Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মুনাফার ভাগ পাচ্ছেন না প্রাণের শেয়ারহোল্ডাররা

মুনাফার ভাগ পাচ্ছেন না প্রাণের শেয়ারহোল্ডাররা
ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মুনাফা হচ্ছে, আর্থিক প্রতিবেদনেও দেখাচ্ছে, কিন্তু শেয়াহোল্ডারদেরকে সেই মুনাফার প্রকৃত ভাগ দিচ্ছে না এগ্রিকালচার মার্কেটিং কোম্পানি লিমিটেডের প্রাণ গ্রুপ। আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে মুনাফার এই টাকা রিজার্ভ নামক ফান্ডে রেখে দিচ্ছে কোম্পানিটি।

কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

১৯৯৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এএমসিএল-প্রাণ কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ৮ কোটি টাকা। প্রতিষ্ঠানটি ২০১৫-১৮ সাল পর্যন্ত ৩২ শতাংশ হারে নগদ লভ্যাংশ দিচ্ছে। অথচ কোম্পানির মুনাফা পরিমাণ হিসাবে দেখা গেছে ৫০-৬০ শতাংশ হারে শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারতো। কিন্তু তা না করে শেয়ারহোল্ডারদের ঠকাচ্ছে।

পাশাপাশি কোম্পানির মালিকানায় যাতে নতুন করে কেউ আসতে না পারে, সে জন্য বোনাস শেয়ার লভ্যাংশও দেওয়া হচ্ছে না। আর প্রতিবছরের এই অর্থ রির্জাভে জমা হচ্ছে। এমন অযৌক্তিক রিজার্ভ বৃদ্ধিকে নিরুৎসাহিত করতে আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে সরকার কর আরোপের ঘোষণা দিয়েছে।

২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে জানানো হয়েছে, কোম্পানির অর্জিত মুনাফা থেকে শেয়ারহোল্ডারদের বঞ্চিত করে সংরক্ষিত আয় হিসাবে রেখে দেওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়, যা পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এ ধরনের প্রবণতা রোধে কোম্পানির কোনো আয় বছরে সংরক্ষিত আয়, রিজার্ভ ইত্যাদির সমষ্টি পরিশোধিত মূলধনের ৫০ শতাংশের বেশি হলে অতিরিক্ত অংশের উপর সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে ১৫ শতাংশ কর দিতে হবে। 

এদিকে, ন্যূনতম ‍২ শতাংশ শেয়ার ধারণে ব্যর্থ হওয়ায় এএমসিএল-প্রাণের পরিচালক পদ হারানো উজমা চৌধুরী আবারও ফিরছেন পরিচালনা পর্ষদে। তবে তিনি এবার নমিনি পরিচালক হিসাবে পর্ষদে যুক্ত হয়েছেন। ফলে যে উদ্দেশ্যে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) শেয়ার ধারণের নির্দেশনা দিয়েছিল, তা পূরণ হয়নি।

বিএসইসি ২০১১ সালের নির্দেশনা অনুযায়ী, ন্যূনতম ২ শতাংশ শেয়ার ধারণে ব্যর্থ হয়ে উজমা চৌধুরী পর্ষদ থেকে বাদ পড়েন। ওইসময় শেয়ার ধারণে ব্যর্থ পরিচালকদের তালিকায় তার নাম প্রকাশ করা হয়। তবে তিনি শেয়ার ধারণ না করেই আবারও পর্ষদে ফিরে এসেছেন। এবার তিনি প্রাণে নমিনি পরিচালক হিসাবে এসেছেন।

উজমা চৌধুরী এখন এম-এস প্রোপার্টি ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের পক্ষে এএমসিএল প্রাণের পর্ষদে প্রতিনিধিত্ব করছেন। তিনি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের ২৭ অক্টোবর পর্ষদে যোগ দিয়েছেন।

