Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

হাইকোর্ট ঘোষিত ভেজাল পণ্যগুলোর দেদারছে বিক্রি বাজারে

হাইকোর্ট ঘোষিত ভেজাল পণ্যগুলোর দেদারছে বিক্রি বাজারে
হাইকোর্ট ঘোষিত ভেজাল পণ্যগুলোর দেদারছে বিক্রি বাজারে/ছবি: বার্তা২৪.কম
তৌফিকুল ইসলাম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) এর পরীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে নামিদামি প্রতিষ্ঠানের ৫২টি পণ্য ভেজাল ও নিম্নমানের। হাইকোর্ট এ পণ্যগুলো বাতিল ঘোষণা করে বাজার থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

হাইকোর্টের নির্দেশের পরও এখনো বাজারে সিটি গ্রুপ, এসিআই, ড্যানিশ, প্রাণসহ নামিদামি এসব প্রতিষ্ঠানের পণ্যগুলো নিম্নমানের প্রমাণিত হওয়ার পরেও বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ও দেদারছে বিক্রি হচ্ছে।

সোমবার (১৩ মে) সকালে রাজধানীর টাউন হল এবং মোহাম্মদপুরের বাজার ঘুরে এইসব নিম্নমানের পণ্য মজুদ ও বিক্রি করতে দেখা গেছে। বাজারে সিটি গ্রুপের তীর সরিষার তেল, এসিআই এর লবণ, মসলা, মোল্লা লবণ, প্রাণের হলুদ গুঁড়া, ড্যানিশের হলুদ গুঁড়া, কাশেন ফুডের সান চিপস, বনফুলের লাচ্ছা সেমাই, প্রাণের লাচ্ছা সেমাইসহ হাইকোর্ট ঘোষিত ৫২টি ভেজাল পণ্যই বিক্রি হচ্ছে।

টাউনহলের মুদি দোকানদার রমজান আলী বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আমরা তো জানিনা এসব পণ্য ভেজাল ও নিম্নমানের ঘোষণা করা হয়েছে । কোম্পানিগুলো তো আমাদের কিছু জানায় নি। আমরা মাল কিনি বিক্রি করি আমাদের তো এগুলো জানবার কথা না।'

বাজার করতে আসা নিলয় হাসানের কাছে জানতে চাইলে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'এসিআই এর মত এরকম নামিদামি কোম্পানির পণ্য যদি ভেজাল ও নিম্নমানের হয় আমাদের মত সাধারণ ক্রেতারা ভরসা রাখবে কাদের উপরে। তাই আমি মনে করি অচিরেই এ সব নামিদামি কোম্পানি বন্ধ করে দেয়া উচিত অপসারণ করা উচিত এদের নিম্নমানের পণ্যগুলো বাজার থেকে।'

টাউন হলের আরেক ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আপনারা আমাদের কাছে কেন এসেছেন। যেসব কোম্পানিগুলো এসব নিম্নমানের পণ্য উৎপাদন করে এবং আমাদের সাপ্লাই দেয় না তাদের কাছে যান। আমরা সাধারণ বিক্রেতা ক্রেতারা চাই আমরা বিক্রি করি, এখানে আমাদের কোন লাভ নাই। আর সরকার যদি এসব পণ্য নিষিদ্ধ করে থাকে আমরা অবশ্যই সে সব পণ্য বিক্রি করব না।সবার আগে কোম্পানিগুলোর উৎপাদন বন্ধ করুন তাহলে বাজারে নিম্নমানের পণ্য আসবে না।'

সরকারি চাকরি করেন মোহাম্মদ রাজা মিয়া নিত্য প্রয়োজনীয় বাজার করতে এসেছেন জানতে চাইলে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'বিএসটিআই যদি এসব পণ্য নিম্নমানের ঘোষণা করে থাকে তাহলে বাজারে আসছে কিভাবে। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আরও নজরদারি করা উচিত। জনগণকে ভেজাল মুক্ত পণ্য নিশ্চিত করা তাদের দায়িত্ব।'

মোহাম্মদপুর মুদির দোকানদার মিম এন্টারপ্রাইজের মালিক নজরুল ইসলাম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আমি শুনেছি কিছু পণ্যকে নিম্নমানের ঘোষণা করা হয়েছে। আমার দোকানে কিছু এসব পণ্য আছে। তবে খুব শীঘ্রই কোম্পানিকে এসব পণ্য ফেরত দিবো। তবে এসব পণ্য যে নিম্নমানের তা কোম্পানি থেকে আমাদের জানানো হয়নি।'

বাজার করতে আসা মৌসুমি আক্তার বার্তা২৪.কম-কে অভিযোগ করে বলেন, 'রমজান আসলেই এমন তোড়জোড় দেখা যায়। যেসব বড় বড় প্রতিষ্ঠানের পণ্য নিম্নমানের তাদের কিছুই হবে না। দুইদিন পরে আবার এসব পণ্য ঠিকই বাজারে পাওয়া যাবে।'

