Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেন ফেরদৌস

ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেন ফেরদৌস
ফেরদৌস আহমেদ
বিনোদন ডেস্ক


  • Font increase
  • Font Decrease

অভিনয়ের কাজে ওয়ার্কিং ভিসা নিয়ে ভারতে গিয়ে দেশটির চলমান লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রচারণায় অংশগ্রহণের অভিযোগে বাংলাদেশি অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদের ভিসা বাতিল করা হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশনের নির্দেশের পর মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দেশে ফিরেছেন ফেরদৌস। এই ঘটনায় দুই বাংলায় তুমুল সমলোচনার মুখে পড়েছেন এই জনপ্রিয় অভিনেতা। বিষয়টি নিয়ে ক’দিন চুপ থাকলেও এবার মুখ খুললেন তিনি। চাইলেন ক্ষমাও।

ক্ষমা চেয়ে ফেরদৌস বলেন- আমি চিত্রনায়ক ফেরদৌস। অভিনয় শিল্প আমার একমাত্র নেশা ও পেশা। অভিনয় শিল্পের মাধ্যমে বাংলা ভাষাভাষী সকলের মধ্যে মেলবন্ধন তৈরিতে সর্বদা কাজ করার চেষ্টা করেছি। আমার ভাবতে ভাল লাগে আমি দুই বাংলায় সমানভাবে জনপ্রিয়। দুই বঙ্গের মানুষের সংস্কৃতি ও জীবনাচারে অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। আবার ভারত বহু কৃষ্টি-কালচারের সমন্বয়ে সমৃদ্ধ একটি দেশ। ১৯৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রতিবেশী দেশ হিসাবে ভারতের অবদান আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করি। পাশাপাশি ভারতের জনগণের ত্যাগ-তিতিক্ষা আমাদের চিরঋণী করে রেখেছে। পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাথে আমার সম্পর্ক বহুদিনের। এখানের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেক শিল্পী, সাহিত্যিক আমার বন্ধু। যাদের সাথে আমি সবসময়ে হৃদ্যতা অনুভব করি। এজন্য বিভিন্ন সময় কারণে অকারণে আমি এখানে চলে আসি।

ভারতে জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশের এই নির্বাচন পূর্বের মতো সারা বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এই সময়ে আমি ভারতে অবস্থান করছিলাম। সকলের মতো আমারও আগ্রহের জায়াগায় ছিল এই নির্বাচন। ফলে ভাবাবাগে তাড়িত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী প্রচারণায় আমি আমার সহকর্মীদের সাথে অংশগ্রহণ করি। এটা পূর্বপরিকল্পনার কোন অংশ ছিল না। শুধুমাত্র আবেগের বশবর্তী হয়ে আমি অংশগ্রহণ করেছি। কারো প্রতি বিশেষ আনুগত্য প্রদর্শন বা কোন বিশেষ দলের প্রচারণার লক্ষ্যে নয়, আবার কারো প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করাও আমার উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সকল রাজনৈতিক দল এবং নেতার প্রতি আমার সম্মান রয়েছে। আমি ভারতের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।

আমি আগেও বলেছি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের প্রতি আমার ভালোবাসা অগাধ। সেই ভালোবাসা আমাকে আবেগ তাড়িত করেছে। আমি বুঝতে পেরেছি, আবেগের বশবর্তী হয়ে সহকর্মীদের সাথে এই নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করাটা আমার ভুল ছিল। যেটা থেকে অনেক ভ্রান্তি তৈরি হয়েছে এবং অনেকে ভুলভাবে নিয়েছেন। আমি স্বাধীন বাংলাদেশের একজন নাগরিক। একটি স্বধীন দেশের নাগরিক হিসেবে অন্য একটি দেশের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ কোনভাবেই ঔচিত্য নয়। আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি ক্ষমা প্রর্থনা করছি। আশা করি, সংশ্লিষ্ট সকলে আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

আপনার মতামত লিখুন :

জয়া-নুসরাত পারলেও শুভ কেন পারলেন না?

