Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

পরিচালকদের শেয়ার ধারণ আইনে আসছে ৬ পরিবর্তন

পরিচালকদের শেয়ার ধারণ আইনে আসছে ৬ পরিবর্তন
ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালকদের এককভাবে ২ শতাংশ এবং উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের সম্মেলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণের বিষয়ে আরও কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

নতুন আইনে আসছে ছয় পরিবর্তন। এ লক্ষ্যে এ সংক্রান্ত নোটিফিকেশনের প্রয়োজনীয় সংশোধনী করতে যাচ্ছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। কমিশনের আগামী সভায় এ সংশোধনী প্রস্তাব উপস্থাপন করা হবে। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিএসইসিতে একটি বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কমিশন সভায় সংশোধনী অনুমোদনের পর নোটিফিকেশন জারি করা হবে। আর এই নোটিফিকেশন জারি হওয়ার পর এ সংক্রান্ত আগের যতো নোটিফিকেশন আছে তা রহিত হয়ে যাবে।

সূত্র আরও জানায়, সংশোধনী নোটিফিকেশন জারির পর দুই শতাংশের কম শেয়ার থাকা পরিচালকদের পদ শূন্য হয়ে যাবে। এই শূন্য পদ কোম্পানিকে ১৫ দিনের মধ্যে পূরণ করতে হবে। এছাড়া যেসব কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের সম্মেলিতভাবে ৩০ শতাংশের কম শেয়ার আছে, সে কোম্পানিগুলোকে আলাদা ক্যাটাগরিতে স্থানান্তর করা হবে।

সূত্র বলছে, নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ২ সিসি এবং সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অর্ডিন্যান্স ১৯৬৯ এর ক্ষমতা বলে এই পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেবে।

সংশোধনী নোটিফিকেশনে যা থাকতে পারে-

১। স্বতন্ত্র পরিচালক বাদে সব উদ্যোক্তা ও পরিচালকের সম্মিলিতভাবে কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের ৩০ শতাংশ শেয়ারধারণ থাকতে হবে।

২। যদি কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকরা সম্মিলিতভাবে এই শেয়ারধারণে ব্যর্থ হয়; তবে স্টক এক্সচেঞ্জ ওই কোম্পানিকে একটি আলাদা ক্যাটাগরিতে স্থানান্তর করবে।

৩। আর এই কারণে ওই কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকরা কোনো রকম শেয়ার বিক্রি, স্থানান্তর, হস্তান্তর, কোম্পানি একীভূতকরণ করতে পারবে না। তবে ঋণ খেলাপি ও মৃত্যুজনিত শেয়ার স্থানান্তরের বিষয়টি এর বাইরে থাকবে।

৪। ৩০ শতাংশ শেয়ারধারণে ব্যর্থ কোম্পানি রাইট ওফার, আরপিও, বোনাস শেয়ার, কোম্পানি অ্যামালগামেশনসহ কোনো প্রকারে মূলধন উত্তোলন করতে পারবে না।

৫। যদি কোনো উদ্যোক্তা পরিচালক এককভাবে ২ শতাংশ শেয়ার ধরণে ব্যর্থ হয়; তাহলে তার পরিচালক পদ তাৎক্ষণিকভাবে বাতিল হবে। তবে কোম্পানি বা ইনস্টিটিউশন মনোনীত পরিচালকের ক্ষেত্রে নূন্যতম ২ শতাংশ শেয়ারধারণ থাকতে হবে। অর্থাৎ তিনজন মনোনীত পরিচালকের জন্য ছয় শতাংশ শেয়ারধারণ থাকতে হবে।

৬। যদি কোনো পরিচালক এককভাবে ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে ব্যর্থ হয়; তাহলে এই শূন্য পদ পূরণ ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে করতে হবে। এই কাজটি সম্পন্ন করবে ওই কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ বা কোম্পানির বোর্ড।

সার্বিক বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সইফুর রহমান বলেন, কোম্পানির পরিচালকদের এককভাবে ২ শতাংশ এবং উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের সম্মেলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণের বিষয়ে সংশোধনী আনার বিষয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। তবে এখনো কোনো কিছুই চূড়ান্ত হয়নি।

তিনি বলেন, যদি কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকরা সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ারধারণে ব্যর্থ হয়; তবে স্টক এক্সচেঞ্জ ওই কোম্পানিকে একটি আলাদা ক্যাটাগরিতে স্থানান্তর করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া কোম্পানি একীভূতকরণের বিষয়সহ বিভিন্ন বিষয় আলোচনায় আছে।

