Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

যে গয়না পরলে এড়ানো যাবে অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ

যে গয়না পরলে এড়ানো যাবে অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ
ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কানে দুল, গলায় লকেট কিংবা হাতে ঘড়ি। এসব পরেই যদি গর্ভ নিরোধ করা যায়, তবে কেমন হবে? অবিশ্বাস্য হলেও এমন গয়না তৈরি করেছেন জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির গবেষকরা।

‘গর্ভনিরোধক গয়না’ (contraceptive jewellery) শীর্ষক এই গয়নার খবর কিছুদিন আগে জার্নাল অফ কন্ট্রোল রিলিজে প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, বিভিন্ন গয়না বা অলঙ্কারে বা সাজগোজের নানা উপকরণে, যেমন- দুল, আংটি, ঘড়ি এবং অন্যান্য গয়নাতে গর্ভনিরোধক হরমোনের বিশেষ প্যাচ সংযুক্ত করেছেন বিজ্ঞানীরা। এসব হরমোন চামড়ার মধ্যে দিয়ে শোষিত হয়ে রক্তে মিশে যাবে।

সংবাদ মাধ্যম ফক্স নিউজে বলা হয়েছে, এই গয়না মানুষের শরীরে কীভাবে কাজ করবে, তা এখনও জানতে মানুষের উপরে কোনও পরীক্ষা করা হয়নি। তবে বিজ্ঞানীরা ফলাফল জানতে শুকর ও ইঁদুরের উপর এই গয়নার প্রভাব পরীক্ষা করেছেন।

জর্জিয়া টেকের সংবাদ সূত্র জানায়, প্রাথমিক পরীক্ষায় বোঝা গিয়েছে যে গর্ভনিরোধক এই গয়না অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ রোধে পর্যাপ্ত পরিমাণে হরমোন সরবরাহ করতে পারে। এই নতুন কৌশলটির লক্ষ্য হলো, নিয়মিত ডোজ প্রয়োজন, এমন ড্রাগ নিয়ন্ত্রকদের সঙ্গে ব্যবহারকারীদের যে সম্মতি সেই ক্ষেত্রটা উন্নত করা।

পরীক্ষাটি পরিচালনা করেছেন পোস্টডক্টরাল সহকর্মী মোহাম্মদ মোফিডফার, জ্যেষ্ঠ গবেষক বিজ্ঞানী লরা ও'ফারেল এবং ইউনিভার্সিটির স্কুল অফ কেমিক্যাল অ্যান্ড বায়োমলিকুলার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অধ্যাপক মার্ক প্রুসনিৎস।

মার্ক প্রুসনিৎস বলেন, ‘ফার্মাসিউটিকাল অলঙ্কার একটি নতুন পদ্ধতি উপস্থাপন করে, যা গর্ভনিরোধককে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে। এটি আরো আকর্ষণীয় ও জনপ্রিয় করার জন্য এর ব্যবহারকে সহজ করতে হবে, এটা মাথায় রাখা উচিৎ।’

এখন পর্যন্ত এসব গয়না বাস্তব হয়ে না উঠলেও একদিন না একদিন হয়তো গয়না পরেই সহজে কার্যকর হবে পরিবার পরিকল্পনা, এমনটাই মনে করছেন গবেষকরা।

সূত্র: এনডিটিভি

আপনার মতামত লিখুন :

অ্যামাজনের আগুন নেভাতে মাঠে ব্রাজিলের সামরিক বাহিনী

অ্যামাজনের আগুন নেভাতে মাঠে ব্রাজিলের সামরিক বাহিনী
অ্যামাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে ব্রাজিলের সামরিক বাহিনী/ ছবি: সংগৃহীত

পৃথিবীর ফুসফুস খ্যাত অ্যামাজন জঙ্গলে ছড়িয়ে পড়া আগুন নেভাতে সামরিক আকাশযানসহ মাঠে নেমেছে ব্রাজিলের সামরিক বাহিনী। এই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট এলাকায় সরকারবিরোধী আন্দোলনের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সংকটও দেখা দিয়েছে।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারো অবশ্য বৈশ্বিক উদ্বেগ কমাতে বলেছিলেন যে, অ্যামাজনের যেখানে আগুন লেগেছে, সেখানে আরও আগেই বন ধ্বংস করা হয়েছে। গভীর জঙ্গল এখনো অক্ষত রয়েছে। এ বিষয়ে চলতি সপ্তাহের শেষে ফ্রান্সে অনুষ্ঠিতব্য জি-৭ এর সভায় আলোচনারও কথা রয়েছে।

ব্রাজিলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফার্নান্দো আজেবাদো জানান, দেশটির প্রায় ৪৪ হাজার সেনা এই অনাকাঙ্ক্ষিত আগুন নেভাতে অ্যামাজন এলাকার ছয়টি রাজ্যে যাচ্ছেন। রাজ্যগুলো হলো- রুরাইমা, রন্দনিয়া, টোকানটিনস, প্যারা, অ্যাকর ও মাতো গ্রসো।

