বইমেলায় নজর কেড়েছে বিদ্যানন্দের 'বিক্রেতাবিহীন স্টল'

বইমেলার বিক্রেতাবিহীন স্টলে বই কিনছেন এক ক্রেতা, ছবি: বার্তা২৪

রকিব কামাল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

নতুন বইয়ের মলাটের ঘ্রাণ আর প্রকাশকদের পদচারণায় ১০ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়েছিল চট্টগ্রাম বইমেলা। তবে প্রথম কয়েকদিন ক্রেতা ও দর্শক সমাগম কম থাকলেও উৎসবের রঙে প্রাণ ফেরে বইমেলার। প্রকৃতির পালাবদলে বসন্তের সেই উৎসবের রঙ নতুন উন্মাদনা এনে দেয় বইপ্রেমীদের মাঝে।

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার পর থেকে বইমেলার স্টলে বাসন্তী সাজরবে ভিড় জমে যায় তরুণ-তরুণীদের।

সাংস্কৃতিক মঞ্চে চলে বসন্তের আগমনের বার্তা। পরিবারকে সময় দিতে শিশুদের নিয়ে বইমেলায় আসেন নানান বয়সের বইপ্রেমী। বইমেলার একটি স্টলের সামনে গিয়ে থমকে যেতে হচ্ছে অনেককে। স্টলে চেয়ার থাকলেও, দেখা নেই দোকানির। বিদ্যানন্দ প্রকাশনীর সেই স্টলে বড় হরফের লেখা, 'বিক্রেতাবিহীন স্টল'। কোনো বিক্রেতারা ছাড়াই সে স্টলের পছন্দের বইটি ক্রয় করে মূল্যসহ নামযুক্ত করে রেজিস্ট্রার খাতায় স্বাক্ষর করছেন ক্রেতারা।

স্টলের ডান পাশে লাল সবুজের জাতীয় পতাকায় একটি ক্ষুধার্ত শিশুকে ভাত খাওয়ার দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। তার নিচে লেখা, 'সেরা সম্পর্কগুলো খাবার শেয়ার থেকেই'। এর বাম পাশে প্রতীকী দুটি ছবিতে একটি ছেলে ও মেয়ের হাতে প্ল্যাকার্ড লেখা 'এ স্টলের অর্থেই আমাদের খাবার হবে, অনুগ্রহ করে বই কেনার অর্থ হিসাব করে বক্সে জমা দিন'।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে বইমেলার প্রবেশ পথে দেখা মিলবে স্টলটির। 'বিক্রেতাবিহীন' এমন স্টলে এসে অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন, কেউবা ঘুরে দেখার পর পছন্দের বই কিনছেন। অনেকেই আগ্রহের বসে ক্রেতাকে দোকানি মনে করে ভড়কে যান।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550120063499.jpg

নগরীর এনায়েত বাজার মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ও লেখক এলিজাবেথ আরিফা বোনসহ এসেছিলেন মেলায়। প্রবেশমুখে এমন স্টল দেখে থমকে যান তিনি। অনেক সময় অপেক্ষা করে দুটি বই কিনে রেজিস্ট্রার খাতায় স্বাক্ষর করেন। তার চোখে-মুখে উচ্ছ্বাস, প্রাণচাঞ্চল্যে ভরপুর।

বার্তা২৪.কম-কে তিনি বলেন, 'খুবই ভালো লাগছে, যা বলে বুঝানো যাবে না। নিঃসন্দেহ প্রশংসনীয় উদ্যোগ। লেখক-প্রকাশকদের মিলন মেলায় এমন কার্যক্রম প্রাণবন্ত করবে সবাইকে।'

এক পর্যায়ে বিক্রেতাবিহীন স্টলের স্বেচ্ছাসেবক ওমর ফারুকের সাথে কথা হয়। তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'ছোটবেলায় খাবারের কষ্টে নিয়ে বেড়ে ওঠা কিশোর কুমার অবহেলিত, সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের স্বার্থে গড়ে তোলেন বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। এর সহায়তায় তিনি অনাথ ও পথশিশুদের সহায়তা ছাড়াও, এক টাকায় আইনি সহায়তা, এক টাকায় চিকিৎসা সেবা, পরিজাত অনাথআলয় ও বৃদ্ধাশ্রম, উচ্চ শিক্ষায় সহায়তা, বিনামূল্য বিশ্ববিদ্যালয় কোচিং করানোর ব্যবস্থা করা হয়।'

তিনি আরও বলেন, 'এছাড়াও উদীয়মান ও ভালো লেখকদের বই প্রকাশে আর্থিক সহায়তা করা হয়। এবারের বইমেলার বই বিক্রির অর্থ পৌঁছে যাবে সুবিধা বঞ্চিতদের দ্বারে। তাই বিক্রেতা ছাড়াই ক্রেতাদের এমন উদ্যোগে শামিল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিদ্যানন্দ স্বেচ্ছাসেবকরা।'

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ, কক্সবাজার, রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহে এই ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম চলছে।

সংগঠনটির চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি রানা আহমেদ বলেন, ‘মেলায় বইপ্রেমীদের আগ্রহ ও দর্শণার্থীদের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু বিদ্যানন্দ প্রকাশনী। এবার বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের পক্ষ ২২টি বই প্রকাশিত হয়েছে। ক্রেতারা ভালোবেসে স্টল থেকে বই কিনে, টাকা দিয়ে যান।

কথা বলতে বলতে ক্রেতাদের ভিড় জমে যায় স্টলে। ইস্পাহানী প্রাইমারি স্কুল অ্যান্ড কলেজের হৃদিতা রয় দুটি বই কিনলেন। তার সাথে নতুন বই নিতে ভিড় জমান অনেকে।

জাতীয় এর আরও খবর

উপহার হিসেবে বই দিন

বিয়ে, জন্মদিন কিংবা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে উপহার হিসেবে বই দিতে অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ময়মনসিংহের বিভাগী...