Alexa

সাকিববিহীন ফাইনালে, ট্রফি জিততে মরিয়া বাংলাদেশ

সাকিববিহীন ফাইনালে, ট্রফি জিততে মরিয়া বাংলাদেশ

এবার কি ফাইনাল দুঃস্বপ্ন কাটবে বাংলাদেশের?

টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের খেলা তিনটি ম্যাচের কাহিনীতে কি ভীষণ মিল! তিন ম্যাচেই প্রতিদ্বন্দ্বিতার তেমন কোনো চিহ্নই নেই। বাংলাদেশের সহজ জয়। তিন ম্যাচেই রান তাড়া করে ম্যাচে জয়ের আনন্দ। এবং কি আশ্চর্য তিন ম্যাচে এক জায়গায় বাংলাদেশ হারলো-টস!

ক্ষতি কি, ম্যাচ জিতলে টস হারার শূন্যতা কে আর মনে রাখে? তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আজ শুক্রবারের ফাইনালে বাংলাদেশকে একাদশে একটি বড় শূন্যতা পুরুণ করতে হবে। সাকিব আল হাসান খেলছেন না এই ফাইনালে সেটা নিশ্চিত প্রায়। ফাইনালের আগের দিনে সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার কথাতেই তা স্পষ্ঠ। সাকিবকে ছাড়াই ফাইনালের পরিকল্পনা স্থির করে ফেলেছে বাংলাদেশ।

অধিনায়ক বলছিলেন-‘সাকিবের থাকা বা না থাকাটাই ম্যাচের ডিসাইডিং ফ্যাক্টর, সেটা অধিনায়ক হিসেবে আমি মনে করি না। তবে হ্যাঁ, সাকিব যদি এই ম্যাচ খেলতে না পারে তবে তাকে মিস করাটা আমাদের জন্য ভালো খবর অবশ্যই নয়।’

দলের জন্য সাকিবের প্রয়োজনীয়তা এবং একই সঙ্গে সাকিবকে ছাড়াও কিভাবে জেতা যায়-সেই উদ্দীপনায় উজ্জ্বীবিত করলেন অধিনায়ক তার দলকে-‘সাকিবকে ছাড়াও  এই ম্যাচ জয়ের সামর্থ্য আমাদের আছে। সাকিব না খেললে তার জায়গা যে খেলবে, সেও পেশাদার, তারও সামর্থ্য আছে ভালো করার।’

ফাইনালে সাকিবের জায়গায় কে? সেই উত্তর খুঁজতে আপাতত খুব বেশি হন্যে হওয়ার প্রয়োজন পড়ছে না। আগের ম্যাচে লিটন দাসের হাফসেঞ্চুরিতে এই খোঁজ মিলে গেছে। সাকিবের তিন নম্বর ব্যাটিংয়ের শূন্যস্থান পুরুণ করছেন লিটন দাস। ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গে থাকছেন সৌম্য।

প্রশ্ন হলো, সাকিব তো দলের বোলারও বটে। তার ১০ ওভারটা তাহলে কে করবে? এই শূন্যস্থান পূরুণ করতে সৌম্য ও সাব্বিরের কাছ থেকে ফাইনালে বোলিংয়েও অবদান দাবি করছেন অধিনায়ক। স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ ফিরছেন একাদশে। এমনও হতে পারে  পেস বোলার সাইফুদ্দিনের পরিবর্তে এই ম্যাচে অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে খেলানো হতে পারে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্পিনের বিপক্ষে বরাবরই একটু পিছুহটা। মোসাদ্দেকের স্পিন উইন্ডিজের সেই সমস্যা আরো বাড়াতে পারে। আর হ্যাঁ, আগের ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেয়া আবু জায়েদ রাহীরও আজকের ফাইনালের একাদশে জায়গা হচ্ছে না। মুস্তাফিজুর রহমান ফিরছেন যে তার নিজের জায়গায়!

টুর্নামেন্টের আগের দুই মোকাবেলায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ মোটেও বাংলাদেশের কাছে পাত্তা পায়নি। হেরেছে যথাক্রমে ৮ ও ৫ উইকেটে। তবে দলগতভাবে ব্যর্থ হলেও উইন্ডিজ ওপেনার শেই হোপের ব্যাটে রানের ফল্গুধারা। চলতি টুর্নামেন্টেই দুটো সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি। ৪ ম্যাচে তার রানই সর্বোচ্চ ৩৯৬। গড় ৯৯.০০! আর প্রতিপক্ষ হিসেবে বাংলাদেশের বোলিং ভীষণ পছন্দ করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই ডানহাতি ওপেনার। বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ আট ইনিংসে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা তিনটি! শেই হোপকে দ্রুত ফেরাতে না পারলে বাংলাদেশের ফাইনালের ‘হোপে’ খামতি পড়বে।

তিনজাতি কোনো টুর্নামেন্টে ফাইনাল মানেই তো বাংলাদেশের নুয়ে পড়া। ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি মিলিয়ে বহুজাতিক টুর্নামেন্টে এর আগে ছয়টি ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। কোনোবারই ট্রফি জিততে পারেনি। হ্যাঁ, ভালো ক্রিকেট খেলে হৃদয় ঠিকই জিতেছে। কিন্তু ট্রফি জেতা হয়নি।

আজ না হয় হৃদয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতুক। ট্রফিটা মাশরাফি!

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ: তামিম, সৌম্য, লিটন/সাকিব, মুশফিক, মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির, সাইফুদ্দিন/ মোসাদ্দেক, মেহেদি, মাশরাফি ও মুস্তাফিজ।

আপনার মতামত লিখুন :