২০১১ সালে শেয়ার ধারণে ব্যর্থতার কারণে পর্ষদ থেকে বাদ গেলেও কোম্পানিতেই থেকে যান উজমা চৌধুরী। তবে পর্ষদে না, সেটা ম্যানেজম্যান্ট। তিনি ম্যানেজম্যান্টে ফাইন্যান্স ডিরেক্টর হিসেবে প্রাণে কাজ চালিয়ে যান।

কোম্পানির তথ্য মতে, প্রাণের এই কোম্পানিটির বর্তমান পরিশোধিত মূলধন ৮ কোটি টাকা। আর কোম্পানিটিতে শেয়ারহোল্ডারদের ইক্যুইটির (রিটেইন আর্নিংস, প্রিমিয়াম, রিভ্যালুয়েশন সারপ্লাস ও পরিশোধিত মূলধন) পরিমাণ ৬০ কোটি ৩১ লাখ টাকা।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে মুনাফার ৪৬ শতাংশ শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। মুনাফার বাকি ৫৪ শতাংশই রেখে দেওয়া হয় রিজার্ভ নামক ফান্ডে। তবে সেই বছর শেয়ারহোল্ডারা কাঙ্ক্ষিত লভ্যাংশ পায়নি।

একইভাবে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের মুনাফার ৪৬ শতাংশ, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৪৮ শতাংশ, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪৭ শতাংশ ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৪৬ শতাংশ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য লভ্যাংশে দেয়। এ হিসাবে প্রতিবছরই মুনাফার বেশি অংশই কোম্পানিতে রেখে দেওয়া হয়েছে।

প্রাণে মুনাফার বড় অংশ নিয়মিত রেখে ২০১৩-১৪ অর্থবছরের ৪৮ কোটি ৭১ লাখ টাকার ইক্যুইটি ২০১৭-১৮ অর্থবছর শেষে ৬০ কোটি ৩১ লাখ টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। এসময় ইক্যুইটির পরিমাণ বেড়েছে ১১ কোটি ৬০ লাখ টাকা বা ২৪ শতাংশ। কিন্তু মুনাফা আগের মতো রয়েছে।

দেখা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরের ৫ কোটি ৫৪ লাখ টাকার মুনাফা ২০১৭-১৮ অর্থবছরে হয়েছে ৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। এরমধ্যে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা ও ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা মুনাফা হয়।

মুনাফার মতোই কোম্পানির গত ৫ অর্থবছরে লভ্যাংশে কোনো উন্নতি হয়নি। কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ প্রতিবছরই ৩২ শতাংশ হারে শেয়ারপ্রতি ৩.২০ টাকা নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছেন।

প্রাণের ২০১৭-১৮ অর্থবছরে নিট ২৫৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকার পণ্য বিক্রয় হয়েছে। এরমধ্যে কোম্পানিটি থেকে ১২৭ কোটি ৮০ লাখ টাকার পণ্য রফতানি করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

‘অনলাইনে ব্যবসায়ীদের বাণিজ্য সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে’

‘অনলাইনে ব্যবসায়ীদের বাণিজ্য সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে’
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, ছবি: সংগৃহীত

দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনার জন্য সব সেবা এখন অনলাইনে দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, ‘আমদানি ও রফতানি অধিদফতরে অনলাইনে লাইসেন্সিং মডিউল (ওএলএম) চালু করা হলো। এতে করে ব্যবসায়ীদের জন্য সেবাগুলো অনলাইনে দেওয়া সম্ভব হবে।

বুধবার (১৭ জুলাই) ঢাকায় জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ভবনে আমদানি-রফতানি অধিদফতর আয়োজিত অনলাইন লাইসেন্সিং মডিউলের (ওএলএম) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি সাত দিনব্যাপী নিবন্ধন সনদ নবায়ন মেলা-২০১৯ এর উদ্বোধন করেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা অনেক উপকৃত হবেন। এতে করে ব্যবসায়ীদের অর্থ, শ্রম ও সময় সাশ্রয় হবে। ব্যবসায়ীদের লাইসেন্স নবায়নসহ প্রয়োজনীয় সেবা নিতে আর আমদানি-রফতানি অধিদফতরে আসার প্রয়োজন হবে না। আমদানি-রফতানি অফিস এখন ডিজিটাল।’

