বাজেটের প্রভাব পড়েনি কাঁচা বাজারে

রাকিবুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কারওয়ান বাজারে কাঁচা পেঁপের পাইকারি বাজার, ছবি: বার্তা২৪.কম

কারওয়ান বাজারে কাঁচা পেঁপের পাইকারি বাজার, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশ পরিচালনার জন্য পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বিশাল বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুন) জাতীয় সংসদে ‘সমৃদ্ধির সোপানে বাংলাদেশ, সময় এখন আমাদের’ শিরোনামে দেশের ৪৮তম এবং নিজের প্রথম বাজেট বক্তব্য দেন তিনি। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামে প্রস্তাবিত বাজেটের প্রভাব পড়েনি বলেই মনে করেন রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

শুক্রবার (১৪ জুন) সকালে কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজেট ঘোষণার ফলে সবজি, মাছ, মাংস, তেল, মসলাসহ অন্যান্য পণ্যের দাম বাড়েনি। কাঁচা বাজারে সরবরাহ বাড়ায় দাম বরং কিছুটা কমেছে। তবে বাজেট বাস্তবায়ন হলে কী হবে তা নিয়ে শঙ্কা ক্রেতাদের।

pumkin
কারওয়ান বাজারে কুমড়ার পাইকারি বাজার, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

শুক্রবার পাইকারিতে প্রতি পাল্লা (পাঁচ কেজি) পটল ৬০ টাকা, বেগুন প্রতি পাল্লা ১০০ টাকা, ঢেঁড়স প্রতি পাল্লা ৮০ টাকা, আলু (সাদা বড়) পাল্লা প্রতি ৭৫ টাকা, শসার পাল্লা ১২০ টাকা, পেঁপের পাল্লা ১২০ টাকা, পাকা টমেটোর পাল্লা ১২০ টাকা, করলা পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতিটি (মাঝারি আকারের) ২৫ টাকা, ভালো কাঁচা মরিচের পাল্লা ১৫০ টাকা, ঝিঙা পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, শিমের পাল্লা ১২০ টাকা, কাঁকরোলের পাল্লা ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা, বরবটি পাল্লা প্রতি ১০০ টাকা, দে‌শি পেঁয়াজ পাল্লা প্রতি ১২০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ পাল্লা প্রতি ১৫০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।

তবে পাইকারি বাজারের তুলনায় খুচরা বাজারে দামের পার্থক্য চোখে পড়ার মতো। ক্রেতাদের অভিযোগ, পাইকারি বাজারে সবজি কিংবা অন্যান্য তরিতরকারির দাম যাই থাকুক, খুচরা বাজারে কেজি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি।

কারওয়ান বাজারের কাঁচামালের পাইকারি বিক্রেতা কামরুল মোল্লা বলেন, বাজেটের সঙ্গে সবজি চাষি কিংবা আমাদের কোনো সম্পর্ক নেই। বাজার মূল্য নিজস্ব গতিতেই চলছে। আপাতত সবজির আমদানি ভালো থাকায় দামটা বাড়েনি। বরং কিছু কিছু সবজিতে কমেছে।

শুক্রবার প্রতি কেজি দেশি মসুর ডাল ১০০ টাকা, হাইব্রিড মাঝারি মসুর ডাল ৯০ টাকা, বড় মসুর ডাল ৭০ টাকা, খেসারি ডাল ৬৫ টাকা, কাঁচা মাষকলাই ডাল ৮৫ টাকা, মুগ ডাল ১০৫ টাকা, ছোলার ডাল ৭৫ টাকা, আস্ত বুট ৮০ টাকা, খোলা চিনি ৫১ টাকা ও প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল ৮২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ঈদের আগেও একই রকম দাম ছিল।

Vegetable
কারওয়ান বাজারে বিক্রি হচ্ছে সবজি, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

কারওয়ান বাজারের জব্বার স্টোরের মালিক আব্দুল জব্বার বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা ঈদের পরে যে দামে বিক্রি শুরু করেছি এখনও সেই দামেই বিক্রি করছি। আমার জানা মতে কোনো পণ্যের দাম বাড়েনি। দাম আগের মতই আছে।

তিনি বলেন, বাজারে বাজেটের প্রভাব বোঝা যাবে বাজেট বাস্তবায়ন শুরু হলে। তখন নতুন করে মোকাম থেকে পণ্য আনতে গেলে দামের পার্থক্য বলা যাবে।

রয়েল জেনারেল স্টোরের ম্যানাজার সোলায়মান বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের কাছে দাম বাড়ানোর কোনো নির্দেশনা নেই। আমরা আগেও যে দামে বিক্রি করেছি, এখনও একই দামে পণ্য বিক্রি করছি।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, মাছের দাম বরাবরের মতই চড়া। মাংসের দামেও কোনো পরিবর্তন নেই। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০-১৫৫ টাকায়, লাল লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২০০-২২০ টাকা কেজিতে, গরুর মাংস প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০০-৫৫০ টাকায় আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৮৫০ টাকা কেজি।

খাসির মাংস বিক্রেতা আসাদুল বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের দাম বাড়ানোর সুযোগ নেই। এখানে সব ধরনের ক্রেতারা আসেন। পাইকারি, খুচরা সব ধরনের ক্রেতাই রয়েছেন।

s
কারওয়ান বাজারের একটি দোকানে পণ্য সাজিয়ে রাখা হয়েছে, ছবি: বার্তা২৪.কম

 

নতুন বাজেটের কারণে মাংসের দামে পরিবর্তন আসার কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না তিনি।

ছুটির দিনে ঈদের পর প্রথম সাপ্তাহিক বাজার করতে এসে সরকারি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল কাদের বার্তা২৪.কমকে বলেন, ঈদের পরে প্রথম বাজারে এসেছি। আমার কাছে মনে হয়, কোনো পণ্যের দাম বাড়েনি। বাজারে সবজির সরবরাহ ভালোই মনে হলো। তবে মাছের বাজারটা একটু চড়া।

নতুন বাজেট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাজেটের কারণে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামে কোনো পার্থক্য চোখে পড়েনি। দেখা যাক, সামনের দিনে কেমন থাকে।

আপনার মতামত লিখুন :