Barta24

সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

গণতান্ত্রিক ধারা ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়: শেখ হাসিনা

গণতান্ত্রিক ধারা ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়: শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে গণভবনে বক্তব্য দেন, ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

গণতান্ত্রিক ধারা ছাড়া দেশে কখনো আর্থ-সামাজিক উন্নতি সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। শুক্রবার সকালে গণভবনে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দেখা করতে গেলে তাদের উদ্দেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৮১ সালে দেশে ফিরে আসার পর ছিল পদে পদে বাঁধা। একদিকে যারা সরকারে ছিল তাদের বাধা। তবে মাথায় রেখেছিলাম, এই দেশটার জন্য কিছু করে যেতে হবে।’

‘দেশে গণতান্ত্রিক ধারা ফিরিয়ে নিয়ে আসার সংগ্রামের কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি গণতান্ত্রিক ধারা ছাড়া দেশে কখনো আর্থ-সামাজিক উন্নতি সম্ভব নয়।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, যারা বার বার চেয়েছে আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে তারা সফল হয়নি। আওয়ামী লীগ কিন্তু আওয়ামী লীগের মতই ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছে। আজকে সারা বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ এক নম্বর পলিটিক্যাল পার্টি। যে পার্টি মানুষের আস্থা, বিশ্বাস অর্জন করেছে।

তিনি বলেন, ‘সেই আস্থা বিশ্বাস আমরা দেখতে পেয়েছি এবারের নির্বাচনে, নারী-পুরুষ থেকে শুরু করে যারা প্রথমবারের ভোটার তারা সকলে আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে তাদের আস্থা বিশ্বাসকে জানিয়েছে।’

আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ জনপ্রিয়তার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, আমরা যে ক্ষমতায় থেকে মানুষের জন্য কাজ করেছি, মানুষের জন্য উন্নয়ন করেছি, মানুষের ভাগ্য গড়ার জন্য যে কাজগুলো করেছি। সেটা মানুষ উপলব্ধি করতে পেরেছে। এটা ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যেকোনো রাজনৈতিক নেতার জন্য এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যে মানুষের আস্থা বিশ্বাসটা অর্জন করা।

নইলে ক্ষমতায় থাকলে সাধারণত মানুষের জনপ্রিয়তা হ্রাস পায়। কিন্তু আমরা ক্ষমতায় এসে মানুষের আস্থা বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছি বলেই মানুষের ভোট আমরা পেয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, ৩৮ বছরে বাংলাদেশের মানুষের মর্যাদা ক্ষুন্ন হোক, বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হোক, এমন কোনো কাজ আমি বা আমার পরিবারের কোনো সদস্য কখনো করিনি। নিজেদের চাওয়া পাওয়ার জন্য কাজ করিনি, কাজ করেছি দেশের মানুষের জন্য। সব সময় চিন্তা করেছি মানুষকে কি দিতে পারলাম, মানুষের জন্য কতটুকু করতে পারলাম। আমরা যত বার ক্ষমতায় এসেছি, মানুষের জন্য কাজ করেছি তত মানুষের আস্থা বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছি।

এই দেশটা যেন আবার স্বাধীনতা বিরোধী, যুদ্ধাপরাধী এদের হাতে আর ক্ষমতা না যায়, কেউ যেন দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে,সেদিকে সবাইকে সর্তক থাকার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমাদের প্রচেষ্টাই হচ্ছে কিভাবে এদেশটাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব। ব্যক্তিগত জীবনে কি পেলাম, না পেলাম সে চিন্তা করি না। দেশের মানুষের জন্য কতটুকু করতে পারলাম, কতটুকু দিতে পারলাম সেটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় কথা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/17/1558090249519.jpg

রাজনৈতিক জীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, স্কুল জীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম। তারপর কলেজে গিয়ে.. তারপর ইউনিভার্সিটিতে তখনো ছাত্রলীগেরই সদস্য ছিলাম। আওয়ামী লীগের না। আওয়ামী লীগের হলাম ৮১ সালে।

তিনি বলেন, আমার রাজনীতি ছাত্ররাজনীতি থেকেই শুরু। তবে কখনো কোনো বড় পোস্টে ছিলাম না, বড় পোস্ট চাইওনি কখনো। যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির একজন সদস্য ছিলাম। কখনো পদ নিয়ে চিন্তা করিনি, পদ আমরা চাইওনি। আমরা পদ সৃষ্টি করে এবং সবাইকে পদে বসানোর দায়িত্বটাই পালন করতাম। প্রত্যেকটা কনফারেন্সে হাজির থাকতাম। ৭৫ এর পর এত বড় দায়িত্ব আমাকে নিতে হবে এটা কখনো আমি ভাবিনি, চাইওনি, এটা চিন্তাও ছিল না।

