Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ইলিয়াস আলী একটি প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর: ফখরুল

ইলিয়াস আলী একটি প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর: ফখরুল
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী একটি প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর, সাহসী মানুষ। যিনি কখনো নতি স্বীকার করেননি, তাকে ক্ষমতাসীনরা সরিয়ে দিয়েছে।’

বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাতে নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর বনানীর ২ নম্বর রোডের বাসায় গিয়ে পরিবারের সদস্যদের খোঁজ-খবর নেওয়ার পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগ একের পর এক নির্যাতনের নতুন নতুন কৌশল উদ্ভাবন করছে বিরোধী পক্ষকে দমিয়ে দেওয়ার জন্যে। ইলিয়াস আলী একজন প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর, সাহসী মানুষ যিনি কখনো নতি স্বীকার করেননি তাকে তারা সরিয়ে দিয়েছে। এই যে ভয়ের রাজত্ব সৃষ্টি করা, ভয়ের একটা ফোবিয়া তৈরি করা। আমরা এই অবস্থার অবসান চাই। জনগণের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই ধরনের নির্যাতনকারী, নিপীড়নকারী সরকারের পতন হতে বাধ্য।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে ফখরুল বলেন, ‘গুম আমাদের কাছে খুব একটা পরিচিত ব্যাপার ছিল না। এনফোর্স ডিজ এপিয়ারেন্স আমরা বইয়ে পড়তাম, ল্যাটিন আমেরিকায় এসব ঘটনা ঘটতো জানতাম। বাংলাদেশে এটা শুরু হলো এই সরকার আসার পর থেকেই। যা ২০১১-১২ সাল থেকে শুরু হয়েছে। এরপর আমরা জানি যে, আমাদের অনেক নেতাকর্মী, বিরোধী দলের নেতাকর্মী, ট্রেড ইউনিয়নের নেতা গুম হয়ে গেছেন। এদের এখনো কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।’

এর আগে ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা, বড় ছেলে আরবার ইলিয়াস, ছোট মেয়ে সাইয়ারা নাওয়ালসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের খোঁজ-খবর নেন মির্জা ফখরুল।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী সদস্য আয়েশা সিদ্দিকা মানি, চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল বনানীর বাসা থেকে বের হওয়ার পর, মহাখালীর সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে ইলিয়াস আলী ও তার গাড়ি চালক গুম হন। এখন পর্যন্ত তাদের খোঁজ পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত লিখুন :

এরশাদের মরদেহ ১১টায় রংপুর পৌঁছাবে

এরশাদের মরদেহ ১১টায় রংপুর পৌঁছাবে
ঢাকায় এরশাদের মরদেহের সামনে নেতাকর্মীদের ভিড়, ছবি: ফাইল ফটো

বেলা ১১টায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মরদেহবাহী হেলিকপ্টার রংপুর সেনানিবাসে অবতরণ করবে। সেখান থেকে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লাশবাহী গাড়িতে করে সোজা জানাজা স্থল রংপুর ঈদগাহ মাঠে নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।

তিনি জানান, গাড়িতেই থাকবে মরদেহ, কাচের ঢাকনার ওপর দিয়ে এক নজর দেখার ব্যবস্থা করা হবে। বাদ জোহর জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

দাফনের বিষয়ে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত কী জানতে চাইলে ১৬ জুলাই সকালে রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) মেয়র বলেন, ‘আমরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি রংপুরে দাফন করার জন্য। শরীরে এক বিন্দু রক্ত থাকা পর্যন্ত স্যারের মরদেহ রংপুর থেকে নিতে দেওয়া হবে না।’

আপনাদের এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের সঙ্গে কোনো আলোচনা হয়েছে কী। এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ‘হ্যাঁ গতরাতে (১৫ জুলাই) ফোনে কথা হয়েছে। তখন উনি আমাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। আমি তাকে সাফ জানিয়ে দিয়েছি বিষয়টি আমার একার সিদ্ধান্ত নয়, রংপুরের ৮ জেলার নেতাদের সিদ্ধান্ত।’

‘আমরা বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি একা এই সিদ্ধান্তের বাইরে যেতে পারব না। আমরা রংপুরেই দাফন করব। বাধা এলে আমারও প্রস্তুত আছি।’

রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সেক্রেটারি এসএম ইয়াসির বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জীবিত থাকা অবস্থায় এক সফরে নিজেই রংপুর দাফন করার বিষয়ে ওসিয়ত করে গেছেন। আমরা সেটাই পালন করছি। একটি গ্রুপ লাশ নিয়ে রাজনীতি করতে চায়, আমরা সেটা হতে দিতে পারি না।’

