Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

প্রাণের ঘি, রাঁধুনী ধনিয়া-জিরা গুঁড়াসহ ১১ পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত

প্রাণের ঘি, রাঁধুনী ধনিয়া-জিরা গুঁড়াসহ ১১ পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত
প্রাণ ডেইরি ও স্কয়ার কোম্পানির লোগো, ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাণ ডেইরির ঘি প্রিমিয়াম এবং স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের রাঁধুনী ধনিয়া ও জিরা গুঁড়াসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১১ পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করেছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)।

মঙ্গলবার (১১ মে) প্রতিষ্ঠানগুলোর পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে। বার্তা২৪.কম-কে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএসইটিআইয়ের পরিচালক প্রকৌশলী এস এম ইসহাক আলী।

তিনি বলেন, 'লাইসেন্স বাতিলকৃত পণ্য বিক্রি-বিতরণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বাতিল পণ্যগুলো বাজার থেকে সরিয়ে নিতে ৭২ ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে ভোক্তা সাধারণকে উক্ত পণ্যগুলো ক্রয় হতে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।'

প্রাণের ঘি, রাঁধুনী ধনিয়া-জিরা গুঁড়াসহ ১১ পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত
প্রাণের ঘি, রাঁধুনী জিরা ও ধনিয়া গুঁড়ার লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে, ছবি: সংগৃহীত

 

আরও পড়ুন: প্রাণ, ড্যানিশসহ ১৮ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল

বিএসটিআইয়ের পরিচালক বলেন, 'সম্প্রতি সার্ভিল্যান্সের মাধ্যমে খোলাবাজার হতে বিভিন্ন পণ্যের ৪০৬টি নমুনা ক্রয় করে পরীক্ষা করা হয়। প্রথম ধাপে প্রাপ্ত ৩১৩টি পরীক্ষণ প্রতিবেদনের মধ্যে ৫২টি নমুনা নিন্মমানের পাওয়া যায়; যার ২৫টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল, একটির স্থগিত ও ২৬টি প্রতিষ্ঠান পণ্যের মান উন্নয়নে সক্ষম হওয়ায় পণ্য বিক্রি-বিতরণের জন্য পুনরায় অনুমোদন দেয়া হয়েছে।'

প্রাণের ঘি, রাঁধুনী ধনিয়া-জিরা গুঁড়াসহ ১১ পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত
মুসকান ও কনফিডেন্সের আয়োডিনযুক্ত লবণেরও লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে, ছবি: সংগৃহীত

 

তিনি আরও বলেন, 'দ্বিতীয় ধাপে প্রাপ্ত অবশিষ্ট ৯৩টি পণ্যের মধ্যে ২২টি নমুনা নিন্মমানের পাওয়া যায়। এরমধ্যে নিন্মমানের ১১টি পণ্যের লাইসেন্স স্থগিত করা হলো। এছাড়াও ৮টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স না থাকায় নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।'

লাইসেন্স স্থগিত হওয়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পণ্যগুলো
প্রতিষ্ঠানের নাম পণ্যের নাম
প্রাণ ডেইরি লিমিটেড ঘি প্রাণ প্রিমিয়াম
স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড রাঁধুনী ধনিয়া গুঁড়া
স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড রাঁধুনী জিরা গুঁড়া
হাসেম ফুডস লিমিটেড কুলসন লাচ্ছা সেমাই
যমুনা কেমিক্যাল ওয়ার্কস ঘি এ-৭ 
কুইন কাউ ফুড প্রোডাক্টস বাটার অয়েল গ্রিন মাউন্টেন
এস এ সল্ট ইন্ডাস্ট্রিজ মুসকান আয়োডিনযুক্ত লবণ
কনফিডেন্স সল্ট লিমিটেডের কনফিডেন্স আয়োডিনযুক্ত লবণ
জে কে ফুড প্রোডাক্ট লিমিটেড মদিনা লাচ্ছা সেমাই
বিসমিল্লাহ সল্ট ফ্যাক্টরি উট আয়োডিনযুক্ত লবণ
জনতা সল্ট মিলস নজরুল আয়োডিনযুক্ত লবণ

 

আপনার মতামত লিখুন :

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি
ছবি: সংগৃহীত

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না সাধারণ বিমা কোম্পানিগুলো।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির চেয়ারম্যান ও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তরা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বৈঠকে (আইডিআরএ) অঙ্গীকার করেছেন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারির সভাপতিত্বে বৈঠকে আইডিআরএ’র সদস্য, পরিচালক এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্সে অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেনসহ কোম্পানির চেয়ারম্যান, এমডি এবং মুখ্য নির্বাহীরা ১৫ শতাংশের অধিক কমিশন বন্ধে দৃঢ় প্রত্যয় এবং কর্তপক্ষের সার্কুলারের সাথে পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন।

সভায় শেখ কবির হোসেন আইডিআরএ’র নির্দেশনা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিমা কোম্পানিগুলোর চেয়ারম্যান ও নির্বাহীদের আন্তরিকতা প্রদর্শনে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘এখন থেকে কোনো নন-লাইফ বিমাকারী ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন প্রদান করে ব্যবসা করবে না।’

সভায় আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘সকলের এ কার‌্যকর এবং সম্মিলিত উদ্যোগের ফলে বিমা শৃঙ্খলা ও সুষ্ঠুবাজার ব্যবস্থা গড়ে উঠবে।’

অবৈধ কয়েল বিক্রি: দুই প্রতিষ্ঠানকে মামলা, ২ জনের কারাদণ্ড

অবৈধ কয়েল বিক্রি: দুই প্রতিষ্ঠানকে মামলা, ২ জনের কারাদণ্ড
জব্দকৃত মশার কয়েল, ছবি: সংগৃহীত

সনদ ছাড়াই অবৈধভাবে নিন্মমানের কয়েল বিক্রি করার অপরাধে দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই অপরাধে আনলু ব্যান্ডের মশার কয়েলের দুই কর্মকর্তাকে ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর মিরপুরে অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এ মামলা ও কারাদণ্ড দেয়। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিএসটিআইয়ের আইন, ২০১৮ অমান্য করে ড্রাগন ব্রান্ডের মশার কয়েল বাজারজাত করায় মিরপুরের মেসার্স মীম এন্টারপ্রাইজের মালিক মোশারফ আলীর বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়া একই অপরাধে আনলু ব্যান্ডের মশার কয়েল বিক্রি-বিতরণ করায় ম্যানেজার মো. আতিকুর রহমান (২৮) ও মাছুম আলম (৪৯) কে ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে উভয় ব্যান্ডের ১৩০ কার্টুন মশার কয়েল জব্দ করা হয়। এ সময় লাইসেন্সবিহীন মশার কয়েল ক্রয় ও ব্যবহার হতে বিরত থাকার জন্য ক্রেতাসাধারণকে পরামর্শ প্রদান করা হয়। বিএসটিআই’র এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বেগম রাশিদা আক্তারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র