Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

শিক্ষকদের প্রেষণ বাতিলের দাবিতে অভিভাবকদের মানববন্ধন

শিক্ষকদের প্রেষণ বাতিলের দাবিতে অভিভাবকদের মানববন্ধন
মানববন্ধন করেছেন অভিভাবকরা / ছবি: বার্তা২৪
উপজেলা করেসপন্ডেন্ট
গৌরীপুর (ময়মনসিংহ)
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের গৌরীপুর আর কে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষকদের প্রেষণ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা।

বুধবার বিকেলে (১৭ এপ্রিল) বিদ্যালয়ের প্রবেশ পথের সামনে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুল ইসলাম মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান ফকির, সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, পৌর কাউন্সিলর দিলুয়ারা আক্তার, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন গৌরীপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক রইছ উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, গৌরীপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের ওয়াসিকুল ইসলাম রবিন, উপজেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি আলী আশরাফ আবীর, অভিভাবক গোলাম মোস্তফা, উপাধাক্ষ্য এমদাদুল হক, মঞ্জুরুল হক, আজিম উদ্দিন, আওলাদ হোসেন জসিম, নূর মোহাম্মদ ফকির প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, গৌরীপুর আর কে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের যোগদান করেই শিক্ষকরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের যোগসাজশে অন্যত্র প্রেষণে চলে যান। বিদ্যালয়ের প্রায় ৭০০ শিক্ষার্থীর পাঠদান চলছে ১২ জন শিক্ষক দিয়ে। এর মধ্যে পাঁচ জন শিক্ষক প্রেষণে থাকায় চতুর্থ ঘণ্টা পর বিদ্যালয় ছুটি হয়ে যায়। এতে করে এখানে অধ্যয়নরত কোমলমতি শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় পিছিয়ে পড়ছে। কিছুদিন আগে বিদ্যালয়ের একমাত্র উচ্চমান সহকারীকেও প্রেষণে অন্যত্র নেওয়া হয়েছে। এতো অনিয়মের মধ্য দিয়ে একটা বিদ্যালয় চলতে পারে না। অচিরেই শিক্ষক সঙ্কট সমাধান না করা হলে আগামী দিনে কঠোর আন্দোলনে যেতে আমরা বাধ্য হব।

এ বিষয়ে জানতে গৌরীপুর আর কে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফা খাতুনের মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন :

মানিকগঞ্জে ইজিবাইকের চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ

মানিকগঞ্জে ইজিবাইকের চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ
মারধরের ঘটনায় ইজিবাইজ চালকদের বিক্ষোভ, ছবি: সংগৃহীত

মানিকগঞ্জে চাঁদা না দেওয়ায় এক ইজিবাইক চালককে মারধর করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় ইজিবাইক চালকেরা। 

মঙ্গলবার (২৫ জুন) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এই বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা। পরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিজয় মেলার মাঠে গিয়ে জড়ো হয়ে ধর্মঘট পালন করেন ইজিবাইক চালকেরা।

এসময় ইজিবাইক চালকেরা বলেন, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আরিফ নামের এক ইজিবাইক চালক চাঁদা না দেওয়ায় তাকে মারধর করেন চাঁদাবাজরা। পরে দুপুরে সকল ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক চালকেরা একত্রিত হয়ে শহরের সকল ইজিবাইক নিয়ে বিজয় মেলার মাঠে জড়ো হন। চালককে মারধরের প্রতিবাদে ও চাঁদা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা।

এসময় তারা বলেন, মানিকগঞ্জ শহরের ৫টি জায়গায় প্রতিদিন নামে বেনামে ২০ টাকা করে শতাধিক টাকা চাঁদা দিতে হয় তাদের। চাঁদা না দিলেই গাড়ি বন্ধ করে রাখে এবং চালককে মারধর করে। এ বিষয় থেকে মুক্তি চায় তারা।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ পৌর মেয়র মুক্তিযোদ্ধা গাজী কামরুল হুদা সেলিম বার্তা২৪.কম’কে জানান, ইজিবাইক চালকদের যাতে কোনো প্রকার চাঁদা দিতে না হয় সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ধৈঞ্চা চাষে লাভ বেশি

ধৈঞ্চা চাষে লাভ বেশি
ধৈঞ্চা গাছ। ছবি: বার্তা২৪.কম

ধৈঞ্চা চাষ করে সফল হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাষিরা। কম খরচে অধিক ফলনের কারণে দিন দিন ধৈঞ্চা চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

জানা গেছে, মাত্র ১ বিঘা জমিতে চাষের জন্য ৩ কেজি ধৈঞ্চার বীজ প্রয়োজন হয়। প্রতি কেজি বীজের দাম ৪০ টাকা। ধৈঞ্চা চাষে বীজ ছাড়া আর তেমন কোনো খরচ হয় না। মাত্র ৫-৬ মাসের মধ্যে ধৈঞ্চা গাছের খড়ি সংগ্রহ করা যায়। আর ১ বিঘা জমির খড়ি ১৫-১৬ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। এছাড়া কোনো জমি উর্বর না থাকলে গাছগুলো কেটে ওই জমিতে ফেলে পচিয়ে ভালো সার পাওয়া যায়। যা জমির উর্বরতা বাড়ায়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের জালাল উদ্দীন জানান, তিনি প্রতিবছর আড়াই থেকে ৩ বিঘা জমিতে ধৈঞ্চা চাষ করেন। ধৈঞ্চার খড়ি দিয়ে সারা বছরের জ্বালানির চাহিদা মেটান। এছাড়া ধৈঞ্চার বীজ বিক্রি করেন। এতে তার ভালোই লাভ হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561469439057.jpg

একই উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের নুরুল ইসলাম মারুফ জানান, তিনি এবার ৩ বিঘা জমিতে ধৈঞ্চা চাষ করেছেন। ধৈঞ্চা চাষে খরচ কম, লাভ বেশি।

শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকতা এসএম আমিনুজ্জামান জানান, ১ বিঘা জমিতে ধৈঞ্চা চাষ করে ৫ থেকে ৬ মণ বীজ পাওয়া যায়। আর প্রায় এক হাজার টাকা মণ দরে সেই বীজ বিক্রি হয়। ফলে ধৈঞ্চা চাষ করে সবুজ সার, খড় ও বীজ পাওয়া যায়। এতে চাষি লাভবান হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মঞ্জুরুল হোদা জানান, ধৈঞ্চা চাষে চাষিদের উদ্বুদ্ধ করতে কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মীরা কাজ করছেন। চলতি বছরে জেলায় প্রায় আড়াইশ হেক্টর জমিতে ধৈঞ্চা চাষ হয়েছে। যা আগামীতে আরও বাড়বে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র