জাতীয় পার্টির সারাদেশের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রথম চাওয়া ছিল ঢাকায় দাফন করা হোক। তবে সেটা হতে হবে উন্মুক্ত স্থানে। যেখানে মসজিদ- মাদরাসা নিয়ে কমপ্লেক্স থাকবে। কিন্তু এরশাদের মৃত্যুর পর যখন সামরিক কবরস্থানে দাফনের ঘোষণা করা হয় তখন অনেকেই বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। রংপুরে দাফনের বিষয়ে সারা দেশের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মৌন সমর্থন রয়েছে বলে জানা গেছে। তারা মনে করছেন সামরিক কবরস্থানে দাফন করলে সেখানে যখন তখন যেতে পারবেন না। তার চেয়ে রংপুর অনেক ভালো, চাইলেই দেখে আসতে পারবেন।

অজেয় এরশাদ

অজেয় এরশাদ
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, পুরনো ছবি

রংপুরের কারমাইকেল কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানের আটশ’ মিটার দৌড় প্রতিযোগিতায় অন্যরা যখন সাতশ’ মিটার শেষ করেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তখন আটশ’ মিটারই শেষ করেছিলেন। দর্শকদের মধ্যে যারা অমনোযোগী ছিলেন, তাদের কেউ কেউ নাকি দ্বিধায় পড়ে গিয়েছিলেন।

খেলাধুলার পাশাপাশি অন্যান্য জায়গাতেও অজেয় ছিলেন এরশাদ। জীবনে কখনও কোনো নির্বাচনে পরাজিত হননি। যখন যেখানে যে পদে নির্বাচন করেছেন দেশের জনগণ তাকে সেখানেই বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছে। অনেকটা গর্ব করেই বলতেন এসব কথা।

ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কথা জীবদ্দশায় বারবার উল্লেখ করেছিলেন। তিনি বলতেন, ‘সামরিক শাসক ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর কারাগারে পাঁচটি আসনে জয়ী হওয়ার নজির পৃথিবীতে নেই। একমাত্র আমি জেলে থেকেও পাঁচটি আসনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছিলাম। অন্য অনেক নেতা পরাজয় বরণ করতে বাধ্য হয়েছিলেন।’

ষষ্ঠ জাতীয় সংসদে বিজয়ী হওয়া ওই পাঁচটি আসন ছিল- বৃহত্তর রংপুরের। এরপর ১৯৯৬ সালেও পাঁচ আসনে নির্বাচন করে সবক’টি থেকেই বিজয়ী হন। পরে রংপুর সদর আসন রেখে অন্যগুলো ছেড়ে দেন। ২০০১ সালে তিনটি আসনে নির্বাচন করে তিনটিতেই বিজয়ী হন। এসব বিজয়ী হওয়া নিয়ে তাকে অনেকে ব্যঙ্গ করে বলতেন, ‘রংপুরের বাইরে থেকে নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দেখাক।’ বিরোধীদের সেই চ্যালেঞ্জেও শতভাগ সফল হন প্রয়াত এরশাদ।

২০০৮ সালে রংপুর সদরের পাশাপাশি ঢাকার প্রেসটিজিয়াস আসন ক্যান্টনমেন্ট, গুলশান, বনানী থেকে নির্বাচন করে বিএনপির প্রার্থীকে বিপুল ভোটে পরাজিত করেন। এসব ঘটনাক্রমের নজির উত্থাপন করে এরশাদ বলতেন, ‘আমি কখনও স্বৈরাচার ছিলাম না। আমি যে জনপ্রিয় ছিলাম, জনগণ তা ভোটের মাধ্যমে জানান দিয়েছে। কিন্তু যারা আমাকে স্বৈরাচার বলেন, তারা কিন্তু জনগণের দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন কখনও কখনও।’

১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ থেকে টানা প্রায় নয় বছর রাষ্ট্রপতি ছিলেন এরশাদ। রোববার (১৪ জুলাই) সকাল পৌনে ৭টার দিকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। 

১৯৩০ সালের ২০ মার্চ কুড়িগ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। পাঁচ ভাই পাঁচ বোনের মধ্যে দ্বিতীয় এবং ভাইদের মধ্যে সবার বড় ছিলেন তিনি।

অনেকদিন ধরেই অসুস্থতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলেন নব্বই বছরে পা রাখা এরশাদ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গত ২০ নভেম্বর ইমানুয়েলস কনভেনশন সেন্টারে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সামনে সবশেষ আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেন তিনি। এরপর অসুস্থতার কারণে আর কোনো কর্মসূচিতে অংশ নেননি। ৬ ডিসেম্বর গাড়িতে করে অফিসের সামনে এলেও রাস্তায় গাড়িতে বসে কথা বলেই চলে যান।

১০ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান এরশাদ। ২৬ ডিসেম্বর দেশে ফিরলেও নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দেননি। এমনকি নিজের ভোটও দিতে যেতে পারেননি তিনি।

ভোটের পর শপথ নেন আলাদা সময়ে গিয়ে। সেদিনও স্পিকারের কক্ষে হাজির হয়েছিলেন হুইল চেয়ারে বসে। ২০ জানুয়ারি ফের সিঙ্গাপুরে যান চিকিৎসার জন্য। ফেরেন ৪ ফেব্রুয়ারি।

গত ২৬ জুন তার স্বাস্থ্যের অবনতি হলে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৪ জুলাই চিরবিদায় নিলেন তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র