Alexa

জার্মানিতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

জার্মানিতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

ছবি: সংগৃহীত

গত ১৩ জানুয়ারি ২০১৯ (রোববার) জার্মানির মাইন্জ শহরের একটি রেস্টুরেন্টের অডিটোরিয়মে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে জার্মান বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন। অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন ইউনুস আলী খান (সভাপতি বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন) এবং আসমা খান সীমা।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের পর সদ্য প্রয়াত জননেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সকল সদস্য এবং সকল শহীদদের উদ্দেশ্যে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

উল্লেখ্য ফাউন্ডেশনের সভাপতি ইউনুস আলী খান গত ১১ জানুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার মাইন্জ শহরে একটি মসজিদে প্রায়াত নেতা সৈয়দ আশরাফের আত্মার শান্তি কামনা করে একটি দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেন।

নিরবতা পালন শেষে জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে সাংবাদিক হোসাইন আব্দুল হাই-এর পরিচালনায় মূল আলোচনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। বক্তারা বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস ও আদর্শ নিয়ে আলোচনা করেন।

ফাউন্ডেশনের সভাপতি ইউনুস আলী খান তাঁর বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর নীতি আদর্শের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে এই সংগঠনের সকলকে একতাবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান  জানান। বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে আসমা খান সীমা, ফউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা মাহাবুবুল হক, উপদেষ্টা বীর মুক্তিযাদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতা কে এম নুরুল ইসলাম, সিনিয়র সহ সভাপতি মনিরুল ইসলাম, জার্মান আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক হাকীম টিট, ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি বদরুল ইসলাম, সিনিয়র সহ সভাপতি মনিরুল আলম, সহ সভাপতি শেখ মতিন, জার্মান আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জিল্লুর রহমান, জার্মান আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান ভুঁইয়া, জার্মান-বাংলা প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা খান লিটন, বীর মুক্তিযাদ্ধা এম এ খালেক, জার্মান আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্বাস চৌধুরী এবং জার্মান গ্রিন দলের নেতা হামিদুল খান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও বাংলার মানুষ প্রকৃত স্বাধীনতার স্বাদ পেয়েছিল ১০ জানুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হত না।

বক্তারা বাংলাদেশের জনগনের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে নিরঙ্কুশভাবে বিজয়ী করার জন্য। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ নতুন মন্ত্রিসভার সকলের প্রতি অভিনন্দন জানান। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড.মোমেনকে পররাষ্ট্র মন্ত্রী পদে মনোনীত করায়।

ফউন্ডেশনের সভাপতি ইউনুস আলী খান বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে আহ্বান জানান। বিশেষ এই অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন জার্মান শাখার কার্যক্রম আরও বিস্তৃত ও প্রসার ঘটানোর লক্ষ্যে সাংগঠনিক ও সদস্য পদে কয়েকজন যোগ্য ব্যক্তিকে নতুন নিয়োগ প্রদান করা হয়। ব্যক্তিরা হলেন যথাক্রমে- সাংবাদিক হাবিব উল্লাহ্ আল বাহার, মোহাম্মদ নাবী, খান লিটন, এম এ খালেক, শেফালী বানু, নাইমুল হক প্রমুখ।

আলোচনা পর্ব শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়। সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী জালাল আবেদীন, নাইমুল হক ও তার সহধর্মিনী লিমা এবং ফাউন্ডেশনের সাংস্কৃতিক সম্পাদিকা কণা ইসলাম। আবৃতি করেন সাংবাদিক হোসাইন আব্দুল হাই।

আপনার মতামত লিখুন :