আপনার মতামত লিখুন :

কিছু কিছু স্থানে চামড়া নষ্ট হয়েছে: শিল্প সচিব

কিছু কিছু স্থানে চামড়া নষ্ট হয়েছে: শিল্প সচিব
বক্তব্য রাখছেন শিল্প সচিব মো.আব্দুল হালিম, ছবি: সংগৃহীত

চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ না করার ফলে কিছুকিছু স্থানে মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীরা কাঁচা চামড়া নষ্ট করে ফেলেছেন বলে স্বীকার করেছেন শিল্প সচিব মো.আব্দুল হালিম। তবে এটি সমগ্র দেশের চিত্র নয় বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেন, ‘অন্যান্য স্থানের চামড়া যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিভাগীয় প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।’

শনিবার (১৭ আগস্ট) সাভারে চামড়া শিল্পনগরীতে চামড়া শিল্প সংক্রান্ত বিভিন্ন অংশীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি।

শিল্প সচিব বলেন, 'লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের মানদণ্ডে মোট ১ হাজার ৩৬২টি পয়েন্ট রয়েছে। এরমধ্যে ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট ও ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্টের জন্য ২০০ পয়েন্ট। লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের সার্টিফিকেট অর্জনে অবশিষ্ট পয়েন্টগুলোর প্রতি মনোযোগী হবার আহ্বান জানান শিল্প সচিব।’

আব্দুল হালিম বলেছেন, ‘সাভার ট্যানারি শিল্পনগরীর সিইটিপি সম্পূর্ণ চালু রয়েছে। কোরবানির সময় ট্যানারিগুলো সারা বছরের সরবরাহের অর্ধেক চামড়া সংগ্রহ করে। তাই আগামী দু'-তিন মাস এই শিল্প নগরী ট্যানারিগুলো পূর্ণ গতিতে চলবে। পিক সিজনে উৎপাদিত চামড়ার আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখার স্বার্থে সব ট্যানারিকে একসঙ্গে কাজ না করে নিজেদের মধ্যে সময় নির্ধারণ করে কাজ করার আহ্বান জানান শিল্প সচিব।'

সভায় বিসিকের চেয়ারম্যান মোশতাক হাসান, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী জিতেন্দ্রনাথ পাল, বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুল জলিল, বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত উল্লাহ, বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দিলজাহান ভূঁইয়া এবং সাভারের উপজেলা নির্বাহী অফিসার পারভেজুর রহমান, সাভারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এফ এম সায়েদ উপস্থিত ছিলেন।

সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় সাভার ট্যানারি শিল্প নগরী ভালোভাবে কাজ করছে। শিল্প নগরীর সিইটিপি'র চারটি ইউনিটই যথাযথভাবে কাজ করছে। শিগগিরি লেদার ওয়ার্কিং গ্রুপের মানদণ্ড অর্জন করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। চামড়ার গুণগত মান ভালো থাকলে সরকার নির্ধারিত মূল্যে ট্যানারিগুলো চামড়া ক্রয় করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বুয়েটের অধ্যাপক আব্দুল জলিল বলেন, ‘কিছু কিছু ট্যানারি ক্রোম বর্জ্য আলাদাভাবে না ফেলায় ক্রোমের সাথে অন্যান্য জিনিস চলে আসছে।’

তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী প্রতি মেট্রিকটন চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতে ট্যানারিগুলো ২৫ হাজার লিটার পানি ব্যবহার করতে পারবে। বর্তমানে সাভার ট্যানারি শিল্প নগরীর ট্যানারিগুলো একই পরিমাণ চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতে ৪০ হাজার লিটার পানি ব্যবহার করছে। এতে করে সিইটিপি'র ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়ছে। ডিপ টিউবওয়েলে মিটার লাগানো হলে পানির অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।’

বিমা কোম্পানির শেয়ারে নজর বিনিয়োগকারীদের

বিমা কোম্পানির শেয়ারে নজর বিনিয়োগকারীদের
ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ/ ছবি: সংগৃহীত

