Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মধুমেলায় রাকাবের ২২০ কোটি টাকা বকেয়া ঋণ আদায়

মধুমেলায় রাকাবের ২২০ কোটি টাকা বকেয়া ঋণ আদায়
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেট
বার্তা২৪.কম
রাজশাহী


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) সকল শাখায় একযোগে মধুমাস-১৪২৬ উদযাপন ও মধুমেলা উপলক্ষে ঋণ আদায় মহাক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই মেলায় প্রায় ২২০ কোটি টাকা বকেয়া ঋণ আদায় করা হয়।

মেলা শেষে বুধবার (২৬ জুন) সন্ধ্যায় রাকাবের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. জামিল হোসাইন বার্তা২৪.কম-কে এ তথ্য জানিয়েছেন।

জনসংযোগ কর্মকর্তা জামিল হোসাইন জানান, আদায়কৃত ২২০ কোটি টাকা বকেয়া ঋণ; যেখানে শ্রেণিকৃত ঋণ হতে আদায়ের পরিমাণ ছিল ৪০ কোটি টাকা। পুনঃতফসিলকৃত ঋণ ১৩ কোটি টাকা এবং অন্যান্য বকেয়া ঋণ ১৬৭ কোটি টাকা। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত মধুমেলার চেয়ে এবার প্রায় ৯২ কোটি টাকা বেশি বকেয়া ঋণ আদায় করা হয়।

তিনি আরও জানান, রাজশাহী বিভাগ ১১৫ কোটি, রংপুর বিভাগ ১০৪ কোটি এবং স্থানীয় মুখ্য কার্যালয়ে এক কোটি টাকা ঋণ আদায় করা হয়েছে। মেলায় বকেয়া ঋণ আদায়ের পাশাপাশি ১৫৩ কোটি টাকা ঋণ বিতরণসহ বিভিন্ন হিসাবের মাধ্যমে ২৭ কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করা হয়।

রাকাব সূত্র জানায়, ব্যাংকের শাখা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত এই ঋণ আদায় মহাক্যাম্পে বিভিন্ন শাখায় উপস্থিত ছিলেন- রাকাব পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক সচিব মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম, ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী আলমগীর, ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ও বিভাগীয় কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপকবৃন্দসহ বিভিন্ন জোনের জোনাল ব্যবস্থাপকগণ।

আপনার মতামত লিখুন :

৫ ট্রেকহোল্ডারদের বিষয়ে জানতে চেয়েছে কমিশন

৫ ট্রেকহোল্ডারদের বিষয়ে জানতে চেয়েছে কমিশন
বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

 

নিয়ম ভঙ্গকরা ৫ ট্রেকহোল্ডারদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। তা আগামী ৫ দিনের মধ্যে ডিএসইকে জানাতে বলেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বিএসইসির ৬৯৪ তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএসইসির নির্বাহী পরিচারক সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭ এর রুলস ৩(৪) ভঙ্গ করা ৫ সিকিউরিটিজ হাউজ হল- সিনহা সিকিউরিটিজ হাউজ, এমডি ফখরুল ইসলাম সিকিউরিটিজ হাউজ লিমিটেড, এ এন এফ ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড, কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট এবং পিএইচপি স্টকস অ্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড।

সংবাদ বিজ্ঞাপ্তিতে বলা হয়, ৩০ জুন ২০১৯ সমাপ্ত সময়ের নেট ক্যাপিটাল ব্যালেন্স রিপোর্ট স্টক এক্সচেঞ্জে দাখিল না করে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭ এর রুলস ৩(৪) ভঙ্গ করেছে এই ৫ ট্রেকহোল্ডার।

সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত বিধি ভঙ্গের জন্য সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭ এর রুলস ৩(৫) অনুযায়ী উক্ত ট্রেকহোল্ডারদের বিরুদ্ধে ডিএসই কি ব্যবস্থা গ্রহন করেছে তা আগামী ৫ দিনের মধ্যে কমিশনকে জানাতে বলা হয়েছে।

 

 

এক এনআইডিতে একাধিক বিও বন্ধের সময়সীমা ২১ অক্টোবর

এক এনআইডিতে একাধিক বিও বন্ধের সময়সীমা ২১ অক্টোবর
বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের লোগো

একই জাতীয় পরিচয়পত্র, মোবাইল নম্বর এবং ব্যাংক হিসাব ব্যবহার করে খোলা একাধিক বিও হিসাব বন্ধের সময়সীমা আগামী ২১ অক্টোবর পর্যন্ত বাড়িয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বিএসইসির ৬৯৪তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএসইসির নির্বাহী পরিচারক সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, একই জাতীয় পরিচয়পত্র, মোবাইল নম্বর এবং ব্যাংক হিসাব ব্যবহার করে খোলা বিভিন্ন বিও হিসাব বন্ধের জন্য ২০ জুন এক সার্কুলারের মাধ্যমে এ সমস্যা সমাধানের নির্দেশ দেওয়া হয়। এই সার্কুলারের সময় ২১ জুলাই শেষ হয়েছে।

ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের আবেদনের প্রেক্ষিতে এই সময়সীমা ২১ অক্টোর ২০১৯ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে কোন কোন সদস্য এখনও সংশ্লিষ্ট আদেশ পরিচালনে ব্যর্থ হয়েছে তা ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনকে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জানাতে বলেছে বিএসইসি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র