Alexa

স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় চাচাতো ভাইকে হত্যা

স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় চাচাতো ভাইকে হত্যা

বরিশালে ইমরান হোসেন হাওলাদার হত্যা মামলার প্রধান আসামি মো. আরিফুল ইসলাম, ছবি: বার্তা২৪

বরিশালের উজিরপুরে ইমরান হোসেন হাওলাদার (২২) নামে এক কলেজছাত্রকে হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা এবং নিহত ইমরানের মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেফতার হওয়া মো. আরিফুল ইসলাম (২৭) উপজেলার ৩নং জল্লা ইউনিয়নের মুন্সির তালুক এলাকার মো. নাসির উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে। সম্পর্কে সে নিহতের চাচাতো ভাই।

বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নগরীর পুলিশ লাইন্সের ইন-সার্ভিস সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম।

পুলিশ সুপার বলেন, আটক আসামি আরিফুল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তার স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করার কারণেই ইমরানকে সে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে আরিফ।

জিজ্ঞাসাবাদে আরিফ জানান, মৃত ইমরান দীর্ঘদিন ধরে তার স্ত্রী মোসা. রাবেয়া বেগমকে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত ও হয়রানি করে আসছিল। তার স্ত্রীর ছবি দিয়ে অশ্লীল ছবি বানিয়ে তার সাথে অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করছিল। বিষয়টি স্ত্রী রাবেয়া তার স্বামী আরিফকে জানায়। এ নিয়ে চাচাতো ভাই ইমরানকে অনেকবার সতর্ক করে আরিফ।

আরিফ জানান, ঘটনার দিন গত ৮ ফেব্রুয়ারি রাত ১০টার দিকে স্ত্রী রাবেয়া ও ইমরানকে ঘরের পেছনে দেখতে পান আরিফ। তখন ইমরানের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন চেক করে ওই অশ্লিল ছবি পান। এ সময় আরিফ ইমরানকে ওই ছবি মুছে ফেলতে (ডিলেট) বলে এবং একান্তে কথা বলার জন্য বাড়ির উত্তর-পূর্ব কোনে পুকুর পাড়ে অনবাদি জমিতে গিয়ে দু’জন বসে।

তিনি জানান, অশ্লীল ছবি মুছে ফেলা নিয়ে ইমরান গড়িমসি করলে আরিফ উত্তেজিত হয়ে সাথে থাকা দা দিয়ে ইমরানের ঘাড়ে ও গলায় এলোপাতাড়ি কোপ দেয়। ফলে ইমরান মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তার মৃত্যু নিশ্চিত হলে আরিফ ঘরে ফিরে যায়। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা, পরনের গেঞ্জি ও ট্রাউজার রাতেই ধুয়ে ফেলেন। আর ইমরানের ব্যবহৃত মোবাইল পাশ্ববর্তী মশান বাজারের ব্রীজের ঢালে ফেলে দেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550137398214.jpg

আরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মাদ আব্দুর রকিব (পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত), গৌরনদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবদুর রব হাওলাদার, উজিরপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) মো. আকরামুল হাসান, বরিশাল সদর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত) আবুল বাশার প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে বাড়ির পাশ থেকে ইমরান হোসেন হাওলাদারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে নিহতের বাবা মো. ছরোয়ার হোসেন হাওলাদার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে উজিরপুর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। নিহত ইমরান ওটরা ইউনিয়নের ভবানীপুর হাজী তাহের উদ্দিন ডিগ্রী কলেজের বিএ (পাস) শেষ বর্ষের ছাত্র ছিল।

আপনার মতামত লিখুন :