Barta24

রোববার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

বিজিএমইএ’র ইমেজ পুনরুদ্ধারসহ স্বাধীনতা পরিষদের ১২ অঙ্গীকার

বিজিএমইএ’র ইমেজ পুনরুদ্ধারসহ স্বাধীনতা পরিষদের ১২ অঙ্গীকার
ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা পরিষদের প্রার্থীরা/ ছবি: বার্তা২৪.কম
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আসছে ৬ এপ্রিল বিজিএমই-এর ২০১৯-২১ সালের নির্বাচনে নির্বাচিত হলে পোশাক শিল্পের হারানো ইমেজ পুনরুদ্ধার ও দেশ-বিদেশের মানুষের মধ্যে নেতিবাচক ধারণা দূর করাসহ ১২ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেছেন স্বাধীনতা পরিষদের আহ্বায়ক ডে‌নিম প্র‌সে‌সিং প্ল্যান্টের মা‌লিক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।

বৃহস্পতিবার (২১মার্চ) রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে সংগঠনটির আয়োজিত 'তৈরি পোশাক শিল্পের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ‘ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় জাহাঙ্গীর আলম এই ইশতেহার ঘোষণা করেন। এ সময় সংগঠনের অন্য নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘অনেকেই মনে করেন, গার্মেন্টস মালিকরা ভালো আছেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, দেশের অধিকাংশ মালিকের নিজেদের বাড়ি-গাড়ি ব্যাংকে বন্ধক রাখা আছে। তারা শ্রমিকদের বেতন দিতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘অনেক বাধার পরও পাঁচ বছর পর বিজিএমইএ-তে নির্বাচন হচ্ছে, সদস্যরা অন্তত এবার ভোট দিতে পারছেন। ভোটাররা পছন্দ মতো নেতা নির্বাচন করুক। জয়-পরাজয় বিষয় না।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন শতভাগ সুষ্ঠু হবে, এ ব্যাপারে আমি আশাবাদী।’

স্বাধীনতা পরিষদের ১২ দফা অঙ্গীকারের মধ্যে আছে- পোশাক শিল্পের ভাবমূর্তি দেশ ও বিদেশে সঠিকভাবে তুলে ধরা, প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছাতে শিল্প উদ্যোক্তা তৈরি করা ও পরিবর্তনশীল বাজারের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে বহুমুখী পণ্য তৈরি করতে গবেষণা সেল' গঠন করা।

ইশতেহারে আরও আছে- বিজিএমইএ এর সকল স্ট্যান্ডিং কমিটি কার্যকর করা এবং কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি ও সেবা দেওয়ার মানসিকতা তৈরি করা, গার্মেন্টস শিল্পকে সরাসরি ১০ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানানো ইত্যাদি।

জাহাঙ্গীর আলম সহ স্বাধীনতা পরিষদ থেকে ১৮ জন পরিচালক পদে নির্বাচন করছেন। তারা হলেন: ডিলাক্স অ্যাপারেলসের মো. দেলোয়ার হোসেন, অলিরা ফ্যাশন‌সের মো. হুমায়ুন রশিদ জনি,  নর্দান করপোরেশনের রফিক হাসান, এলুরিং ফ্যাশনসে মোঃ সাইফুল ইসলাম, লিবাস স্টিচের মো. শওকত হোসেন, হানজালা টেক্সটাইলস পার্কের লে. কর্নেল (অব)খন্দকার ফরিদুল আকবর, ভ্যান হ্যা‌পেন ফ্যাশন এর মো. জাহাঙ্গীর কবির।

এছাড়াও আছেন জেইন অ্যাপা‌রেল‌সের  মো. জাহিদ হাসান, অ্যাপারেলস বাংলা সো‌সিং‌য়ের মো. শ‌রিফুল আলাম  চৌধুরী, এ এস গা‌র্মে‌ন্টেস অ্যান্ড টেক্সটাইল‌সের কাজী আবদুস সোবহান, টপ টেক্স সো‌য়েটারসের জহিরুল ইসলাম, জেট এ অ্যাপারেলস এর কাজী মাহয্যা‌বিন মমতাজ,‌ ডি‌কে গ্লোবাল ফ্যাশনসের মাহমুদ মাহমুদ হোসাইন,সাউথ ও‌য়েস্ট ক‌ম্পো‌জিটের মো. হো‌সেন সাব্বির মাহমুদ, ও‌য়েমার্ট অ্যাপারেলস আয়েশা আক্তার, প্রিয়াংকা ফ্যাশনসের ‌মো. ওয়ালীউল্লাহ ও গোল্ডেন ডাক অ্যাপারেলসের ওমর নাজিম হেকমত। ইশতেহার ঘোষণার সময় তারা সবাই উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

৫১ কোটি টাকার স্বর্ণ বৈধ করেছেন ব্যবসায়ীরা

৫১ কোটি টাকার স্বর্ণ বৈধ করেছেন ব্যবসায়ীরা
স্বর্ণ মেলায় ব্যবসায়ীরা, ছবি: বার্তা২৪.কম