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বার্তা২৪.কম-কে বলেন, '৫২টি পণ্য ভেজাল ঘোষণা করে বাতিল করা অবশ্যই ভালো উদ্যোগ। যেসব কোম্পানি ভোক্তাদের জন্য মানসম্পন্ন পণ্য সরবরাহ করেন না তাদের জন্য এটা অশনিসংকেত এবং ভোক্তাদের জন্য সুবার্তা।'

এদিকে গত ৩ মে ও ৪ মে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে উল্লেখ করা হয়েছে, বিএসটিআই সম্প্রতি ২৭ ধরনের ৪০৬টি খাদ্য পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছে। এর মধ্যে ৩১৩টি পণ্যের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে যেখানে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি পণ্য নিম্নমানের ও ভেজাল রয়েছে। গত ২ মে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের এ রিপোর্ট প্রকাশ করে বিএসটিআই।

আরও পড়ুন: প্রাণ-এসিআইসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২ ভেজাল পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশ

আপনার মতামত লিখুন :

সূচক বেড়েছে উভয় পুঁজিবাজারে

সূচক বেড়েছে উভয় পুঁজিবাজারে
ছবি: সংগৃহীত

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার (১৯ আগস্ট) সূচক বেড়ে শেষ হয়েছে লেনদেন কার্যক্রম। ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১০ পয়েন্ট এবং সিএসইর প্রধান সূচক সিএসসিএক্স বেড়েছে ২২ পয়েন্ট।

এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৮৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। গত কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩২৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা। আর সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২২ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। গত কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১৫ কোটি ৫ লাখ শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

ডিএসই ও সিএসইর ওয়েবসাইট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে সূচক বাড়ে। লেনদেনের শুরু হয় সাড়ে ১০টায়, শুরুতেই সূচক কমে যায়। প্রথম ৫ মিনিটেই ডিএসইএক্স সূচক বাড়ে ১২ পয়েন্ট। এরপর থেকে সূচক বাড়ার প্রবণতা বাড়তে থাকে। সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে সূচক বাড়ে ২২ পয়েন্ট। সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক ২৩ পয়েন্ট বাড়ে। সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে সূচক ২৪ পয়েন্ট বাড়ে। সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে সূচক ২২ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১১টায় সূচক ২৩ পয়েন্ট বাড়ে। দুপুর ১২টায় সূচক বাড়ে ১৯ পয়েন্ট। দুপুর ১টায় সূচক ১২ পয়েন্ট বাড়ে। দুপুর ২টায় সূচক ১৪ পয়েন্ট বাড়ে এবং বেলা আড়াইটায় লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ২২৭ পয়েন্টেই অবস্থান করে।

অন্যদিকে, ডিএসই-৩০ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৮৪৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ২০২ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৮৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

লেনদেন শেষে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫২টির, কমেছে ১৫২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৮টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

সোমবার দাম বৃদ্ধির ভিত্তিতে ডিএসই’র শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় আছে- কেপিসিএল, ওরিয়ন ফার্মা, জেএমআই সিরিঞ্জ, মুন্নু সিরামিকস, কপারটেক, সিনোবাংলা, সিলকো ফার্মা, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, বঙ্গজ এবং স্কয়ার ফার্মা।

সিএসই

অন্যদিকে, লেনদেন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএসইএক্স ২২ পয়েন্ট বেড়ে ৯ হাজার ৭১৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে। সিএসই-৩০ সূচক ৫৩ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ৯৩ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ৪১ পয়েন্ট বেড়ে ১৫ হাজার ৯৯৮ পয়েন্টে অবস্থান করে।

লেনদেন শেষে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২২ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

এদিন দাম বাড়ার ভিত্তিতের সিএসই’র শীর্ষ কোম্পানিগুলো হলো- তাল্লু স্পিনিং, মেঘনা সিমেন্ট, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সমরিতা হাসপাতাল, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ওরিয়ন ইনফিউশন, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, ইস্টার্ন টেক্সটাইল এবং কেয়া কসমেটিকস।

বিনিয়োগকারী শূন্যে নিষ্প্রাণ পুঁজিবাজার

বিনিয়োগকারী শূন্যে নিষ্প্রাণ পুঁজিবাজার
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের বাজেট ও বাংলাদেশে ব্যাংকের মুদ্রানীতি ঘোষণাসহ একের পর এক ইস্যুতে ভয়াবহ আস্থা সংকটে পড়েছে পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীরা। ফলে নতুন বিনিয়োগকারী বাজারে আসার পরিবর্তে গত মাসে প্রায় ৩ লাখ বিনিয়োগকারী বাজার ছেড়েছে। আর তাতে বিনিয়োগকারী শূন্য হয়ে পড়েছে দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের ব্রোকারেজ হাউজগুলো।