এ সময় আওয়ামী লীগ সভাপতির দায়িত্ব ছেড়ে দেয়ার ইঙ্গিত দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, একটা দলের সভানেত্রী হিসেবে ৩৮ বছর এটা বোধয় একটু বেশি হয়ে যাচ্ছে। (এ সময় উপস্থিত নেতা-কর্মীরা সমস্বরে না বলে ওঠেন) আমার মনে হয় আপনাদেরও সময় এসেছে, তাছাড়া বয়সও হয়েছে। … এ বিষয়গুলো তো দেখতে হবে। ক্ষমতায় থেকেও মানুষের আস্থা বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছি এটাও কিন্তু বিশাল অর্জন। নেতা-কর্মীদের কাছে এইটুকু চাইব, এই আস্থা বিশ্বাস যেন আমরা ধরে রাখতে পারি।

এর আগে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা ফুল দিয়ে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফসহ আরও অনেকে।

আপনার মতামত লিখুন :

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির মহানগর কমিটি অনুমোদন

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির মহানগর কমিটি অনুমোদন
ছবি: সংগৃহীত

জহিরুল ইসলাম মিন্টুকে আহ্বায়ক ও রবিউল ইসলাম রিপনকে সদস্য সচিব করে জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টি ঢাকা মহানগর উত্তরের ৫১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির সভাপতি মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা ও সাধারণ সম্পাদক মো. নাজমুল খানের সুপারিশক্রমে ওই কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

কমিটিতে যুগ্ম-আহ্বায়ক হিসেবে রয়েছেন এএকেএম দেলোয়ার হোসেন (আশিক খান), জেসমিন কামাল, তামান্না হক।

সদস্য করা হয়েছে- মো. সাজিউল ইসলাম রকি, এসআই শফিক, অ্যাডভোকেট আইরিন পারভীন মনিশা, আবুল কালাম আজাদ, রেনু খান, আমির হোসেন খান, সাইফুল্লা জামান চৌধুরী, লেহাজ উদ্দিন, শাহজাহাল সরকার, সোনিয়া সরকার, আবুল দেওয়ান, শাহারিয়া সরকার, সাদ্দামুল ইসলাম ড্যানি, শেখ মামুন, আরিফ আহম্মেদ, ফুল বক্স, আব্দুস ছামাদ, গিয়াস উদ্দিন, আব্দুল হাদী।

এছাড়া আরও আছেন- সামছুন্নাহার বেগম, নিলুফা ইয়াসমিন নিলা, ডা. খলিলুর রহমান, মাসুদুর রহমান, মো. লিটন, মাফাতুল্লাহ, জনি আকন্দ, মামুন হোসেন, সুজন সাধক, আনিসুর রহমান, শাহিনুর আলম, আমিনুল ইসলাম, মোঃ স্বপন, কিসমত আলী, রোকেয়া কেয়া, শ্রীমতি লক্ষ্মী রানী রায়, ইয়াসমিন সুলতানা রকু, মোঃ কামাল হাসেন, শিশির হোসেন, আরিফ হোসেন, সবুজ সরকার, অনামিকা ভট্টাচার্য, হেলাল উদ্দিন, সৈয়কত মাহমুদ, সোনিয়া আক্তার, নুরুল ইসলাম, ধনিরাম বাবু।

খালেদার মুক্তির ব্যাপারে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যাবে বিএনপি

খালেদার মুক্তির ব্যাপারে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যাবে বিএনপি
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে আন্তর্জাতিকভাবে পদক্ষেপ নেওয়ার দলগত সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয় গুলশানে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বৈঠক করেন। বৈঠতে স্কাইপে যুক্ত ছিলেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মির্জা ফখরুল বলেন, ঈদের আগে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার যে জামিনের বিষয়টা এসছিল হাইকোর্টে, সেখানে একটা নেতিবাচক আদেশ হওয়ার পর থেকেই আমাদের ধারণা দৃঢ় হয়েছে যে, বিচার বিভাগ স্বাভাবিক বা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না। সরকার বিচার ব্যবস্থাকে নিয়ন্ত্রণ করছে। সে ক্ষেত্রে আইনিভাবে এটা অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে যে, আমরা ন্যায়বিচার পাব কিনা!

তিনি বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত ব্যাপারে এবং তার মুক্তির বিষয়ে আন্তর্জাতিকভাবে পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যেসব গণতান্ত্রিক দেশ আছে, আমরা তাদের অবহিত করব এবং অন্যায়ভাবে যে খালেদা জিয়াকে আটক করে রাখা হয়েছে—সে বিষয়টা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেব।

কোরবানির পশুর চামড়ার দামে ব্যাপক ধস নামা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকারের চরম উদাসীনতা ও ব্যর্থতায় এ রকম হয়েছে।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে এখনও বিদেশ থেকে ওষুধ আসেনি দাবি করে রোগীদের বিনা খরচে চিকিৎসার ব্যবস্থার দাবি জানান মির্জা ফখরুল।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান ইকবাল ও হাসান মাহমুদ টুকু।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র