Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

‘এক ঘণ্টায় বিজিএমইএ ভবন গুড়িয়ে দেওয়া সম্ভব’

‘এক ঘণ্টায় বিজিএমইএ ভবন গুড়িয়ে দেওয়া সম্ভব’
সচিবালয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, ছবি: বার্তা২৪
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

হাতিরঝিলে অবস্থিত বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে সেনাবাহিনী নয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং রাজউকই যথেষ্ট বলে জানিয়েছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেছেন, 'আমাদের দেশেই এমন প্রযুক্তি আছে এক ঘণ্টার ভেতরে বিজিএমইএ ভবনটি ভেঙে স্তূপ আকারে জায়গাতে বসে পড়বে'।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে বিজিএমইএ ভবন ভাঙার সবশেষ প্রক্রিয়া সম্পর্কে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, 'অনেক ব্যয়ে অনেক পরিকল্পনার ভেতর দৃষ্টিনন্দন হাতিরঝিল করা হয়েছে। কিন্তু সেই সুন্দর ঝিলের মাঝখানে বিষফোঁড়ার মতো বিজিএমইএ ভবন করা হয়েছে। নির্মাণের সময় সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি। ফলে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে ভবনটি গড়ে উঠেছে। আর সেই ব্যর্থতার দায় আমাদের বিভিন্ন পর্যায়ে অনেকেরই রয়েছে। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী অবৈধ বিজিএমইএ ভবন ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এরইমধ্যে ভাঙার কার্যক্রম গ্রহণ করেছি।'

মন্ত্রী বলেন, 'এরইমধ্যে ভবনটি আমাদের দখলে নিয়েছি। ভবনে অন্য কারো প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছি। ভবনের প্রয়োজনীয় সেবা সংযোগের মধ্যে একেবারে প্রয়োজন ছাড়া সব সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছি। ভবনটি ভাঙার জন্য পরিবেশ তৈরি করতে সময় লাগবে। ভবনটি গুড়িয়ে দেবার পরে যেখানে পড়বে তার আশপাশে যাতে দুর্ঘটনার মুখোমুখি না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি অর্থাৎ বিদ্যুতের সংযোগ অনেক দূর থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। একইভাবে গ্যাস পানির লাইন সংযোগস্থল থেকে বিচ্ছিন্ন করা হবে।'

তিনি বলেন, 'অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে এবারের বিজ্ঞান সম্মত, পরিবেশ সম্মতভাবে ভবন ভাঙার প্রস্তুতি নিয়েছি। যাতে কোন ভাবেই প্রাণহানি বা ক্ষতির সম্মুখীন না হই, সেভাবেই এগোচ্ছি। এই ভবন ভাঙতে ইতোমধ্যে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছি। যে সকল প্রতিষ্ঠানের এ যাবতীয় ইমারত ভাঙার অভিজ্ঞতা আছে তাদের তাদের ২৪ এপ্রিলের মধ্যে কোটেশন দাখিল করার জন্য আহ্বান করেছি। আগামী ২৫ এপ্রিল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব, কোন সংস্থা উপযুক্ত যাদের দিয়ে ভাঙা সম্ভব।'

তিনি বলেন, 'আমরা যদি উপযুক্ত সংস্থা পাই তাহলে তাদের সমন্বয়ে, আর যদি উপযুক্ত সংস্থা না পাওয়া যায় তাহলে আধুনিক নির্মাণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে রাজউকের পক্ষ থেকে ভবনটা উচ্ছেদের জন্য যে প্রক্রিয়া দরকার সেই প্রক্রিয়ায় যাব। যেহেতু এ ধরনের ইমারত ভাঙতে হলে অন্যান্য আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের সুযোগ দেওয়ার বিধান রয়েছে। তাই আমরা সুযোগটি দেব। দরপত্রের পর উপযুক্ত প্রতিষ্ঠান না পাওয়া গেলে আমরাই ভাঙব।'

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ভবনটি বিজিএমইএ ভবন কর্তৃপক্ষকেই ভাঙার দায়িত্ব নেওয়ার কথা, তবে মন্ত্রী বলেছেন, 'ভাঙার দায় দায়িত্ব আমাদেরেই নিতে হবে। কারণ আমরা চাই রাষ্ট্রের চমৎকার একটি স্থাপনার মাঝখানে এধরনের অবৈধ স্থাপনা টিকে না থাকুক। একই সঙ্গে দেশবাসী জানুক যে যেখানে বেআইনি ইমারত থাকবে বা স্থাপনা নির্মাণ করবেন তাদের সকলকে আইনের আওতায় আনা হবে।'

ভবন ভাঙতে ডিনামাইট ব্যবহার প্রসঙ্গে বলেন, 'কোন ভাবেই ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে না। আধুনিক নির্মাণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভবনটি ভেঙে ফেলব। সে ক্ষেত্রে নানা রকম পরিকল্পনা রয়েছে। যারা টেন্ডার দাখিল করবে তাদের মধ্যে দেখব সেই সংস্থার আধুনিক প্রযুক্তি আছে কি না? যদি না থাকে আমরা বাইরের প্রযুক্তি সমৃদ্ধ প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে আসব। আমাদের সঙ্গে এরইমধ্যে অভিজ্ঞ নির্মাণ প্রযুক্তিতে যারা দক্ষ তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তবে আমরা অগ্রাধিকার দিতে চাই দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে, যদি সেরকম না পাই সেক্ষেত্রে আমরা বিদেশি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলব। বিদেশি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ রয়েছে। কোনভাবেই ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে না কোনভাবেই মানুষের জীবন এবং মালে ঝুঁকিপূর্ণ পদ্ধতিতে এই ভবন ভাঙা হবে না।'

সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করা হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, 'আমাদের সিভিল প্রশাসনই যথেষ্ট। এ জাতীয় কাজ সম্পন্ন করার জন্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং রাজউকই যথেষ্ট। এলাকার নিরাপত্তা এবং অন্যান্য বিষয়ে আইন প্রায়োগকারী সংস্থার সাহায্যে নিতে পারি। ইমরাত ভাঙতে বাইরের অন্য কোন সংস্থার প্রয়োজন হবে না।'

তিনি আরও বলেন, 'যে পদ্ধতির কথা গণমাধ্যমে আসছে সবটা সঠিকভাবে আসেনি। ডিনামাইটের প্রচলিত অর্থ বোমা হলেও এটা আসলে একটা নির্মাণ পদ্ধতি। আমাদের দেশেই এমন সব পদ্ধতি আছে ভবনটি ভাঙতে বেশি সময় লাগবে না। একঘণ্টার ভেতরে ভবনটি স্তূপ আকারে জায়গাতেই বসে পড়বে।'

আপনার মতামত লিখুন :

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার বেড়েছে

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার বেড়েছে
সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদের গত তিন মাসে (এপ্রিল থেকে জুন) মন্ত্রিসভার বৈঠকে নেওয়া সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার আগের তুলনায় বেড়েছে।

সোমবার (২৬ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

গত তিন মাসে মন্ত্রিসভার বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ৮১ দশমিক ৯৪ শতাংশ, তার আগের তিন মাস জানুয়ারি থেকে মার্চে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ছিল ৬৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ। গত তিন মাসে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার আগের তিন মাসের তুলনায় ১৫ দশমিক ২৭ শতাংশ বেশি।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়েছে সাতটি, সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ৭২টি, সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হয়েছে ৫৯টি (৮১.৯৪ শতাংশ), বাস্তবায়নাধীন সিদ্ধান্তের সংখ্যা ছিল ১৩টি (১৮.০৬ শতাংশ)।

তিনি আরও জানান, উল্লেখিত সময়ে নীতি বা কর্মকৌশল নেওয়া হয়েছিল একটি, সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছিল একটি ও সংসদে আইন পাস হয়েছিল ৬টি।

বিশ্বজুড়ে রোহিঙ্গারা গণহত্যার বিচার চাইছে

বিশ্বজুড়ে রোহিঙ্গারা গণহত্যার বিচার চাইছে
কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের দু’বছর পূর্তি উপলক্ষে স্বজনদের গণহত্যার বিচার চেয়েছে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রোহিঙ্গারা।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী কর্তৃক সংঘটিত নৃশংসতার বিচার নিশ্চিত করার জন্য দেশটি থেকে নিপীড়িত রোহিঙ্গারা বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে এ বিচার আহ্বান করে।