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। অনলাইন লাইসেন্সিং মডিউল চালুর মাধ্যমে দেশে ব্যবসা বাণিজ্য সহজ করার ক্ষেত্রে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল। পেপারলেস ট্রেড সুবিধা দিতে আমরা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার কাছে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ব্যবসা পরিচালনার জন্য এরই মধ্যে অনেক শর্ত শিথিল করা হয়েছে, সংযুক্ত কাগজের সংখ্যা কমানো হয়েছে। স্বল্পতম সময়ের মধ্যে ব্যবসায়ীরা দাফতরিক কাজ শেষ করতে পারবেন। বিনয়ের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের বাণিজ্য সেবা নিশ্চিত করতে হবে,’ বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

টিপু মুনশি বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ব বাণিজ্যে টিকে থাকতে হলে পেপারলেস ট্রেডের বিকল্প নেই। দেশের সব ধরনের বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট কাজ ডিজিটাল হওয়া জরুরি। দেশের বাণিজ্য পরিচালনার সব কার্যক্রম সহজ করতে হবে।’

‘ব্যবসায়ীরা যাতে বাণিজ্য সংক্রান্ত সব সেবা সহজেই পেতে পারেন, তা নিশ্চিত করতে হবে। সারা বিশ্বে আমরা প্রচার করছি, বাংলাদেশে সহজেই ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা করা হচ্ছে। আমরা বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানাচ্ছি। বাস্তবেও সেটা দেখাতে হবে। ব্যবসা পরিচালনা পদ্ধতি সহজ ও ডিজিটাল করার বিকল্প নেই,’ যোগ করেন তিনি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আমদানি ও রফতানি অধিদফতরের প্রধান নিয়ন্ত্রক প্রাণেশ রঞ্জন সূত্রধর। এতে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সচিব এবং আমদানি ও রফতানি অধিদফতরের সাবেক প্রধান নিয়ন্ত্রক আফরোজা খানমসহ অনেকে।

দরপতনের প্রতিবাদে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ

দরপতনের প্রতিবাদে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ
দরপতনের প্রতিবাদে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ

দরপতনের প্রতিবাদে বুধবারও (১৭ জুলাই) মতিঝিলের রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন বিনিয়োগকারীরা। এদিন দুপুর ২টার দিকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নেন বিনিয়োগকারীরা। বেলা ৩টায় শেষ হয়।

‘খায়রুল তুই রাজাকার, কমিশনের গদি ছাড়’ স্লোগানে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক খায়রুল হোসেনের পদত্যাগসহ ৬ দফা দাবি জানিয়েছেন তারা।

গুরুত্বপূর্ণ দাবি গুলো হচ্ছে-নতুন করে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদন ও প্লেসমেন্ট বন্ধ, ১০ হাজার কোটি টাকার নতুন ফান্ড গঠন, বোনাস শেয়ার ও রাইট শেয়ার দেওয়া বন্ধ ইত্যাদি।

বিক্ষোভে বিনিয়োগকারীরা বলেন, চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত পুঁজিবাজারে পতন অব্যাহত রয়েছে। শুরু থেকেই আমরা বাজারের পতন ঠেকাতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে আসছি। কিন্তু এতেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো ভূমিকা দেখা যাচ্ছে না। কেউই আমাদের দিকে নজর দিচ্ছে না।

বিনিয়োগকারীরা বলেন, সত্যিকার অর্থে যদি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতায় কাজ করত তবে এত দিন পুঁজিবাজারে স্থিরতা চলে আসত।

বাজারের এই দুর্দশা ফেরাতে চলমান অস্থিরতা দূর করতে আবারও বিএসইসির প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে বিনিয়োগকারীরা।

এর ফলে টানা ছয়দিন মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করছেন বিনিয়োগকারীরা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র