Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামালের মেয়ে কারাগারে

সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামালের মেয়ে কারাগারে
বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে আদালত থেকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ফরিদপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

হত্যা মামলার দায়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের বড় মেয়ে বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

রোববার (৩ মার্চ) বিকেলে ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল উদ্দিনের আদালতে জামিন নিতে আসলে তা না মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১১ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রচার প্রচারণার দ্বিতীয়দিন নর্থচ্যানেল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফ বেপারী ওরফে জামালকে (৪০) বিএনপির কর্মীরা পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সোহরাব বেপারী বাদী হয়ে ৩৮ জনকে আসামি করে কোতোয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলার ৩৭ নম্বর আসামি চৌধুরী নায়াব ইউসুফ গত ৪ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট থেকে ৪ সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে ছিলেন। পরে রোববার দুপুরে স্থায়ী জামিনের জন্য জেলা জজ আদালতে তিনি হাজির হন।

জেলা জজ আদালতের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট শহিদুল্লাহ জাহাঙ্গির, অ্যাডভোকেট শাহজাহান মিয়া, অ্যাডভোকেট আলী আশরাফ নান্নুসহ ২০ জন আইনজীবী চৌধুরী নায়াব ইউসুফের পক্ষে জামিন শুনানিতে অংশ নেন। সরকার পক্ষে ছিলেন এপিপি অ্যাডভোকেট জাহিদ বেপারী, অ্যাডভোকেট অনিমেষ রায়, লক্ষন সাহা প্রমুখ।

শুনানি শেষে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

শুনানির সময় আদালত প্রাঙ্গণে চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ ছাড়াও ফরিদপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রাশিদুল ইসলাম, শহর বিএনপির সভাপতি রেজাউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মিরাজ, কোতয়ালী থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান চৌধুরী রঞ্জন, ফরিদপুর মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ তাবরীজ, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হাসান কায়েস, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহরিয়ার শিথীলসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

শিশু আইনের অস্পষ্টতা ও অসঙ্গতি সংশোধন চান হাইকোর্ট

শিশু আইনের অস্পষ্টতা ও অসঙ্গতি সংশোধন চান হাইকোর্ট
ছবি: সংগৃহীত

শিশু আইনে সাংঘর্ষিক বিধান, অসঙ্গতি, অস্পষ্টতা ও বিভ্রান্তি দূর করতে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন হাইকোর্ট। এ জন্য শিশু আইন সংশোধন অথবা শিশু আইন ২০১৩-এর ৯৭ ধারার আলোকে প্রজ্ঞাপন দ্বারা অস্পষ্টতা ও অসঙ্গতি দূর করতে পারে সরকার।

আদালত বলেছেন, বলতে দ্বিধা নেই যে, শিশু আইন ও আদালত নিয়ে বর্তমানে নিম্ন আদালত ও হাইকোর্ট বিভাগে এক ধরনের বিচারিক বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে।

শিশু আইনের একটি মামলায় জামিন চেয়ে করা আপিলের পর্যবেক্ষণে এমন অভিমত দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার (২১ আগস্ট) বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জনাব মো. মোস্তাফিজুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ মন্তব্য করেন।

আরও পড়ুন: শ্রমিক পাঠানোর সিন্ডিকেট: তদন্ত ৩ মাসে শেষ করার নির্দেশ

গত ১ আগস্ট পুরান ঢাকার মো. ওসমান হত্যা মামলার আসামি শিশু মো. হৃদয়ের জামিন আবেদন বিষয়ক এক মামলায় হাইকোর্ট সংক্ষিপ্ত রায় দেন। বুধবার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী। আসামি শিশু হৃদয়ের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এম মশিউর রহমান। শিশু মো. হৃদয়কে জামিন দিয়েছেন আদালত।

অবগতি ও ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এই রায়ের অনুলিপি সংশ্লিষ্ট আদালত/ট্রাইব্যুনালসহ সমাজকল্যাণ সচিব, আইন সচিব এবং সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আরও পড়ুন: সরষের মধ্যে ভূত থাকার দরকার নাই: হাইকোর্ট

রায়ে ভবিষ্যতে জটিলতা এড়াতে ৭ দফা নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। নির্দেশনাগুলো হলো-

  • সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট কেবলমাত্র মামলার তদন্ত কার্যক্রম তদারকি করবেন এবং এ সংক্রান্ত নিত্যনৈমিত্তিক প্রয়োজনীয় আদেশ এবং নির্দেশনা প্রদান করবেন।
  • রিমান্ড সংক্রান্ত আদেশ শিশু আদালতেই নিষ্পত্তি হওয়া বাঞ্ছনীয়। তবে, আইনের সংস্পর্শে আসা শিশু (ভিকটিম এবং সাক্ষী) বা আইনের সঙ্গে সংঘাতে জড়িত শিশুর জবানবন্দি সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট লিপিবদ্ধ করতে পারবেন।
  • তদন্ত চলাকালীন সময়ে আইনের সঙ্গে সংঘাতে জড়িত শিশুকে মামলার ধার্য তারিখে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজিরা হতে অব্যাহতি দেওয়া যেতে পারে।
  • তদন্ত চলাকালে আইনের সঙ্গে সংঘাতে জড়িত শিশুর রিমান্ড, জামিন, বয়স নির্ধারণসহ অন্তর্বর্তী যেকোনো বিষয় শিশু আদালত নিষ্পত্তি করবে এবং এ সংক্রান্ত যেকোনো আবেদন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দাখিল হলে সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট নথিসহ ওই দরখাস্ত সংশ্লিষ্ট শিশু আদালতে পাঠাবেন এবং সংশ্লিষ্ট শিশু আদালত ওই বিষয়গুলো নিষ্পত্তি করবে।
  • অপরাধ আমলে গ্রহণের পূর্বে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল শিশু আইনের অধীনে কোনো আদেশ প্রদানের ক্ষেত্রে ‘শিশু আদালত’ হিসেবে আদেশ প্রদান করবে এবং এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞ বিচারক শিশু আদালতের বিচারক হিসেবে কার্য পরিচালনা এবং শিশু আদালতের নাম ও সিল ব্যবহার করবেন।
  • আইনের সুপ্রতিষ্ঠিত নীতি হলো এই যে, আইন মন্দ বা কঠোর হলেও তা অনুসরণ করতে হবে, যতক্ষণ পর্যন্ত তা সংশোধন বা বাতিল না হয়। নালিশি মামলার ক্ষেত্রে শিশু কর্তৃক বিশেষ আইনসমূহের অধীনে সংঘটিত অপরাধ সংশ্লিষ্ট বিশেষ আদালত বা ক্ষেত্রমত, ট্রাইব্যুনাল শিশু আইনের বিধান ও অত্র রায়ের পর্যবেক্ষণের আলোকে অভিযোগ গ্রহণের পর প্রয়োজনীয় আইনি কার্যক্রম গ্রহণের পরে অপরাধ আমলে গ্রহণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য কাগজাদি (নথি) সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট এর নিকট পাঠাবে। অতঃপর ম্যাজিস্ট্রেট অপরাধ আমলে গ্রহণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় আদেশ প্রদান এবং অপরাধ আমলে গ্রহণ করলে পরবর্তীতে কাগজাদি বিচারের জন্য শিশু আদালতে পাঠাবেন।
  • শিশু আইনের প্রাধান্যতার কারণে বিশেষ আইনসমূহের অধীনে জিআর মামলার ক্ষেত্রে শিশু কর্তৃক সংঘটিত অপরাধের জন্য পৃথক পুলিশ প্রতিবেদন দেওয়ার বিধান থাকায় সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট পুলিশ প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে অপরাধ আমলে গ্রহণ করবেন।

রায়ে আদালত বলেন, আমাদের বলতে দ্বিধা নেই যে, শিশু আইনের ১৫ক নম্বর ধারা, ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৭ নম্বর ধারা, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০-এর ২৭ নম্বর ধারা এবং ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৪৮ নম্বর ধারাসহ বিভিন্ন বিশেষ আইনের সঙ্গে শুধু অসংগতিপূর্ণ নয়, সাংঘর্ষিকও বটে।

আরও পড়ুন: এখনো কি উত্তরের মশা দক্ষিণে যায়, প্রশ্ন হাইকোর্টের

আদালত বলেন, শিশু আইনের প্রাধান্যতার কারণে যদি যুক্তি দেওয়া হয় যে, থানার দায়েরকৃত মামলা, অর্থাৎ জিআর মামলার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট অপরাধ আমলে গ্রহণ করবেন তাহলে সেটা হবে শিশু আইন প্রণয়নের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য পরিপন্থী। শুধু তাই নয়, একই আইনের অধীনে শিশুর বিরুদ্ধে অপরাধ আমলে গ্রহণ করবেন ম্যাজিস্ট্রেট, আর প্রাপ্ত বয়স্কদের বিরুদ্ধে অপরাধ আমলে গ্রহণ করবে সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনাল বা ক্ষেত্রমত, আদালত, যা বাস্তবতা বিবর্জিত এবং অদ্ভুত বা অস্বাভাবিক একটি প্রস্তাবনা।

আদালত রায়ে আরও বলেন, ‘এখানে উল্লেখ করা আরও প্রাসঙ্গিক হবে যে, শিশু আইনের অধীনে কোনো আদেশ প্রদানকালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের নাম, সিল ও পদবী ব্যবহারের কোনো সুযোগ নেই। আমরা লক্ষ্য করছি যে, বিচার পূর্বকালীন সময়ে বিভিন্ন আদেশ প্রদানকালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের নাম, সিল ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে সংক্ষুব্ধ পক্ষের উচ্চতর আদালতে আসার ক্ষেত্রে এখতিয়ার নিয়েও জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে।

আদালতের এজলাসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি টাঙাতে রিট

আদালতের এজলাসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি টাঙাতে রিট
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ছবি: সংগৃহীত

সারাদেশের প্রতিটি আদালত কক্ষে (এজলাসে) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি টাঙানোর নির্দেশনা চেয়ে রিট করা হয়েছে হাইকোর্টে।

বুধবার (২১ আগস্ট) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চে রিটটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হতে পারে।

দেশের প্রতিটি আদালত কক্ষ বা এজলাসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য রিটে নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে প্রতিকৃতি টাঙানোর নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি রয়েছে রিটে।

রিটে বিবাদী করা হয়েছে- আইন সচিব, গণপূর্ত সচিব, অর্থ সচিব, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল ও হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারকে।

আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস বলেন, 'সংবিধানের ৪(ক) অনুচ্ছেদে প্রতিটি সরকারি, আধা-সরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি টাঙানোর সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আমরা সংবিধানের এই অনুচ্ছেদের বাস্তবায়নের নির্দেশনা চাইব।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র