, 'বিষয়টি খুবই দুঃখজনক, তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'

জাতীয় এর আরও খবর