Barta24

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

English

ধর্ষণের ভুল প্রতিবেদন: সিভিল সার্জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ

ধর্ষণের ভুল প্রতিবেদন: সিভিল সার্জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ
ছবি: সংগৃহীত
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীর মাদরাসাছাত্রীকে গণধর্ষণ শেষে হত্যার ঘটনায় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বিপরীতধর্মী তথ্য প্রদানকারী পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন ডা. শাহ মো. মোজাহিদুল ইসলাম ও মেডিকেল অফিসার রেজাউর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এর আগে বুধবার (২২ মে) হাইকোর্টে হাজির হয়ে তারা ওই প্রতিবেদনের বিষয়ে আদালতের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

আদালত ক্ষমা না করে চিকিৎসকের উদ্দেশে বলেন, ‘এভাবে যদি ময়নাতদন্ত রিপোর্ট দেন, তাহলে জাতির কাছে কী বার্তা যায়? এভাবে রিপোর্ট দেওয়ার কারণে একটা মামলার বিচার প্রভাবিত হয়, এমনকি রায় ভিন্ন হয়, যেখানে বাদী ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়।’

এরপর আদালত সিভিল সার্জনের ক্ষমার আবেদন নাকচ করে দেন এবং সিভিল সার্জন ডা. শাহ মো. মোজাহিদুল ইসলাম ও মেডিকেল অফিসার রেজাউর রহমানের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালককে নির্দেশ দেন।

সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ইউসুফ মাহমুদ মোরশেদ আদালতের আদেশের বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

২০১৮ সালের ২৪ অক্টোবর পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী হামিদিয়া মহিলা দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

ওই ছাত্রীর মা থানায় গেলে পুলিশ মামলা গ্রহণ না করলে তিনমাস পর পটুয়াখালীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি নালিশি অভিযোগ করেন তিনি।

পরে ওই মামলার আসামি দানেশ চৌকিদার হাইকোর্টে জামিন চাইলে আবেদনের সাথে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক ডা. রেজাউর রহমান প্রতিবেদনে লিখেন, মেয়েটির গলায় দাগ রয়েছে, শ্বাসরোধে তার মৃত্যু হয়েছে। তবে এটা দুর্ঘটনাজনিত কারণে হতে পারে। ময়না তদন্তকারী চিকিৎসকের সাথে একমত পোষণ করেছিলেন সিভিল সার্জন ডা. শাহ মো. মোজাহিদুল ইসলাম।

আপনার মতামত লিখুন :

একদিনে ১৫৩ মামলার আসামির জামিন বাতিল

একদিনে ১৫৩ মামলার আসামির জামিন বাতিল
সুপ্রিম কোর্ট

হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ একদিনে ১৫৩টি ফৌজদারি বিবিধ মামলা ও আপিলে আসামিদের দেওয়া জামিন বাতিল করেছেন। এসব মামলায় আসামিরা অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নেওয়ার পর মেয়াদ বাড়ানো বা রুল শুনানির পদক্ষেপ নিচ্ছিল না। এতে ১৫৩টি মামলা দীর্ঘদিন যাবত ঝুলে ছিল।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এই রায় দেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক। অন্যদিকে ওই জামিন বা আপিলের পক্ষে কোন আইনজীবী ছিলেন না।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, ২০১৭ সালের ১১৮টি ফৌজদারি বিবিধ মামলা ও ২০১৬ সালের ৩৫টি ফৌজদারি আপিলে আসামিরা হাইকোর্ট থেকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন ও রুল নেন।

বিচারিক আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে ফৌজদারি বিবিধ ও আপিল করে জামিন নেন। পরে আর রুল ও আপিল শুনানি করেননি বা জামিন বর্ধিত করেননি।

তিনি বলেন, ‘মামলার জট কমাতে এসব মামলা শুনানির জন্য কার্যতালিকায় আনা হলে শুনানি শেষে আসামিদের পক্ষে করা ফৌজদারি বিবিধ মামলার রুল ও আপিল খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফলে এসব মামলার সকল আসামির হাইকোর্ট থেকে পাওয়া অন্তর্বর্তীকালীন জামিন বাতিল হয়ে গেল।’

'রাষ্ট্রপতির সম্মতিতে তিন বিচারপতিকে বিরত রাখা'

'রাষ্ট্রপতির সম্মতিতে তিন বিচারপতিকে বিরত রাখা'
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, পুরনো ছবি

তিন বিচারপতিকে বিরত রাখার বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, 'রাষ্ট্রপতির (আবদুল হামিদ) সম্মতিতে প্রধান বিচারপতি সিদ্ধান্তটা নিয়েছেন। এখন এ বিষয়ে কীভাবে তদন্ত করবেন, অনুসন্ধান কীভাবে হবে তা প্রধান বিচারপতি ঠিক করবেন।'

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) বিকালে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

কি ধরনের অভিযোগ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'অভিযোগ কী সেটা অনুসন্ধানের পরেই জানা যাবে। কী অভিযোগ তা জনসম্মুখে প্রকাশ করাটা বিচার বিভাগের জন্য শুভ হবে না। আর এটা সম্পূর্ণভাবে রাষ্ট্রপতি ও প্রধান বিচারপতির বিষয়।'

এ রকম কি নজির আছে, কোনো অভিযোগ প্রমাণ ছাড়াই বিচার কাজ থেকে বিরত রাখার? এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, 'অভিযোগ আছে কী নাই সেটা অনুসন্ধানের পরেই বোঝা যাবে'।

সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের মাধ্যমে তদন্ত হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'সেটাও প্রধান বিচারপতি এবং রাষ্ট্রপতিই ঠিক করবেন। বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি সমুন্নত রাখার জন্য কী পদক্ষেপ নেবেন তা ওনারাই ঠিক করবেন।'

বারের পক্ষ থেকে এই তিন বিচারপতির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'বারের সাধারণ সদস্যরা সব সময়ই চান বিচার বিভাগ কলুষমুক্ত যাতে থাকে এবং ভাবমূর্তি যেন সাধারণ জনগণের কাছে উজ্জ্বল থাকে।'

পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে? অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, 'সেটা রাষ্ট্রপতি সিদ্ধান্ত নেবেন'।

আজকের এই পদক্ষেপ সমস্ত বিচার বিভাগের জন্য নতুন বার্তা কিনা? জবাবে তিনি বলেন, 'নিশ্চয়ই। আইনের ঊর্ধ্বে কেউ থাকতে পারে না। কোনো মন্ত্রী থাকতে পারে না, কোনো বিচারপতিও থাকতে পারে না এবং আমরা সাধারণ মানুষও থাকতে পারি না। কাজেই এটা অবশ্যই একটি ইঙ্গিত যাবে অন্যান্যদের কাছে যারা নিজেদেরকে সঠিক পথে পরিচালনা করছেন না।'

আরও পড়ুন: ‘আরও অনেক বিচারপতি দুর্নীতিতে জড়িত’

আরও পড়ুন: ছুটিতে তিন বিচারপতি

আরও পড়ুন: হাইকোর্টের ৩ বিচারপতিকে বেঞ্চ দেওয়া হয়নি

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র