তৈরি পোশাক, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি প্রকৌশল ও ওষুদ খাতের কোম্পানিকে পেছনে ফেলে লেনদেনের শীর্ষে উঠে এসেছে বিমা কোম্পানির শেয়ার।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্যমতে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম মাসে আট হাজার ৯৪৬ কোটি ৮৫ লাখ ৯০ হাজার ২৯৪ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে বিমা খাতের ৪৭টি কোম্পানির শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৪৮৪ কোটি ৭৮ লাখ ১৫ হাজার ২৭০ টাকা। যা মোট লেনদেনের ১৬ দশমিক ৬০ শতাংশ।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি অর্থবছরের বাজেটে বিমা খাতের উপর বিশেষ প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। আর তার প্রভাব পড়েছে পুঁজিবাজারে, তাতে দরপতনের মাসেও এ খাতের শেয়ার কিনেছে বেশি বিনিয়গকারীরা। ফলে জুন মাসে ৬ষ্ঠ স্থানে থাকা বিমা খাত জুলাই মাসে লেনদেনের শীর্ষে উঠে এসেছে।

বাজেটে শস্য, বিমা, গবাদিপশু বিমা করাসহ একগুচ্ছ প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ১৫ শতাংশের উপরে এজেন্ট কমিশন দেওয়া বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এসবের ফলে অন্যান্য কোম্পানির চেয়ে বিমা কোম্পানির শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে।

ডিএসইতে বিদায়ী অর্থবছরে শেষ মাস জুনে বিনিয়োগকারীদের পছন্দের শীর্ষে ছিল পোশাক খাতের শেয়ার। সে মাসে পোশাক খাতের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ এক হাজার ৭৯ কোটি ৯৯ লাখ ১৭ হাজার ৬৫৮ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

আর জুলাই মাসে লেনদেন হয়েছে ৯৬৭ কোটি ২২ লাখ ৩০ হাজার ৮৮৪ টাকা। যা মোট লেনদেনের ১০ দশমিক ৮১ শতাংশ। ফলে জুন মাসের তুলনায় জুলাই মাসে তিন ধাপ নিচে নেমে চতুর্থ স্থানে নেমেছে।

ডিএসইর মোট ১১ দশমিক ৬৯ শতাংশ লেনদেন হওয়া ওষুধ খাত লেনদেনের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে। এ খাতের কোম্পানির ২২ কোটি ৭৮ লাখ ৯৮ হাজার ৯৩১টি শেয়ার বিক্রি বাবদ লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৪৬ কোটি ২৯ লাখ ৯৯ হাজার ২৯৪ টাকা।

ফলে জুন মাসে দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রকৌশল খাত এক ধাপ নিচে নেমে বিনিয়োগকারীদের পছন্দের তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে। এ খাতে জুলাই মাসে লেনদেনে হয়েছে ৯৯৪ কোটি সাত লাখ ৫৮ হাজার ৪৭ টাকা। যা মোট লেনদেনের ১১ দশমিক ১১ শতাংশ।

আর পুঁজিবাজারের ‘প্রাণ’ বলে খ্যাত ব্যাংকের শেয়ার বিনিয়োগকারীদের পছন্দের তালিকায় ৬ষ্ঠ পর্যায়ে রয়েছে। পঞ্চম স্থানে রয়েছে মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতের শেয়ার। ফলে এ খাতের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ লেনদেন হয়েছে ৭৮১ কোটি ৪১ লাখ ২৯ হাজার ৩৮৮ টাকা। যা মোট লেনদেনের আট দশমিক ৭৩ শতাংশ।

আর জুলাই মাসে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ লেনদেন হয়েছে ৬৪৯ কোটি ২৩ লাখ তিন হাজার ৩৫৪ টাকা। যা সাত দশমিক ২৬ শতাংশ।

বিনিয়াগকারীরা বলছেন, যতক্ষণ ব্যাংক খাতের শেয়ারের দাম বাড়বে না, ততক্ষণ পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াবে না।

এছাড়াও বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ লেনদেন হয়েছে ৫৯৯ কোটি ৯৩ লাখ ৫২ হাজার ১৮৯ টাকা। ট্যানারি খাতের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ লেনদেন হয়েছে ৩৯৬ কোটি ৬৭ লাখ আট হাজার ৩১৭ টাকা।

খাদ্য-আনুষঙ্গিক খাতের শেয়ার কেনা-বেচা বাবদ ডিএসইর তিন দশমিক ২০ শতাংশ, ভ্রমণ ২ দশমিক ৬১শতাংশ, নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের ২ দশমিক ৬৯ শতাংশ, সিরামিক ২ দশমিক ২৩ শতাংশ, আইটির ২ দশমিক ১৭ শতাংশ,টেলিকমিউনিকেশন ১ দশমিক ২৮ শতাংশ, সিমেন্ট ২ দশমিক ২৩ শতাংশ, এবং কাগজ-প্রকাশনা খাতের দশমিক ৬৮দশমিক শতাংশ টাকার লেনদেনে হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র