জয়া-নুসরাত পারলেও শুভ কেন পারলেন না?
জয়া, শুভ ও ফারিয়া, ছবি: সংগৃহীত

কলকাতার ‌‌‘আহা রে’ সিনেমায় কাজ করার মাধ্যমে প্রথম ওপার বাংলায় কাজ শুরু করেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়ক আরিফিন শুভ। এরপর সুযোগ পেয়েছিলেন বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৃষ্ট কালজয়ী ‘অপু’ চরিত্রে অভিনয়ের। বেশ ঘটা আর কিছুটা জল ঘোলা করে সেই ঘোষণাও দিয়েছিল পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্র।

গতকাল (২৫ আগস্ট) রাতে সেই ‘অভিযাত্রিক’ সিনেমার মহরত অনুষ্ঠান হয়ে গেল। তবে এর আগেই জানা গিয়েছিল সিনেমাটিতে আরিফিন শুভর পরিবর্তে ‘অপু’ হচ্ছেন কলকাতার অর্জুন চক্রবর্তী। এই চরিত্রের জন্য পরিচালকের প্রথম পছন্দ আরিফিন শুভ হলেও ভিসা জটিলতায় নাকি শুভ এই চরিত্রে কাজ করতে পারলেন না শুরু থেকে এমন বক্তব্য ছিল পরিচালকের।

আরও পড়ুন: আরিফিন শুভর পরিবর্তে ‘অপু’ হচ্ছেন অর্জুন

সে সময় পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্র গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন,তিনি শুভকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দেওয়ার জন্য সরকারের উচ্চ মহলেও কথা বলেছেন কিন্তু সব চেষ্টা বিফলে যাওয়ায় শুভকে বাদ দিতে হয়েছে। শুভর ভিসা জটিলতার জন্য দায়ী করা হয়েছিল ভারতের লোকসভা নির্বাচনে বাংলাদেশি চিত্রনায়ক ফেরদৌসের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়াকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566805943980.jpg

তবে ফেরদৌসের সেই ঘটনার পরও কলকাতার একাধিক সিনেমায় কাজ করেছেন বাংলাদেশের জয়া আহসান ও নুসরাত ফারিয়া। তাদের ভিসা বিষয়ক কোন জটিলতা দেখা যায়নি। তাহলে শুভর ক্ষেত্রে কেন এত জটিলতা দেখা দিল? এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566805974994.jpg

এই প্রশ্নের উত্তর জানাতে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম যোগাযোগ করে ‘অভিযাত্রিক’ সিনেমার কলকাতার পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্রের সঙ্গে। তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বলেন,‘জয়া বা নুসরাত এখানে কি ভিসায় কাজ করে আমাকে অফিসিয়ালি নিশ্চিত হয়ে জানাবেন। আমি যতদূর জানি জয়ার ওয়ার্ক পারমিট ভিসা আছে। শুভকে কেন ভিসা দেওয়া হলো না এই বিষয়ে আমার কোন আইডিয়া নেই।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566805916895.jpg

তবে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমের কাছে খবর শুভর কলকাতায় কাজ করার অন্যতম মাধ্যম ছিল চিত্রনায়িকা ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। ইদানিং নাকি শুভর সঙ্গে ঋতুপর্ণার সম্পর্ক খুব একটা ভাল যাচ্ছে না। সেকারণে কি বাদ পড়েছেন শুভ এমন প্রশ্নে শুভ্রজিৎ মিত্র বলেন, ‘আমাদের সিনেমায় কাজ করার জন্য শুভ ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাইনি সেকারণে একসঙ্গে কাজ করা হয়নি আমাদের। এর বাইরে আমি আর কিছু জানি না। আর আমি আপনার এই ব্যাপারটি নিয়ে মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।’

অভিনেতা বাবর আর নেই

অভিনেতা বাবর আর নেই
খলিলুর রহমান বাবর , ছবি: সংগৃহীত

ঢাকাই সিনেমার খল অভিনেতা, পরিচালক ও প্রযোজক খলিলুর রহমান বাবর আজ (২৬ আগস্ট) সকাল ৯টা ১০ মিনিটে স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন অভিনেতার ছোট ছেলে রিয়াদুর রহমান।

জানা গেছে,সম্প্রতি ব্রেন স্ট্রোক করলে বাবরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ছাড়া দীর্ঘদিন ধরেই গ্যাংরিন (পচন রোগ) সমস্যায় ভুগছিলেন। এফডিসিতে বাদ যোহর তার জানাজা শেষে কলাবাগানের বাসায় নেওয়া হবে। তারপর তাকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হবে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566799892472.jpg
অসুস্থ অবস্থায় তাকে দেখতে গিয়েছিলেন শিল্পী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান।

 

‘বাংলার মুখ’ সিনেমার মাধ্যমে নায়ক হিসেবে ঢাকাই সিনেমায় পা রাখেন বাবর। এরপর রাজ্জাক প্রযোজিত ও জহিরুল হক পরিচালিত ‘রংবাজ’ সিনেমার মাধ্যমে খল অভিনেতা হিসাবে তার যাত্রা শুরু। মনোয়ার হোসেন ডিপজলের ‘তের গুণ্ডা এক পাণ্ডা’ সিনেমায় তিনি সবশেষ অভিনয় করেছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র