Alexa

রিজার্ভ চুরির অর্থ ফেরাতে আগামী মাসেই মামলা

রিজার্ভ চুরির অর্থ ফেরাতে আগামী মাসেই মামলা

বাংলাদেশ ব্যাংক ভবন, ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া রিজার্ভের অর্থ ফিরিয়ে আনতে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে মামলা করবে সরকার। ইতোমধ্যেই আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম ও বাংলাদেশ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যুক্তরাষ্ট্র সফর করে এসেছেন। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফইউইউ) প্রধান আবু হেনা রাজী হাসান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আগামী এক বছরের মধ্যে রিজার্ভের অর্থ চুরি যাওয়া অর্থ ফিরিয়ে আনতে ফিলিপাইনের আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে সরকার। ২০২০ সালের ১৪ ফেব্রয়ারির পর সরকার আর মামলা করতে পারবে না। সাধারণত চুরির ঘটনায় ৩ বছরের মধ্যে মামলা করতে হয়।’

গত মাসে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ‘রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের আরসিবিসির পাশাপাশি নিউইর্য়কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের (ফেড) বিরুদ্ধেও মামলা করা হবে। কারণ প্রাথমিক লেনদেনটি ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে বাংলাদেশের নাম উল্লেখ করেই করা হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে (নিউইয়র্ক ফেড) রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের হিসাব থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কায় যাওয়া ১ কোটি ৪৫ লাখ ডলার ও ফিলিপাইনে যাওয়া ১ কোটি ৪৫ লাখ ডলার ফেরত আনা সম্ভব হয়। বাকি ৬ কোটি ৬৪ লাখ ডলার গত দুই বছরে ফেরত আনা সম্ভব হয়নি।

এ দিকে রিজার্ভ চুরির ঘটনায় দায়িত্ব অস্বীকার করে আরসিবিসি জানিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘অবহেলা ও অসাবধানতার’দায় বাংলাদেশকেই নিতে হবে। চুরি হওয়া অর্থ ফিলিপাইন থেকে অন্য দেশে পাচার হয়ে গেছে। ফলে বাংলাদেশকে এই অর্থ ফেরত দেওয়ার কোনো চিন্তা ভাবনা তাদের নেই।

অর্থনীতি এর আরও খবর