Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

জাতিসংঘের ইকোসক’র সদস্য হলো বাংলাদেশ

জাতিসংঘের ইকোসক’র সদস্য হলো বাংলাদেশ
ছবি: সংগৃহীত
সালাহউদ্দিন আহমেদ
জাতিসংঘ থেকে


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ জাতিসংঘের ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কাউন্সিল- ইসিওএসওসি (অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ-ইকোসক) -এর সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দপ্তরে স্থানীয় সময় শুক্রবার (১৪ জুন) সকালে অনুষ্ঠিত বিশেষ বৈঠকে গোপন ভোটে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বাংলাদেশ আগামী তিন বছরের (২০২০-২০২২) জন্য সদস্য নির্বাচিত হলো।

নির্বাচনে বাংলাদেশ ১৯১ ভোটের মধ্যে ১৮১টি ভোটে পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ছাড়াও আরো চারটি দেশ ইসিওএসওসি’র সদস্য নির্বাচত হয়েছে। অন্য দেশ তিনটি হলো- থাইল্যান্ড, রিপাবলিক অব কোরিয়া ও চীন। নির্বাচনে থাইল্যান্ড ১৮৭, কোরিয়া ১৮৩ এবং চীন ১৭৭ ভোট পেয়েছে।

ECOSEC

উল্লেখ্য, জাসিংঘের সিকিউরিটি কাউন্সিলের পরেই ইকোসক-কে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ফোরাম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নির্বাচনে ইকোসক’র চারটি পদের জন্য উল্লিখিত চারটি দেশ ছাড়াও ইরাক প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে ইরাক তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেয়।

ECOSEC

জাতিসংঘের ইকোসক’র নির্বাচন শেষে তাৎক্ষনিক ব্রিফিংয়ে রাষ্ট্রদূত মাসুদ মিন মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, ইকোসক-তে এই জয়লাভের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক যাত্রার উন্নয়নে বিশ্ববাসীর প্রতিফল। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের অবস্থান আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল। এতে বাংলাদেশ আগামী ২০৩০ সালের জাতিসংঘের এসডিজি এজেন্ডা বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখবে।

ECOSEC

এক প্রশ্নের উত্তরে রাষ্ট্রদূত বলেন, জাতিসংঘে বাংলাদেশের আগামী দিনের টার্গেট হচ্ছে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ ফোরাম সিকিউরটি কাউন্সিলের সদস্যপদ লাভ করা। তবে এটি সহজ নয়, অনেক দেশ এই পদের জন্য এগিয়ে রয়েছে। এজন্য আমাদেরকে আরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। আমরা আশাবাদী। সেই সাথে ইকোসক’র প্রেসিডেন্টর পদটিই আমাদের লক্ষ্য।

আপনার মতামত লিখুন :

রাজশাহীতে ভগ্নিপতিকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে শ্যালকের ফাঁসি

রাজশাহীতে ভগ্নিপতিকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে শ্যালকের ফাঁসি
নিহত জাহিদুল হাসান, ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহীতে ভগ্নিপতিকে কুপিয়ে হত্যার অপরাধে রাজশাহীতে ফয়সাল কবির রনি (৩৫) নামে এক যুবকের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (২৫ আগস্ট) দুপুরে রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক অনুপ কুমার এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত রনি রাজশাহী নগরীর কাজলা কেডি ক্লাব পশ্চিমপাড়া মহল্লার হাবিবুর রহমানের ছেলে। তিনি পলাতক রয়েছেন।

মামলার আরেক আসামি হাবিবুর রহমানকে (৫০) বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। নিহত জাহিদুল হাসান বিপ্লব একই এলাকার এরশাদ আলীর ছেলে।

আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন এন্তাজুল হক বাবু। তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, মামলায় প্রত্যক্ষদর্শী পাঁচজন সাক্ষী ছিলেন। সমস্ত সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, ‘আসামি রনি গ্রেফতার হওয়ার পর উচ্চ আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন থেকে তিনি পলাতক। তার অনুপস্থিতিতেই রায় ঘোষণা করা হয়েছে। তবে রায় ঘোষণার সময় আসামি হাবিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তিনি বেকসুর খালাস পেয়েছেন।’

মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, হাবিবুর রহমানের জামাতা জাহিদুল হাসান বিপ্লবকে (৩৫) ২০১৭ সালের ৩ মার্চ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। বিপ্লবকে হত্যার ঘটনায় নগরীর মতিহার থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন তার বড় ভাই আসাদ ওরফে বুলবুল। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আদালতে চার্জশিট জমা দেন মতিহার থানার তৎকালীন পরিদর্শক মাহবুব আলশ। ওই চার্জশিট থেকে সাইদুর রহমান নামে আসামিকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

মামলার বাদী জানান, ১২ বছর আগে বিপ্লব ভালোবেসে রনির ছোট বোন লিজা খাতুনকে বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু এই বিয়ে মেনে নেননি রনি। এনিয়ে রনি ও বিপ্লবের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এরই মধ্যে বিপ্লব লিজার ঘরে একটি কন্যা সন্তানও হয়। তার নাম অংকিতা।

কিন্তু দ্বন্দ্বের কারণে বিয়ের ৮ বছর পর তাদের ডিভোর্স হয়ে যায়। ২০১৭ সালের ৩ মার্চ বাড়ির সামনে ইট রাখাকে কেন্দ্র করে বিপ্লব ও রনির মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে বিপ্লবকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে রনি পালিয়ে যান। এতে ঘটনাস্থলেই বিপ্লব মারা যান।

নান্দাইলে দু'গ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত

নান্দাইলে দু'গ্রুপের সংঘর্ষে যুবক নিহত
সাবেক ও বর্তমান ইউপি সদস্যের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়/ ছবি: সংগৃহীত

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় খারুয়া ইউনিয়নে বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্যের গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে সাইদুল (৩২) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

রোববার (২৫ আগস্ট) দুপুর ১টার দিকে ঐ ইউনিয়নের বিরাশি গ্রামের দেওয়ানগঞ্জ বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এ ঘটনায় সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নান্দাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনসুর আহাম্মদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নির্বাচনের হার-জিতসহ বিভিন্ন কারণে বর্তমান ইউপি সদস্য বিকুল ও সাবেক ইউপি সদস্য মুক্তুনের মধ্যে পূর্ব শত্রুতা ছিল। এর জেরেই মুক্তুনের গ্রুপের লোকজন বিকুল গ্রুপের ওপর হামলা চালালে সংঘর্ষ বাধে। এতে বিকুল গ্রুপের চার সদস্য মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হন।

পরে আহতদের উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে মারা যান সাইদুল।

অন্য তিনজনকে নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র