Alexa

টেক্সটাইলে শ্রম পরিবেশ অশান্তের আশঙ্কা, নীরব মালিকপক্ষ

টেক্সটাইলে শ্রম পরিবেশ অশান্তের আশঙ্কা, নীরব মালিকপক্ষ

আন্দোলনরত শ্রমিকরা, ছবি: বার্তা২৪

ঊর্মি মাহবুব, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম

বিভিন্ন এলাকায় টেক্সটাইল খাতের শ্রমিকরা আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তার কিছুটা আভাস পাওয়া গেছে রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) গাজীপুরে মহাসড়ক অবরোধের ঘটনায়। কিন্তু এ বিষয়ে একেবারেই নীরব ভূমিকা পালন করছেন মালিকপক্ষ। এতে বিক্ষোভের আগুন আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন এই খাতের সংশ্লিষ্টরাই।

রোববার সকালে গাজীপুরের মহাসড়ক প্রায় এক ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখে টেক্সটাইল কারখানার শ্রমিকরা। তাদের দাবি, গত কয়েক বছর ধরে টেক্সটাইল শ্রমিকরা বেতন বৃদ্ধির দাবি করে আসছেন। কিন্তু মালিকপক্ষ শ্রমিকদের দাবি কর্ণপাত করেননি। ফলে বেতন বৃদ্ধির দাবিতে রাস্তায় নামতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

গাজীপুর গার্মেন্টস শিল্প ও টেক্সটাইল শিল্প অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় বাড়ি ভাড়া তুলনামূলক বেশি। তাছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষের দামও আগের থেকে বেড়েছে। বারবার মালিকপক্ষের কাছে বেতন বৃদ্ধির দাবি জানায় টেক্সটাইল শ্রমিকরা।

জবাবে মালিক কর্তৃপক্ষ তাদের জানান, গার্মেন্টস শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পেলে টেক্সটাইল শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি পাবে। গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি পেলেও টেক্সটাইল শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পায়নি। তাই নিজের অধিকার আদায়ে যে কোনো সময় শ্রমিকরা রাস্তায় নামবে বলে জানান গাজীপুরের কোনাবাড়ির যমুনা ডেনিমের শ্রমিক দিলীপ।

রোববার টেক্সটাইলের শ্রমিকরা রাজপথে নামলে টনক নড়ে মালিকপক্ষের। বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) উচ্চ পদস্থ নেতৃবৃন্দ এ বিষয়ে বৈঠকও করেছে বলে জানায় সংগঠনটির এক কর্মকর্তা।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে বিটিএমএ এর এক উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা বার্তা২৪.কমকে বলেন, আসলে গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের বেতন কাঠামো যে পুনঃবিবেচনা করা হবে তা কেউ ভাবেনি। কিন্তু সরকারের হস্তক্ষেপে গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের কিছু গ্রেডের বেতন বৃদ্ধি পেয়েছে। টেক্সটাইল শ্রমিকরা যখন দেখছেন তাদের নিম্নতম মজুরি ৬ হাজার ৩৫৪ টাকা। আর গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ৮ হাজার ৩শ টাকা। সে কারণে তারা বেতন বৃদ্ধির দাবি জানাচ্ছে। কিন্তু টেক্সটাইল মালিকরা বেতন বৃদ্ধিতে রাজি নয়। এ বিষয়ে বিটিএমএ এর সভাপতি ম্যাকসন্স স্পিনিং মিলস লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলী খোকন একাধিক বৈঠক করেছেন সদস্যদের সাথে।

তবে এসব বিষয়ে একেবারেই চুপ রয়েছেন মালিকপক্ষ। বিটিএমইএ এর সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী বলেন, ‘স্যার এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করবেন না। তিনি মিটিংয়ে ব্যস্ত আছেন।’

অন্যদিকে, শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির এই আন্দোলনে সব ধরণের সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছেন টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন এর সাধারণ সম্পাদক তপন সাহা।

তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘টেক্সটাইল শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির আন্দোলনটি প্রয়োজন ছিল। ৬ হাজার ৩৫৪ টাকায় কিছুতেই একজন মানুষ তার পরিবার পরিজন নিয়ে চলতে পারেন না। কিন্তু মালিকপক্ষের সে দিকে নজর নেই। শ্রমিকদের দিয়ে তারা মুনাফা আয় করবেন। কিন্তু শ্রমিকদের সময়োপযোগী নিম্নতম মজুরিও দিতে নারাজ তারা। এখনই এ সমস্যার সমাধান না করা গেলে এই আন্দোলন আরও বেড়ে যেতে পারে। এই আন্দোলনে আমরা শ্রমিকদের পাশে আছি। শ্রমিকদের প্রয়োজনীয় সকল সহায়তা দেওয়া হবে।

অর্থনীতি এর আরও খবর