সোমবার (১৯ আগস্ট) মতিঝিলের ব্রোকারেজ হাউজগুলোতে গিয়ে দেখো গেছে, অধিকাংশ হাউজগুলোতে বিনিয়োগাকারী শূন্য। হাতেগোনা হাউজে ট্রেডারের সঙ্গে দু-চারজন বিনিয়োগকারী ব্রোকারেজ হাউজগুলোর কম্পিউটারে স্ক্রিনের সামনে বসে রয়েছেন। তার মধ্যে দু-একজন শেয়ার কেনা-বেচা করছেন। বেশির ভাগ বিনিয়োগকারীই হতাশা প্রকাশ করছেন। বাজার ভালো হবে কি না জানতে চাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: চামড়া খাতের শেয়ারের দাম অর্ধেক কমেছে

বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভে পুঁজিবাজারের ভাবমূর্তি..

ডিএসই এনেক্স ভবনের ব্রাক ইপিএলের বিনিয়োগকারী রিপন সাহা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে মাঠে মারা। তিনি বলেন, বাজার এতো খারাপ হবে ভাবতেও পারিনি। বাজার ভালো হওয়ার নতুন কোনো লক্ষণও দেখছি না।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566221591043.jpg

রিপন বলেন, এখন শেয়ারের দাম কম বলে গত ৬ মাসে ৭ লাখ টাকা নতুন করে বিনিয়োগ করেছি। কিন্তু সেই শেয়ারগুলোর দাম কমে এখন ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকায় ঠেকেছে। ১৫ বছর বিনিয়োগের সময়ে সবচেয়ে খারাপ সময় পার করছি।

নাম না প্রকাশের শর্তে লঙ্কা বাংলা সিকিউরিটিজের বিনিয়োগকারী বলেন, এটা কি কোনো বাজার হলো। ভালো কোম্পানি দেখে বিনিয়োগ করলেও লস হয়। আসলে বাজারটা গোটা কয়েক সিন্ডিকেটের দখলে। সরকারের উচিত বাজারটাকে বাঁচানো। কারণ পুঁজিবাজার ভালো না থাকলে দেশের অর্থনীতিও ভালো থাকবে না।

ডিএসইর একজন পরিচালক বলেন, বিনিয়োগকারী নেই, লেনদেনেও নেই। সুতরাং আমাদের ব্যবসাও নেই। বেশিরভাগ ব্রোকারেজ হাউজগুলো শূন্য। বাটি চালান দিয়েও বিনিয়োগাকরী খুঁজে পাওয়া যায় না। এভাবে কি ব্যবসা টিকে রাখা সম্ভব?- উল্টো প্রশ্ন করেন তিনি।

তিনি বলেন, ডিএসইর খরচ মেটাতে প্রতিদিন ৫০০ কোটি টাকা লেনদেন হওয়া প্রয়োজন। কিন্তু গত ৭ মাস ধসে ডিএসইর গড় লেনদেন হচ্ছে ৩-৪শ কোটি টাকা। ফলে মুনাফা তো দূরের কথা ডিএসইর ব্যবস্থাপনা ব্যয় মেটাতে রিজার্ভ ভেঙে খেতে হবে ডিএসইকে। আর মুনাফায় আসতে হলে প্রতিদিন এক হাজার কোটি টাকা লেনদেন হতে হবে।

আরও পড়ুন:পুঁজিবাজার ছেড়েছেন ৩ লাখ বিনিয়োগকারী

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, কোরবানি ঈদ পরবর্তী প্রথম কার্যাদিবস রোববার (১৮ আগস্ট) ডিএসইতে ৩২৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। তার আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিলো ৪১০ কোটি টাকা, তার আগের দিন হয়েছিলো ৪৪৯ কোটি টাকা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/19/1566221635013.jpg

একই অবস্থা দেশের অপর পুঁজিবাজার সিএসইতে সোমবার ১৫কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে । এর আগের দিন রোববার লেনেদেন হয়েছিলো ১৬কোটি, তার আগের কার্যদিবসেও হয়েছিলো ১৫কোটি টাকা লেনদেন।

উল্লেখ্য,পুঁজিবাজার ভাল হওয়ার প্রত্যাশায় বছর শুরু হলেও মাত্র ২৭ দিন পর পুঁজিবাজারে শুরু হয় দরপতন। বাংলাদেশের ব্যাংকের মুদ্রানীতি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে ২৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হয় দরপতন। এরপর অনৈতিক প্রাইভেট প্লেসমেন্ট, উদ্যোক্তা-পরিচালকের শেয়ার বিক্রিসহ নানা ইস্যু যোগ হয়। ফলে পুঁজিবাজারে দরপতন লেগেই আছে। আর তাতে অতিষ্ঠ হয়ে বিনিয়োগকারীরা ব্রোকারেজ হাউজ ছেড়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র