Alexa

রংপুরে তিনজন ছাড়া বাকি প্রার্থীরা টেনশনে

রংপুরে তিনজন ছাড়া বাকি প্রার্থীরা টেনশনে

ছবি: বার্তা২৪.কম

ফরহাদুজ্জামান ফারুক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, রংপুর, বার্তা২৪.কম

রাত পোহালেই রংপুরে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

শনিবার (১৬ মার্চ) প্রচার-প্রচারণার শেষ দিনে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ভোটারদের কাছে ছুটে বেড়িয়েছেন প্রার্থীরা। শেষবারের মতো ভোটারদের কাছে গিয়ে প্রতিশ্রুতি তুলে ধরার সঙ্গে ভোট দেয়ার অনুরোধ করেছেন তারা।

কেউ কেউ ভোটের মাঠে চেনা শত্রুকেও বুকে টেনে নিয়েছেন। হাসি মুখে চেয়েছেন দোয়া আর নিজ প্রতীকে একটি করে ভোট। এমন সরব প্রচারণার শেষ দিনে সাধারণ ভোটারসহ প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকরাও ছিলেন বেশ ফুরফুরে মেজাজে।

আগামীকাল সোমবার (১৮ মার্চ) রংপুরের পীরগঞ্জ, বদরগঞ্জ, তারাগঞ্জ, পীরগাছা, কাউনিয়া ও গঙ্গাচড়া উপজেলাতে দ্বিতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এই ছয় উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৬০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে তিনজন প্রার্থী ছাড়া বাকি সবাই আছেন জয় পরাজয়ের অংক নিয়ে ব্যস্ত।

ইতোমধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত গঙ্গাচড়ার রুহুল আমিন ও কাউনিয়া উপজেলার আনোয়ারুল ইসলাম মায়া বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া পীরগাছা উপজেলাতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় নিশ্চিত হয়েছে তানজিলা আফরোজের। এ কারণে ছয় উপজেলার মধ্যে চেয়ারম্যান পদে চারটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিতব্য পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বেশির ভাগই পুরনো মুখ। তবে ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে নতুনদের আধিক্য।

বদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন আফরোজা বেগম। পেশায় সাংবাদিক হলেও স্থানীয়দের কাছে একজন সফল নারী সংগঠক হিসেবে তার রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। আফরোজা বেগম বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করছি। এই পেশার মাধ্যমে সমাজ ও দেশের জন্য কিছু করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। পাশাপাশি নারীদের জন্য সব সময় মিছিল, মিটিং, সভা, সমাবেশেও থাকছি। নারীদের জন্যই উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। আমি বিজয়ী হলে নারীদের জন্যই কাজ করব।’

পীরগাছা উপজেলার আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ মিলন। বয়সে তরুণ এই প্রার্থী জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তিনি জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু হলে বিপুল ভোটে নৌকা প্রতীকের জয় হবে। জনগণও চাইছে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে।’

এদিকে সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রংপুরে দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ছয়টি উপজেলায় ৬০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে পীরগঞ্জ উপজেলাতে ১৩, বদরগঞ্জে ১০, তারাগঞ্জে ১০, পীরগাছা উপজেলায় ৬, কাউনিয়াতে ৮ এবং গঙ্গাচড়ায় ১৮ জন প্রার্থী রয়েছে। ছয়টি উপজেলার ৪৯৩টি ভোট কেন্দ্রে ইতোমধ্যে নির্বাচনী সরঞ্জামাদি পাঠানো হয়েছে।

রংপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং অফিসার সৈয়দ এনামুল কবির জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন করতে ইতোমধ্যে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। আজ সকাল থেকে নির্বাচনী সরঞ্জামাদি কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে।

জেলা এর আরও খবর