Barta24

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ দেওয়া শুরু

সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ দেওয়া শুরু
সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ দেওয়া শুরু, ছবি: সংগৃহীত
আসিফ শওকত কল্লোল
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

অর্থ বিভাগ থেকে সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ দেওয়া শুরু হয়েছে। স্বল্প পরিসরে দু’জন উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাকে গৃহঋণ প্রদানের মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

যদিও অক্টোবর মাস থেকে গৃহঋণ কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এ পর্যন্ত ৪টি সরকারি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে জমা নেওয়া আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই ও গৃহনির্মাণ ঋণ সেলের কার্যক্রম ঠিকমতো শুরু করতে তা পিছিয়ে যায়। অবশেষে ডিসেম্বরে দু’জন অতিরিক্ত সচিবকে সরকারের গৃহঋণ প্রদানের সরকারি আদেশ (জিও) জারি করে অর্থ বিভাগ।

সে হিসেবে বলা চলে, সরকারের গৃহঋণের কার্যক্রম ডিসেম্বর থেকে শুরু হলো। অর্থ বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, আপাতত স্বল্প পরিসরে এ কার্যক্রম শুরু করছে অর্থ বিভাগ। অচিরেই বৃহৎ আকারে ঋণ প্রদান কার্যক্রম শুরু করা হবে।

অর্থ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন থেকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড: ভূষণ চক্র বিশ্বাস এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনোয়ারুল ইসলাম সরকার ঋণ নিয়েছেন। তন্মধ্যে ড: ভূষণ চক্র বিশ্বাস ৩৫ লাখ টাকা ও আনোয়ারুল ইসলাম সরকার ৬৫ লাখ টাকা ঋণ গ্রহণ করেছেন।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমরা এখন স্বল্প পরিসরে ঋণ দিচ্ছি। ইতোমধ্যে আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন ২ জন চাকরিজীবীকে গৃহঋণ দেওয়ার বিষয়টি অনুমোদন দিয়েছে আর অর্থ বিভাগ সেই ঋণ অনুমোদন দিয়ে জিও করেছে। ওই দুইজনই প্রথম ঋণ পাবেন।’

তিনি আরও বলেন, ঋণ পাওয়া একজন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব, আরেকজন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব।

তিনি আরও বলেন, ‘গৃহঋণ নিতে ব্যাংক ও হাউজ বিল্ডিংয়ের কাছে প্রায় ২০ হাজার মতো আবেদন জমা পড়েছে। যদিও তাদের মধ্যে কতজন ঋণ পাওয়ার যোগ্য হবেন সে বিষয়ে অনেকে সন্দেহ পোষণ করেছেন।’

তিনি বলেন কর্মকর্তারা যেমন সহজে ঋণগ্রহণ করতে পারবে কিন্তু কর্মচারীরা এ ঋণ গ্রহণ করতে পারবে কি না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

অর্থ বিভাগ সূত্র জানায়, কর্মচারীরা গৃহঋণ নিতে পারবে না। কারণ তাদের বেতন কম। এ ছাড়া সুদের হার ও কিস্তির পরিমাণ বেশি হওয়ার কারণে কর্মচারীরা এ ঋণ নিতে পারবে না।

এ দিকে সদ্য স্থাপিত গৃহ নির্মাণ ঋণ সেলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে দু’জন কর্মকর্তা যোগ দিয়েছেন। তারা হলেন, জনপ্রশাসনের মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন-সচিব সৈয়দ নাসির এরশাদ ও সিনিয়র উপ-সচিব এলিস শরমিন।

জানা গেছে, সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ আবেদন এ পর্যন্ত ২০ হাজার ছাড়িয়েছে। নির্ধারিত ৪টি সরকারি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তথ্যে এ চিত্র উঠে এসেছে। সম্প্রতি এসব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ আবেদনের সংখ্যাসহ সামগ্রিক তথ্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে। আর ব্যাংকগুলোর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব আবেদন যাচাই-বাছাই শুরু করেছে। কিছু আবেদন অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানোও হয়েছে। আবেদন অনুযায়ী নির্দিষ্ট স্থানে রেডি ফ্ল্যাট আছে কি-না তা যাচাই করতে ব্যাংকগুলোর পক্ষ থেকে সরেজমিন পর্যবেক্ষণ করা হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে নির্ধারিত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বোর্ড থেকে সেটার অনুমোদন নিয়ে অর্থ বিভাগের গৃহঋণ সেলে পাঠানো হবে। পরে সেখান থেকে ঋণের ভর্তুকি নির্ধারণ করে অর্থ বিভাগের সম্মতি নিতে হবে।

প্রসঙ্গত, সরকারি চাকরিজীবীদের কম সুদে গৃহঋণ দিতে সোনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রূপালী এবং বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফিন্সাস কর্পোরেশনের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করে অর্থ মন্ত্রণালয়। ওই ঋণের সরল সুদহার হবে ১০ শতাংশ। যার মধ্যে ৫ শতাংশ ভর্তুকি দেবে সরকার। ইতোমধ্যে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ভর্তুকি বাবদ ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে সরকার। দেশে মোট ২১ লাখ সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী আছে, যাদের মধ্যে প্রায় ৭০ ভাগ কর্মচারী।

গত ১ অক্টোবর থেকে অনলাইনে গৃহ নির্মাণ ঋণের জন্য আবেদন জমা শুরু হয়। অভিন্ন আবেদনপত্রে ২৮টি তথ্য চাওয়া হয়, যার মধ্যে ই-টিন নম্বর দেওয়া বাধ্যতামূলক। এ ছাড়া প্রাইভেট প্লটের জন্য ৪-৬টি দলিল এবং সরকারি বা লিজ পাওয়া প্লটের জন্য ৪-৭ দলিল দিতে হচ্ছে আবেদনকারীদের।

উল্লেখ্য, গত ৩০ জুলাই সরকারি কর্মচারীদের গৃহনির্মাণ ঋণ নীতিমালা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করে অর্থ বিভাগ। নীতিমালা অনুযায়ী, চাকরি স্থায়ী হওয়ার পাঁচ বছর পর থেকে এবং সর্বোচ্চ ৫৬ বছর বয়স পর্যন্ত গৃহঋণের জন্য আবেদন করা যাবে। বেতন স্কেলের গ্রেডভেদে সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ এবং সর্বনিম্ন ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যাবে। ছয় মাস গ্রেস পিরিয়ডসহ ২০ বছরে ঋণ পরিশোধ করতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

নিজেদের টাকায় এসডিজি বাস্তবায়ন করব: পরিকল্পনা মন্ত্রী

নিজেদের টাকায় এসডিজি বাস্তবায়ন করব: পরিকল্পনা মন্ত্রী
নিউইয়র্ক সফর নিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রীর প্রেস বিফ্রিং/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বৈদেশিক ফান্ড না পাওয়া গেলে বাংলাদেশ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) নিজেরাই বাস্তবায়ন করবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ.মান্নান।

তিনি বলেছেন, 'ফাইন্যান্সিং এর বিষয়ে বিদেশ থেকে আমি অর্থ আশা করি না। অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নিজেদেরকেই এই অর্থ জোগার করতে হবে।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) দুপুরে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি ভবনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দফতরে গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফর ইফেক্টিভ ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন (জিপিইডিসি) এর সিনিয়র লেভেল মিটিং (এসএলএম) এবং হাই-লেভেল পলিটিক্যাল ফোরাম (এইচএলপিএফ) অন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট এ অংশগ্রহণের অভিজ্ঞতা সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন।

সফরের বিষয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ১০ দিনের সম্মেলনে আমরা বিভিন্ন সেমিনারে অংশ নিয়েছি। সাইডলাইন বৈঠক করেছি। এসডিজি নিয়ে আমরা কী করছি এটা তুলে ধরেছি, আরো কী করা যেতে পারে-সেটা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তবে এসব মিটিং করে বাইরে থেকে খুব বেশি অর্থ পাওয়া যাবে সেটা আশা করি না।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন,  এসডিজি যে কাজগুলো করবে এটি মূলত কল্যাণূলক কাজ। এসডিজি স্বাক্ষর না করলেও আমরা কল্যাণমূলক কাজগুলো করতাম। কিন্তু আমরা একসাথে কাজ করতে চাই।

তিনি বলেন, এসডিজিতে আমাদের প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষর করেছে আমরা কমিটমেন্ট রাখবো। আমাদের মূল বার্তা হল এসডিজি বাস্তবায়নে কমিটমেন্ট রাখা, নিজেদের অর্থায়নে সেটি বাস্তবায়ন করব আর সেজন্য আমাদের অর্থ জোগারে অভ্যন্তরীণ উৎস খুঁজে বের করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সচিব ড. শামসুল আলম, ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ, পরিকল্পনা সচিব মো: নুরল আমিনসহ আরো অনেকে।

 

১৬ দিনে বিনিয়োগকারীদের ৫৩ হাজার কোটি টাকার পুঁজি হাওয়া

১৬ দিনে বিনিয়োগকারীদের ৫৩ হাজার কোটি টাকার পুঁজি হাওয়া
ছবি: সংগৃহীত

চলতি বছরের ৩০ জুন গ্রামীণফোন লিমেটেডের প্রতিটি শেয়ারের দাম ছিল ৩৬৫ টাকা। গত ২২ জুলাই কোম্পানির সেই শেয়ার কেনা-বেচা হয়েছে ৩২২ টাকা ৫০ পয়সায়। অর্থাৎ ১৬ কার্যদিবসে গ্রামীণফোনের প্রতিটি শেয়ারের দাম কমেছে ৪২ দশমিক ৫০ টাকা।

একইভাবে ৩০ জুন স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের প্রতিটি শেয়ারের দাম ছিল ২৬৪ টাকা। গত ২২ জুলাই (সোমবার) কোম্পানির শেয়ার কেনা-বেচা হয়েছে ২৪৭ টাকা ৬০ পয়সা। অর্থাৎ এই কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে ১৬ দশমিক ৪০ টাকা।

অথচ এই দু’টি কোম্পানির মধ্যে গ্রামীণফোন (জিপি) হচ্ছে বহুজাতিক কোম্পানি। কোম্পানির ‘এ’ ক্যাটাগরিতে রয়েছে। কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য ভালো। প্রতিবছর ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে। তারপরও কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে আশঙ্কাজনক হারে।

একইভাবে দেশি কোম্পানিগুলোর মধ্যে প্রতি বছর ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানির রিজার্ভ রয়েছে। দেশি কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবেচেয়ে ভালো কোম্পানি হচ্ছে স্কয়ার ফার্মার শেয়ার। তারপরও কোনো কারণ ছাড়াই সেই কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে ১৭ টাকা। যা ২০১০ সালের ধসেও ঘটেনি।

ফলে ভালো কোম্পানির পাশাপাশি খারাপ কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দাম কমায় চলতি অর্থবছরে প্রথম ১৬ কার্যদিবসের দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বিনিয়োগকারীদের পুঁজি কমেছে ২৬ হাজার ৮৫৯ কোটি ৪৯ লাখ ৭১ হাজার টাকা। অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ও বিনিয়োগকারীদের পুঁজি কমেছে ২৬ হাজার ১৪৫ কোটি ৫৪ লাখ ৩ হাজার টাকা।

সব মিলে নতুন অর্থবছরে দেশের দুই পুঁজিবাজার থেকে বিনিয়োগারীদের পুঁজি হাওয়া হয়েছে ৫৩ হাজার কোটি টাকা। এই সময়ে ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ৪৫৫ পয়েন্ট। আর সিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ১ হাজার ৪১৮ পয়েন্ট। পাশাপাশি কমেছে লেনদেন ও বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

চলমান এই দরপতনে বিনিয়োগকারীরা ব্রোকারেজ হাউজ ছেড়ে মতিঝিলের রাস্তা নেমে আসতে শুরু করেছেন। তারা ১৬ কার্যদিবসের মধ্যে দরপতনের প্রতিবাদে ১১ কার্যদিবস মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন। পুঁজিবাজারকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীকে গত বৃহস্পতিবার ১৫ দফার স্মারকলিপি দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে, আগামী ঈদের পর প্রধানমন্ত্রী বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে দেখা করবেন।

নতুন এই দরপতনে ২৮ লাখ বিনিয়োগকারীর পাশাপাশি ব্রোকারেজ হাউজগুলো অস্তিত্ব সঙ্কটে পড়েছে। নাম না প্রকাশের শর্তে ডিএসইর একজন সদস্য বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ব্যবসা সঙ্কটে ব্রোকারেজ হাউজ টিকিয়ে রাখাই সম্ভব হচ্ছে না।

পুঁজিবাজারে চরম সঙ্কটে নতুন কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন কিংবা অর্থ মন্ত্রণালয়। ফলে দরপতন আরও হবে এমন শঙ্কায় চরমভাবে হতাশ বিনিয়োগকারীরা বলে মনে করেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র