টানা দ্বিতীয় দিনের মত বড় ধরণের দরপতন পুঁজিবাজারে

সেন্ট্রাল ডেস্ক ৪

  • Font increase
  • Font Decrease
ঝুঁকি কমাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থার মধ্যে টানা দ্বিতীয় দিনের মত বড় দরপতন হয়েছে দেশের দুই পুঁজিবাজারে। সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দেশের উভয় পুঁজিবাজারে ব্যাপক দরপতন হয়েছে। দিনভর সূচক পতন শেষে এদিন প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক কমেছে ৮৮ পয়েন্ট। অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক কমেছে ১৫৭ পয়েন্ট। সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম এবং বাজার মূলধন। ডিএসইর তথ্যমতে, এদিন বাজারে ১২ কোটি ৩৯ লাখ ২৮ হাজার ৬০৮টি সিকিউরিটিজের হাতবদল হয়েছে। এতে লেনদেন দাঁড়িয়েছে ৪৭২ কোটি ২৭ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এর আগের দিন লেনদনে হয়েছিলো ৩৯৯ কোটি ২৬ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। তার আগের দিন লেনদেন হয়েছিলো ৪১৩ কোটি ১৬ লাখ ৭ হাজার টাকা। ডিএসই’র তিন সূচকের মধ্যে ব্রড ইনডেক্স আগের কার্যদিবসের চেয়ে ৮৮ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৩৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। প্রধান সূচকের পাশাপাশি ডিএস-৩০ মূল্য সূচক দশমিক ২৮ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ২৩৮ পয়েন্ট এবং ডিএসইএক্স শরিয়াহ সূচক দশমিক ১৫ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৯৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৩১টির, কমেছে ২৭৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির। অপরদিকে সিএসইতে সার্বিক সূচক আগের কার্যদিবসের চেয়ে ১৫৭ পয়েন্ট কমে ১১ হাজার ২৯২ পয়েন্টে অবস্থান করছে।সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৩ কোটি ৪৪ লাখ ৩১ হাজার ১১৭ টাকা। এর আগের দিন লেনদেন হয়েছিলো ৩২ কোটি ১৪ লাখ ৫ হাজার টাকার। এ বাজারে লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৬টির, কমেছে ২০০টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। বাংলাদেশ ব্যাংক সোমবার জানুয়ারি-জুন মেয়াদের যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করে, সেখানে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহে লাগাম টানার ইংগিত আসে। পরদিন মঙ্গলবার ডিএসইর প্রধান সূচক ০.৭৮ শতাংশ এবং সিএসইর সার্বিক সূচক প্রায় ১ শতাংশ পড়ে যায়। এর মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক ‘বেপরোয়া’ ব্যাংকিংয়ে থাকা ব্যাংকগুলোর লাগাম টেনে ধরতে ঋণ-আমানত অনুপাত এডিআর রেশিও) কমানোর ঘোষণা দেয়। নতুন নিয়মে সাধারণ কোনো ব্যাংক ১০০ টাকা আমানত গ্রহণ করলে ৮৩ টাকা ৫০ পয়সার বেশি ঋণ বিতরণ করতে পারবে না। আর ইসলামী ব্যাংকগুলো ১০০ টাকা আমানত সংগ্রহ করলে ৮৯ টাকা ঋণ দিতে পারবে। এতদিন এই দুই ধরনের ব্যাংকের ক্ষেত্রে এডিআর ছিল ৮৫ শতাংশ এবং ৯০ শতাংশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওই আদেশের প্রেক্ষাপটে বুধবার সকাল থেকেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক পড়তে থাকে। দুপুরের পর সূচকে সামান্য ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষণ দেখা গেলেও তা তেমন জোরালো হয়নি।  

আপনার মতামত লিখুন :