Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

এটিএম-সিআরএম আমদানিতে আন্ডার ইনভয়েস, রাজস্ব ফাঁকি

এটিএম-সিআরএম আমদানিতে আন্ডার ইনভয়েস, রাজস্ব ফাঁকি
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

আমদানি ঋণপত্রে (এলসি বা লেটার অব ক্রেডিট) আন্ডার ইনভয়েসিং বা ক্রয়মূল্য কম দেখানোর মাধ্যমে চীন থেকে এটিএম (অটোমেটেড টেলার মেশিন) ও সিআরএম (ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন) ক্রয় করার ক্ষেত্রে স্থানীয় একটি বেসরকারি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সরকারকে বিপুল পরিমাণ শুল্ক ফাঁকি দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এছাড়া প্রকৃত ক্রয়মূল্য যা ইনভয়েসে উল্লেখিত মূল্যের চেয়ে বেশি, তা ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে অবৈধ উপায়ে পরিশোধ করা হচ্ছে। এই ক্ষেত্রে হুন্ডির আশ্রয় নিয়ে এটিএম ও সিআরএম রফতানিকারক দেশ চীনে পাচার করা হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ যা দেশে প্রচলিত মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর আওতায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এসব অভিযোগ পাওয়া গেছে, জারা জামান টেকনোলজি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। প্রতিষ্ঠানটি দেশের ব্যাংকিং খাতে এটিএম, সিডিএম, সিআরএম, আইডিএম, সিএসএম, এসটিএম ও আইডিএমসহ ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের প্রযুক্তি সরবরাহ করে।

সূত্র জানায়, দুর্নীতি দমন কমিশন, শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ, কাস্টমস ও আর্থিক গোয়েন্দা ইফনিট এ ব্যাপারে অনুসন্ধান করতে পারে।

দেশীয় একটি বেসরকারি ব্যাংকের আমদানি ঋণপত্র (নং ১৯০১০০২৩) নথি থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, জারা জামান টেকনোলজি লি. চীনের জিআরজি ব্যাংকিং ইকুইপমেন্ট (এইচ কে) কোম্পানি লিমিটেডের কাছ থেকে এ বছরের জানুয়ারি ২৮ তারিখ থেকে ২৮ এপ্রিল সময়ের মধ্যে দুটি চালানে ১৫টি সিআরএম ও ৩৫টি এটিএম আমদানি করেছে।

ঋণপএ অনুযায়ী প্রতিটি এটিএম ও সিআরএম এর মূল্য পরিশোধ করা হয়েছে যথাক্রমে ১১০০ ও ২৫০০ ইউএস ডলার করে। কিন্তু আমদানিকারক ও রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান দুটির পূর্ব যোগাযোগের রেফারেন্স লেটারে উল্লেখিত প্রোফর্মা ইনভয়েস অনুযায়ী প্রতিটি এটিএম ও সিআরএম এর প্রকৃত মূল্য যথাক্রমে ৩,৫৭০ ও ১২,৫৫০ ইউএস ডলার।

প্রকৃত মূল্য হিসেবে ১৫টি সিআরএম ও ৩৫টি এটিএম আমদানির বিপরীতে মোট পরিশোধযোগ্য অর্থের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩৫৮২০০ ইউএস ডলার বা তিন কোটি দুই লাখ ৬৭ হাজার টাকা (প্রতি ডলার ৮৪.৫০ টাকা হিসেবে)। অথচ ঋণপত্রে উল্লেখিত মূল্য হিসেবে পরিশোধ করা হয়েছে মোট ৭৬০০০ ইউএস ডলার বা ৬৪ লাখ ২২ হাজার টাকা।

