‘কালো টাকার সুযোগ আরও বাড়তে পারে’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
এফবিসিসিআই আয়োজিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পর্যালোচনা সভা

এফবিসিসিআই আয়োজিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পর্যালোচনা সভা

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে ব্যবসাবান্ধব উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, বাজেটে বিনিয়োগকারীদের উৎসাহিত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী দেশে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তুলছেন, এখানে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) রাজধানীর প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এফবিসিসিআই আয়োজিত ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে সরকার বিশেষ সুবিধা প্রদানের নীতি গ্রহণ করেছে। ব্যবসা পরিচালনা করতে পণ্যের ওপর শুল্ক ও ভ্যাট সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সরকার আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা করছে। দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নতি মানেই দেশের উন্নতি।

টিপু মুনশি আরো বলেন, দেশ উন্নয়নের পথে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। এ উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্ট সবার আন্তরিক প্রচেষ্টা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারকে বলা হয় ব্যবসাবান্ধব সরকার। বাজেটে দেশের ব্যাবসায়ীদের উৎসাহিত করার চেষ্টা করা হয়েছে।

দেশে ব্যবসার প্রসার না ঘটলে উন্নতি হয় না, কর্মসংস্থান হয় না। দেশে ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধির জন্য ব্যবসায়ীদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। সরকার এ বিষয়ে আন্তরিক। প্রস্তাবিত বাজেটে যদি কোথাও কোন অসামঞ্জস্য থেকে থাকে, সরকার আলাপ-আলোচনা করে তা সমন্বয়ের চেষ্টা করবে, যোগ করেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কালো টাকা নিয়ে আমার একটা সাজেশন আছে। সেটা হলো— বিনিয়োগের জন্য ১০ শতাংশ কর দিয়ে অর্থনৈতিক জোনগুলোতে বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এই সুযোগ আরও প্রসারিত হতে পারে। যে কোম্পানি ১শ’ কর্মীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে আর যে কোম্পানি ৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থান করেছে, দু’জনের করের হার এক হওয়া উচিত না।

এফবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট শেখ ফজলে ফাহিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হক, সাবেক সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :