Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

আমিরকে নিয়ে শচীনের সতর্কতা

আমিরকে নিয়ে শচীনের সতর্কতা
ক্রিকেটার মোহাম্মদ আমির ও শচীন টেন্ডুলকার / ছবি: সংগৃহীত
স্পোর্টস ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

পাকিস্তানের তারকা পেসার মোহাম্মদ আমির বিশ্বকাপে এখন ভয়ানক ফর্মে। তিন ম্যাচে দশ উইকেট নিয়ে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীদের তালিকায় অবস্থান করছেন সবার ওপরে। ভারত-পাকিস্তানের সবশেষ ম্যাচে অধিনায়ক বিরাট কোহলির বিপক্ষেও দারুণ সফল আমির। তার সাফল্য আসে ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে। যে ম্যাচে ভারতকে ১৮০ রানে হারিয়ে ট্রফি ঘরে তুলে পাকিস্তান।

তাই চির বৈরী দুই প্রতিবেশী ভারত-পাকিস্তানের বিশ্বকাপ ম্যাচকে সামনে রেখে কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার আমিরকে নিয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন কোহলিদের। রোববার (১৬ জুন) ওল্ড ট্রাফোর্ডে মহারণের এ দ্বৈরথকে সামনে রেখে পাকিস্তানের বিপক্ষে ভারতীয় দলকে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে মাঠে নামার তাগিদ দিয়েছেন লিটল মাস্টার।

ট্রেন্ট ব্রিজে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের ম্যাচ ভেসে যাওয়ার পর শচীন বলেন, ‘আমিরের বিপক্ষে ডট বল মোকাবিলা করা নেতিবাচক হিসেবে দেখি না। যদি সুযোগ আসে, তাহলে ভারতীয় ক্রিকেটারদের আমি শট খেলতে বলব। ইতিবাচক থাকতে বলব। এটা টিকে থাকার ব্যাপার নয়। ইতিবাচকভাবেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এ থেকে ভিন্ন কিছু করার প্রয়োজন নেই।’

অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদদের বিপক্ষে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ভারতের ব্যাটিংয়ের দায়িত্বটা রোহিত শর্মা ও বিরাট কোহলিকে কাঁধে তুলে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার শচীন। তিনি বলেন, ‘রোহিত ও কোহলিকে দীর্ঘ ইনিংস খেলতে হবে। পরিকল্পনাটা হওয়া উচিত এমন। বাকি ক্রিকেটাররা তাদেরকে ঘিরে খেলবে।’

শচীন আরও উল্লেখ করেন, পেস আক্রমণ দিয়ে ভারতীয় ইনিংসের শুরুর দিকে বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মাকে লক্ষ্যবস্তু বানাবে পাকিস্তান। নিজেদের ইনিংসের প্রাথমিক পর্যায়ে উভয় খেলোয়াড়কে এ নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

বলেন, ‘ব্যাটিং লাইন-আপে রোহিত ও কোহলি দুজনেই অনেক বেশি অভিজ্ঞ। কোনো সন্দেহ নেই পাকিস্তান তাদের ওপর নজর দেবে। ম্যাচটি তারা নিজেদের জন্য সহজ করে নিতে চাইবে। আমির ও ওয়াহাব রিয়াজ অবশ্যই একটু আগে ভাগেই উইকেট তুলে নিতে চাইবে।’

বিশ্বকাপের লিগ পর্বের সর্বশেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাকিস্তানের ৪১ রানে হারের ম্যাচে আমির ছিলেন সম্পূর্ণ আলাদা। টনটনে বাঁ-হাতি এ ফাস্ট বোলার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার (৫/৩০) উপহার দিয়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের দলীয় স্কোর ৩৫০ রানের নিচে আটকে রাখতে দেখিয়েছেন অগ্রণী ভূমিকা। যা একটা পর্যায়ে পাকিস্তানের জয়ের আশা জাগিয়েও তুলেছিল।

তিনটি বিভাগেই মেন ইন ব্লু শিবিরকে ইতিবাচক থাকার টিপস দিয়েছেন শচীন। বললেন, ‘তিন বিভাগেই আমাদের আক্রমণাত্মক হওয়া প্রয়োজন। শারীরিক ভাষাটা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি আত্মবিশ্বাস নিয়ে প্রতিরোধ করেন, তাহলে বোলার বুঝতে পারেন আপনি নিজের নিয়ন্ত্রণে আছেন।’

আপনার মতামত লিখুন :

অ্যান্টিগা টেস্টের লাগাম ভারতের হাতে

অ্যান্টিগা টেস্টের লাগাম ভারতের হাতে
কোহলি ও রাহানে উভয়ই হাফসেঞ্চুরি করেছেন, ছবি: সংগৃহীত

অ্যান্টিগা টেস্ট জয়ের অবস্থা প্রায় তৈরি করে ফেলেছে ভারত। তৃতীয়দিন শেষে ম্যাচে তাদের লিড ২৬০ রানের। হারিয়েছে মাত্র ৩ উইকেট। অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও অজিঙ্কা রাহানে উইকেটে সেট হয়ে ব্যাট করছেন, হাফসেঞ্চুরি নিয়ে। ৪০০ রানের টার্গেট দিয়ে ইনিংস ঘোষণার অপেক্ষায় ভারত। তবে সেই সঙ্গে তাদের সামনের দু’দিনের বৃষ্টির চিন্তাও মাথায় রাখতে হচ্ছে। সার্বিক হিসেব জানাচ্ছে, নাটকীয় কোনো কিছু না ঘটলে অ্যান্টিগায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাজ এখন একটাই-ম্যাচ বাঁচানো!

প্রথম ইনিংসে ভারতের চেয়ে খুব বেশি পিছিয়ে ছিল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শেষের দিকে অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ৩৯ রান করে ব্যবধান কমিয়ে আনেন। ভারতের ২৯৭ রানের জবাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গুটিয়ে যায় ২২২ রানে।

দ্বিতীয় ইনিংসেও যথারীতি ভারতের ওপেনাররা ব্যর্থ। আগারওয়াল ফিরলেন ১৬ রানে। রাহুল করলেন ৩৮। ওয়ানডাউনে চেতশ্বর পুজারাও টানা ব্যর্থ। ৮১ রানে ৩ উইকেট হারানো ভারতকে পথ দেখালেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও অজিঙ্কা রাহানে। দু’জনেই হাফসেঞ্চুরি করে দলকে দ্বিতীয় ইনিংসে বড় স্কোরের পথে নিয়ে চলেছেন। তাদের চতুর্থ উইকেট জুটিতে যোগ হয়েছে হার না মানা ১০৪ রান। তৃতীয়দিন শেষ করে ভারত ৩ উইকেটে ১৮৫ রান তুলে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ভারত ১ম ইনিং: ২৯৭/১০ (৯৬.৪ ওভারে, রাহুল ৪৪, আগরওয়াল ৫, পুজারা ২, কোহলি ৯, রাহানে ৮১, বিহারি ৩২, পান্থ ২৪, জাদেজা ৫৮, রোচ ৪/৬৬, গ্যাব্রিয়েল ৩/৭১, চেজ ২/৫৮)। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনি: ২২২/১০ (৭৪.২ ওভারে, ব্রাভো ১৮, চেজ ৪৮, হোপ ২৪, হেটমায়ার ৩৫, হোল্ডার ৩৯, ঈশান্ত ৫/৪৩)। ভারত দ্বিতীয় ইনিংস: ১৮৫/৩(৭২ ওভারে, রাহুল ৩৮, আগারওয়াল ১৬, পুজারা ২৫, কোহলি ৫১*, রাহানে ৫৩*, রোচ ১/১৮)
*তৃতীয়দিন শেষে।

লিভারপুলের জয়, ম্যানইউয়ের হার

লিভারপুলের জয়, ম্যানইউয়ের হার
মোহাম্মদ সালাহর উদযাপন (ইনসেটে মাতিপ), ছবি: সংগৃহীত

মাঠের লড়াইয়ে জ্বলে উঠলেন মোহাম্মদ সালাহ। পেলেন জোড়া গোল। মিশরীয় ফুটবল রাজপুত্রের এ দাপুটে পারফরম্যান্সে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ঘরের মাঠে লিভারপুল ৩-১ গোলে ধরাশায়ী করেছে আর্সেনালকে। তবে অঘটনের শিকার হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। নিজেদের মাঠে ক্রিস্টাল প্যালেসের কাছে ২-১ গোলে হার মেনেছে কোচ ওলে গুনার শোলসজায়েরের দল।

দ্য অ্যানফিল্ডে লিভারপুলকে ৪১তম মিনিটে এগিয়ে দেন জোয়েল মাতিপ। আট মিনিট বাদে পেনাল্টি থেকে গোল ব্যবধান ২-০ তে নিয়ে যান কোচ জুর্গেন ক্লপের শিষ্য সালাহ। ৫৮তম মিনিটে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন দ্য রেড শিবিরের এ তারকা ফরওয়ার্ড।

ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজার ৫ মিনিট আগে কোচ উনাই এমেরির গানারদের হয়ে একটি গোল শোধ করেন লুকাস তোরেইরা।

শনিবার রাতের অন্য ম্যাচে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ৩২তম মিনিটেই জর্ডান আইয়ুর গোলে এগিয়ে যায় অতিথি ক্রিস্টাল প্যালেস। ম্যাচ শেষ হওয়ার এক মিনিট আগে রেড ডেভিলদের সমতায় ফেরান ড্যানিয়েল জেমস।

কিন্তু ইনজুরি টাইমে ম্যানইউ ফুটবলারদের হৃদয় ভেঙে দেন ক্রিস্টাল প্যালেসের ফুলব্যাক প্যাট্রিক ফন অ্যানহোল্ট (৯০+৩)। তার জয়সূচক গোলেই ১৯৮৯ সালের পর প্রথম বারের মতো ওল্ড ট্রাফোর্ডে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল ক্রিস্টাল প্যালেস। কোচ রয় হজসনের কাছে যা ‘বীরত্ব গাঁথা জয়’।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র