তিন দিনব্যাপী ‘স্বর্ণ মেলা-২০১৯'র প্রথম দুদিনে মোট ৫১ কোটি টাকার সোনা, রূপা ও ডায়মন্ড বৈধ করেছেন ব্যবসায়ীরা। ঢাকা ও চট্টগ্রামের ৩৬৬ জন ব্যবসায়ী ভরি প্রতি এক হাজার টাকা করে কর দিয়ে অবৈধ স্বর্ণ বৈধ করেছেন। এছাড়া ডায়মন্ডের ভরি প্রতি কর হচ্ছে ৬ হাজার ও রুপার ৫০ টাকা।

বিষটি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা। তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'স্বর্ণ মেলায় কেবল ঢাকাতেই ২৫০ জন স্বর্ণ ব্যবসায়ী ৫০ কোটি টাকার বেশি স্বর্ণ বৈধ করেছেন। এর মধ্যে সোমবার ১৭৮ জন ২৫ কোটি টাকার বেশি দিয়েছেন।'

মেলার প্রথমদিন রোববার (২৩ জুন) বাজুস সভাপ‌তি গঙ্গা চরণ মালাকার, সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালাসহ ৭২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ২৫ কোটি টাকার স্বর্ণ বৈধ করেছেন বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য (কর ও প্রশাসন) কানন কুমার রায়।

তিনি বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'মেলায় ব্যবসায়ীদের সাড়া পেয়েছি। প্রথমদিন ব্যবসায়ীরা কর দিতে নয়, বুঝতে এসেছেন। অনেকে ফরম নিয়েছেন। আগামী দুদিন প্রত্যাশা অনুসারে মেলায় কর দেবেন ব্যবসায়ীরা।'

আরও পড়ুন: ২৫ কোটি টাকার স্বর্ণ বৈধ করেছেন ব্যবসায়ীরা

এ ছাড়াও বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রামে ৬৬ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মোট ৬৫ লাখ ৬৪ হাজার টাকার স্বর্ণ বৈধ করেছেন। এনবিআর ও বাজুসের যৌথভাবে আয়োজিত মেলায় ৪০০ কোটি টাকা কর আহরণ হবে বলে প্রত্যাশা করা হয়েছে।

২৩ জুন শুরু হওয়া এ মেলা চলবে মঙ্গলবার (২৫ জুন) পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মেলা চলবে। দেশের আট বিভাগে এই স্বর্ণ মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

রোববার সকালে মেলার উদ্বোধন করেন এনবিআরের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি বলেন, 'তৈ‌রি পোশাক ও চামড়া শি‌ল্পের মতো যারা স্ব‌র্ণের কাঁচামাল রফতা‌নির উদ্দেশে আমদা‌নি কর‌বেন, তা‌দের বন্ড সু‌বিধা‌ দেওয়া হবে।'

এ সময় এন‌বিআর চেয়ারম্যান আরও ব‌লেন, 'যারা বন্ড সু‌বিধা পা‌বেন, তাদের আমদানি করা সব স্বর্ণ রফতা‌নি কর‌তে হ‌বে। বন্ড সু‌বিধায় আনা স্বর্ণ খোলা বাজা‌রে বি‌ক্রি করা যা‌বে না।'

সাধারণ মানুষ বি‌দেশ থে‌কে স‌র্বোচ্চ ১০০ গ্রাম স্বর্ণ আমদা‌নি কর‌তে পার‌বেন। এর চে‌য়ে এক গ্রামও বে‌শি আ‌নলে তা বা‌জেয়াপ্ত করা হ‌বে। ত‌বে ব্যবসায়ীরা বি‌দেশ থে‌কে স্বর্ণালঙ্কার আমদা‌নি কর‌তে পার‌বে না ব‌লে জানান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

প্রতারণার উদ্দেশে ‘ক্যারিয়ার বিডি’র বিজ্ঞাপন

প্রতারণার উদ্দেশে ‘ক্যারিয়ার বিডি’র বিজ্ঞাপন
ছবি: সংগৃহীত

‘ক্যারিয়ার বিডি লিমিটেড প্রকল্পের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিভাগে চাকরি’ শিরোনামে বিভিন্ন পদে ১৯০ জন নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। যা দৈনিক জনকণ্ঠে মার্চের ১৯ তারিখে প্রকাশিত হয়।

এ বিজ্ঞপ্তির সঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের কোনো সম্পর্ক নেই। দেশের নিরীহ মানুষের সঙ্গে প্রতরণা করাই এর উদ্দেশ্য বলে দাবি করেছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

‘ক্যারিয়ার বিডি লিমিটেডে’র এ হীন প্রচেষ্টার সঙ্গে জড়িতদের সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ নিকটস্থ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থায় বা থানায় এবং বিদ্যুৎ বিভাগের ৯৫১৩৩৬৪ নম্বরে অথবা [email protected] ই-মেইলে জানানোর জন্য অনুরোধ করেছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

এছাড়া গত ১৯ মার্চ দ্যা ডেইলি স্টার ও দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকায় প্রকাশিত বিদ্যুৎ বিভাগের বিভিন্ন পদে ১৭টি শূন্য পদ পূরণের জন্য দেওয়া বিজ্ঞপ্তি অনুসারে নিয়োগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র