Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

নাফ নদী থেকে ফিরেছেন অপহৃত মাঝিরা

নাফ নদী থেকে ফিরেছেন অপহৃত মাঝিরা
নাফ নদী / ছবি: বার্তা২৪
উপজেলা করেসপন্ডেন্ট
টেকনাফ
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজারের নাফ নদী থেকে ট্রলারসহ ফিরেছেন অপহৃত চার মাঝি-মাল্লা। তবে তারা মুক্তিপণের টাকা দিয়ে ফেরত এসেছেন বলে স্থানীয়রা জানালেও মালিকপক্ষ টাকার বিষয়টি অস্বীকার করছেন।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮ টার দিকে তারা সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ জালিয়া পাড়া সংলগ্ন নাফ নদের পাড়ে এসে পৌঁছান বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। পরে সেখান থেকে তারা পায়ে হেঁটে নিজের বাড়িতে চলে যান।

অপহৃত মাঝিরা হলেন- টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ বাজার পাড়ার বাসিন্দা আজিম উল্লাহ মাঝি, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, আবুল কালাম ও মোহাম্মদ হাসান। এদের মধ্যে মোহাম্মদ হাসান পুরাতন রোহিঙ্গা বলে জানা গেছে।

শাহপরীর দ্বীপ বাজার পাড়া এলাকার বাসিন্দা ট্রলার মালিক আমান উল্লাহ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘চার মাঝি ফেরত এসেছে বলে শুনেছি। তাদের সঙ্গে আমার দেখা হয়নি। তারা কীভাবে এসেছে তাও জানি ন।’

আরও পড়ুন: মিয়ানমারে অপহৃত মাঝিদের ছাড়তে মুক্তিপণ দাবি

এর আগে মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকালে আমান উল্লাহর মালিকানাধীন একটি ট্রলারে দ্বীপ সংলগ্ন নাফ নদ এলাকায় চার মাঝি-মাল্লা মাছ শিকারে যায়। এর কিছুক্ষণ পর মিয়ানমারের বিজিপির একটি দল স্পিডবোটে এসে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ট্রলারসহ তাদের ধরে নিয়ে যায়।

ওই দিন সন্ধ্যার দিকে ট্রলার মালিক আমান উল্লাহর কাছে মিয়ানমারের একটি ফোন নম্বর থেকে কল করে ট্রলার ও মাঝি-মাল্লাদের ছাড়িয়ে নিতে মিয়ানমারের ২০ লাখ কিয়াট দাবি করা হয়। যদি দাবিকৃত টাকা পরিশোধ করা হয় তাহলে ট্রলারসহ মাঝি-মাল্লাদের ফেরত দেওয়া হবে। দাবিকৃত টাকা পরিশোধের জন্য বুধবার পর্যন্ত সময় নেয় মালিক।

এ প্রসঙ্গে সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফজলুল হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘মিয়ানমারে নিয়ে যাওয়া চার জেলে ফিরে এসেছে বলে শুনেছি। তবে কীভাবে ফেরত এসেছে তা জানি না।’

আপনার মতামত লিখুন :

গাইবান্ধায় বিলের পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

গাইবান্ধায় বিলের পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলায় বিলের পানিতে ডুবে আরেফিন খাতুন (১১) ও রোখসানা আকতার (৯) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (২৬ আগস্ট) উপজেলার পেপুলীজোড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, ওই গ্রামের আবেদ আলী ও রশিদুল ইসলাম নামের দুই শ্রমিক পাশ্ববর্তী বিলে পাটের আঁশ ছাড়ানো কাজে যায়। পাটের আঁশ ছড়ানো দেখার জন্য আবেদ আলীর মেয়ে আরেফিন খাতুন ও রশিদুল ইসলামের মেয়ে রোখসানা আকতার বিলে আসে। এ সময় বিলের জলশায়ের মধ্যে হঠাৎ রোখসানা গভীর পানিতে পড়ে যায়। আরেফিন তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করলে উভয়েই জড়াজড়ি অবস্থায় পানিতে তলিয়ে যায়। পরে তাদের মরদেহ পানিতে ভেসে উঠলে বিষয়টি জানাজানি হয়। এ দুই শিশুর ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মহোদীপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম মন্ডল বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘অনাকাঙ্ক্ষিত এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।’

নারায়ণগঞ্জে ৭০ বছরের পুরনো পার্ক উচ্ছেদ

নারায়ণগঞ্জে ৭০ বছরের পুরনো পার্ক উচ্ছেদ
টানবাজার পার্ক উচ্ছেদ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

নারায়ণগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী টানবাজার পার্ক ভেঙে বহুতল ভবন নির্মাণের লক্ষে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক)। প্রায় এক একর জায়গা জুড়ে পার্কটির স্থাপনা উচ্ছেদ করে নাসিকের কর্মকর্তারা।

সোমবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে টানবাজার পার্কের ২২১টি দোকান গুঁড়িয়ে দেয়া হয় এক্সাভেটরের মাধ্যমে। প্রায় ৭০ বছর পূর্বে নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রধান মার্কেট হিসেবে টানবাজার পার্কটি পরিচিতি ছিল। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566812731780.jpg

উচ্ছেদ টিমের প্রধান সার্ভেয়ার আবুল কালাম জানান, পূর্বের সময় বেধে দেয়ার পর আজ পার্ক উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এখানে অবস্থিত ১ একর (প্রায় তিন বিঘা) জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে। ভবনের তিনতলা পুরোটা জুড়ে গাড়ি পার্কিং থাকবে। এতে শহরের যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং রোধ করে এখানে সু-শৃঙ্খলভাবে পার্কিং ব্যবস্থার সুযোগ হবে।

তিনি আরও বলেন, টানবাজার পার্কে ২২১টি দোকান যাদের রয়েছে তাদের সকলেই এ ভবনে একটি করে দোকান পাবেন তবে কিছু শর্তের প্রেক্ষিতে। উচ্ছেদ চলাকালে কেউ আমাদের বাঁধা দেয়নি, বরং মালিকরাই দোকান উচ্ছেদে সহযোগিতা করেছেন। এতে উচ্ছেদ পরিচালনা দ্রুত সময়ে শেষ হবে আশা করি।

তবে টানবাজার পার্কের মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী হানিফ উদ্দিন সেলিম জানান, আমরা নাসিকের মেয়রের সঙ্গে দেখা করে সময় বৃদ্ধির আবেদন করেছিলাম। কিন্তু তিনি আজই ভেঙ্গে দিলেন পুরো মার্কেটটি।

 

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র