অভিযোগ অনুযায়ী প্রকৃত আমদানি মূল্যের বাকি অংশ (২৮২,২০০ ইউএস ডলার বা ২.৩৬ কোটি টাকা) অবৈধ উপায়ে পরিশোধ করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, আমদানি ঋণপএটি আন্ডার ইনভয়েস করা না হলে পুরো আমদানি মূল্য ৩৫৮,২০০ ইউএস ডলার বা তিন কোটি দুই লাখ টাকা ব্যাংকিং চ্যানেলে পরিশোধ হতো, সেক্ষেত্রে সরকার কাস্টমস নীতিমালা অনুযায়ী এই আমদানি থেকে শুল্ক হিসেবে আমদানি মূল্যের প্রায় ৩৩ শতাংশ বা ১.১ কোটি টাকা পেত। কিন্তু আন্ডার ইনভয়েস হওয়ায় ব্যাংকিং চ্যানেলে মূল্য পরিশোধ হয়েছে মাএ ৬৪ লাখ টাকা। আর শুল্ক হিসেবে সরকার পেয়েছে এর ৩৩ শতাংশ বা ২২.১ লাখ টাকা। এখানে শুল্ক ফাঁকি দেয়া হয়েছে ৭৮.৯৮ লাখ টাকা।

বেসরকারি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান জারা জামান টেকনোলজি লিমিটেডের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ জমা পড়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনে, শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগে, কাস্টমস ও আর্থিক গোয়েন্দা ইফনিটে। প্রতিষ্ঠানটি দেশের ব্যাংকিং খাতে এটিএম, সিডিএম, সিআরএম, আইডিএম, সিএসএম, এসটিএম ও আইডিএমসহ ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের প্রযুক্তি সরবরাহ করে।

এ বিষয়ে জারা জামান টেকনোলজির কলাবাগানের (ধানমন্ডি) সুলতান টাওয়ারের তৃতীয় তলায় গিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত লিখুন :

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি
ছবি: সংগৃহীত

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না সাধারণ বিমা কোম্পানিগুলো।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির চেয়ারম্যান ও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তরা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বৈঠকে (আইডিআরএ) অঙ্গীকার করেছেন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারির সভাপতিত্বে বৈঠকে আইডিআরএ’র সদস্য, পরিচালক এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্সে অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেনসহ কোম্পানির চেয়ারম্যান, এমডি এবং মুখ্য নির্বাহীরা ১৫ শতাংশের অধিক কমিশন বন্ধে দৃঢ় প্রত্যয় এবং কর্তপক্ষের সার্কুলারের সাথে পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন।

সভায় শেখ কবির হোসেন আইডিআরএ’র নির্দেশনা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিমা কোম্পানিগুলোর চেয়ারম্যান ও নির্বাহীদের আন্তরিকতা প্রদর্শনে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘এখন থেকে কোনো নন-লাইফ বিমাকারী ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন প্রদান করে ব্যবসা করবে না।’

সভায় আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘সকলের এ কার‌্যকর এবং সম্মিলিত উদ্যোগের ফলে বিমা শৃঙ্খলা ও সুষ্ঠুবাজার ব্যবস্থা গড়ে উঠবে।’

অবৈধ কয়েল বিক্রি: দুই প্রতিষ্ঠানকে মামলা, ২ জনের কারাদণ্ড

অবৈধ কয়েল বিক্রি: দুই প্রতিষ্ঠানকে মামলা, ২ জনের কারাদণ্ড
জব্দকৃত মশার কয়েল, ছবি: সংগৃহীত

সনদ ছাড়াই অবৈধভাবে নিন্মমানের কয়েল বিক্রি করার অপরাধে দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই অপরাধে আনলু ব্যান্ডের মশার কয়েলের দুই কর্মকর্তাকে ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর মিরপুরে অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এ মামলা ও কারাদণ্ড দেয়। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিএসটিআইয়ের আইন, ২০১৮ অমান্য করে ড্রাগন ব্রান্ডের মশার কয়েল বাজারজাত করায় মিরপুরের মেসার্স মীম এন্টারপ্রাইজের মালিক মোশারফ আলীর বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়া একই অপরাধে আনলু ব্যান্ডের মশার কয়েল বিক্রি-বিতরণ করায় ম্যানেজার মো. আতিকুর রহমান (২৮) ও মাছুম আলম (৪৯) কে ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে উভয় ব্যান্ডের ১৩০ কার্টুন মশার কয়েল জব্দ করা হয়। এ সময় লাইসেন্সবিহীন মশার কয়েল ক্রয় ও ব্যবহার হতে বিরত থাকার জন্য ক্রেতাসাধারণকে পরামর্শ প্রদান করা হয়। বিএসটিআই’র এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বেগম রাশিদা আক্তারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র