রন্দনিয়ার রাজধানী পোর্তো ভেলোতে প্রথম অভিযানে অংশ নেবেন সাতশরও বেশি সেনা। অভিযানে তারা দুটি সি-১৩০ উড়োজাহাজ ব্যবহার করবেন পাটি ছিটানোর জন্য, যার প্রতিটি ১২ হাজার লিটার পানি ধারন করতে পারে।

অ্যামাজন সংকটের প্রেসিডেন্ট বলসোনারোর ভূমিকা ব্যাপকভাবে সমালোচিত হওয়ার পরই মাঠে নামছে দেশটির সামরিক বাহিনী। শুক্রবার বলসোনারো তাঁর সামরিক বাহিনীকে আগুন নেভানোর কাজে নামার অনুমতি দেয়। এ সময় তিনি দাবি করেন যে, অ্যামাজনকে রক্ষা করতে তিনি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

আন্তর্জাতিক উদ্বেগের মধ্যে শনিবার প্রেসিডেন্ট বলসোনারো গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আগুন স্বাভাবিক হওয়ার পথে।’ এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানসেজ সহ ল্যাটিন আমেরিকার একাধিক দেশের নেতাদের সাথে কথা বলছেন বলেও জানান তিনি।

বরাবরই বলসোনারো অ্যামাজন জঙ্গল রক্ষা করাকে ব্রাজিলের অর্থনৈতিক উন্নয়নের বাধা হিসেবে উল্লেখ করছিলেন এবং যারা মনে করেন অ্যামাজন বন বিশাল আকারের গ্রীনহাউজ গ্যাস হজম করে জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিরোধে ভূমিকা পালন করে, তাদের কড়া জবাবও দিয়ে আসছিলেন।

অ্যামাজনের অগ্নিকাণ্ড বর্তমানে একটি বৈশ্বিক ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে ব্রাজিল ও ইউরোপিয়ান দেশগুলোর মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। ইউরোপিয়ানরা বলছেন, বলসোনারো জীববৈচিত্র্য রক্ষায় তাঁর ওয়াদা ভঙ্গ করেছেন। ইউরোপ ও ল্যাটিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশে ব্রাজিল দূতাবাসের সামনে শুক্রবার বিক্ষোভ করে উত্তেজিত জনতা। এমনকি ব্রাজিলেও আন্দোলনে নামেন প্রতিবাদকারীরা।

কাশ্মীরিদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে: প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

কাশ্মীরিদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে: প্রিয়াঙ্কা গান্ধী
প্রিয়াঙ্কা গান্ধী, ছবি: সংগৃহীত

জম্মু কাশ্মীরের শ্রীনগর বিমানবন্দর থেকে শনিবার (২৪ আগস্ট) দিল্লিতে ফেরত পাঠানো হয় কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীসহ ১১ বিরোধী দলের নেতাদের। রাহুল গান্ধী ও বিরোধী দলের নেতাদের প্রতি প্রশাসনের এমন ভূমিকায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। এরই পরিপ্রেক্ষিতে তিনি রোববার (২৫ আগস্ট) কড়া ভাষায় টুইট করেন।

টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘কাশ্মীরিদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। এর থেকে বেশি রাজনৈতিক ও দেশবিরোধী কিছু হতে পারে না।’

এদিকে, টুইটে একটি ভিডিও দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিমানের মধ্যে এক নারী রাহুল গান্ধিকে কেন্দ্রীয় পদক্ষেপের ফলে সৃষ্ট নানা সমস্যার কথা জানাচ্ছেন।

দেশটির সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, কাশ্মীরে বিধি নিষেধ জারি অবস্থায় সেখানকার আইনশৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলে অভিযোগ করেছিলেন রাহুল গান্ধী। সেই সময়ই তাকে কাশ্মীরে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানান রাজ্যপাল সত্যাপাল মালিক। তিনি জানান, গান্ধীর জন্য বিমানও পাঠিয়ে দেওয়া হবে। রাজ্যপাল ও রাহুলে টুইট ঘিরে রাজনীতি আবর্তিত হয়।

আরও পড়ুন: কাশ্মীর থেকে ফেরত পাঠালো রাহুল গান্ধীকে

শনিবারের ঘটনার বিষয়ে রাহুল গান্ধী বলছেন, ‘এটা প্রমাণ হয়ে গেল কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয়। দিন কয়েক আগেই রাজ্যপাল আমাকে কাশ্মীরে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ করে। এজন্য আমি ও দলের অন্য নেতারা এসেছিলাম। অথচ আমাদের প্রবেশ করতে দেওয়া হল না। অবাক করা বিষয়।’

জম্মু-কাশ্মীরের সরকারের পক্ষ থেকে এক টুইটে জানানো হয়, বিরোধী নেতাদের রাজ্যে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। তারা এলে পরিবেশ অন্যরকম হয়ে উঠতে পারে। সীমান্ত সুরক্ষা ও হিংসা রুখতেই নিয়ন্ত্রণের জারি করছে প্রশাসন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র