ডাচ-ভিত্তিক রোহিঙ্গা গোষ্ঠী ইইউ রোহিঙ্গা কাউন্সিলরকে টুইট করে মিয়ানমারের গণহত্যার অপরাধীদের বিচারের জন্য জাতিসংঘ, ইইউ, মার্কিন, ওআইসি (ইসলামী সহযোগী সংস্থা) এবং দক্ষিণ পূর্ব এশীয় জাতিসংঘের সমর্থন চায়।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নৃশংসতা বন্ধে কাজ না করার অভিযোগ তুলে তারা বলেছে, বিশ্ব মিয়ানমারে গণহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া লোকদের অধিকার অর্জনে নীরব ভূমিকা পালন করছে। তবুও রোহিঙ্গারা তাদের অধিকার পেতে সকলের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। কিন্তু বিশ্ব অন্যদিকে চোখ ফিরিয়ে রেখেছে।

নির্বাসিত রোহিঙ্গা কর্মী রো জা জা নইং টুইট করে বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা গণহত্যা চালিয়ে যাওয়া ব্যক্তিরা এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছেন। দুঃখের বিষয় হলো মিয়ানমারে এই জালিম মানুষদের সংখ্যা এখন অনেক বেশি।

আরও পড়ুন: রাখাইনে বিদ্রোহী দমন নামে শিশু হত্যায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী

আইরিশ-ভিত্তিক রোহিঙ্গা অ্যাডভোকেসি গ্রুপ স্টেটলেস রোহিঙ্গা এবং রোহিঙ্গা অ্যাকশন আয়ারল্যান্ডও রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারের দাবিতে টুইট করেছে।

রোহিঙ্গা অ্যাকশন আয়ারল্যান্ড রোহিঙ্গাকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মিয়ানমারের একটি অনন্য জাতিগোষ্ঠী বলে অভিহিত করেছে। তারা বলেছে, রোহিঙ্গা মূলত মুসলিম জাতিগোষ্ঠী, যারা বহু শতাব্দী ধরে স্বাধীন আরাকান রাজ্যের বাসিন্দা ছিল। তাদের আলাদা ভাষা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং বিশ্বাস বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে একটি অনন্য সংখ্যালঘু জাতী হিসেবে গড়ে তোলে।

ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশনের প্রধান মং জার্নি মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে দায়মুক্তির রায় ঘোষণা করার জন্য দেশটির প্রধান নেতাকে অপরাধী বলে অভিহিত করেছেন। তিনি টুইট করে জানান, রোহিঙ্গা গণহত্যা স্মৃতি দিবসের দ্বিতীয় বার্ষিকীতে একটি নোবেলজয়ী ব্যাক্তি অং সান সু চি’কে নুরেমবার্গ-যোগ্য অপরাধী হিসেবে দাঁড় করানো উচিৎ।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ভিত্তিক ফরটিফাই রাইটস রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রাখাইন রাজ্যে তাদের অপরাধের জন্য মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর তাৎক্ষণিক জবাবদিহিতার আহ্বান জানিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গা পুরুষ, মহিলা ও শিশুদের বিরুদ্ধে গণহত্যা, গণধর্ষণ ও অন্যান্য নির্যাতন করেছিল।

গত সপ্তাহে প্রায়ি ৩ হাজার ৫০০ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের ব্যর্থ প্রচেষ্টা উল্লেখ করে গবেষক আজিম ইব্রাহিম টুইট করেছেন, ‘কোনো রোহিঙ্গা স্বেচ্ছায় মিয়ানমারে ফিরে যেতে চায়নি। কারণ, তারা তাদের ভাগ্য নিয়ে কোনো আলোচনা বা সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। জাতিসংঘে তাদের নিয়ে যে চিন্তাভাবনা ও কাজ করেছে তাতেও তারা কোনো আশা রাখতে পারেনি।’

গণহত্যার বেঁচে থাকা এবং ব্রিটিশ ভিত্তিক বার্মিজ রোহিঙ্গা সংস্থার প্রধান তুন খিন ২০১৭ সাল থেকে দুই বছরের রোহিঙ্গাদের কষ্টের জীবন নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে টুইটারে লিখেছেন, সংকট দেখা দেওয়ার শেষ নেই।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র