Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

২ মামলায় খালেদা জিয়ার ৬ মাসের জামিন

২ মামলায় খালেদা জিয়ার ৬ মাসের জামিন
খালেদা জিয়া, ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

দুর্নীতির মামলায় কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দুই মামলায় ছয় মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে আরো দু’টি মামলায় দণ্ডিত হওয়ায় এখনই মুক্তি পাচ্ছেন না তিনি।

একই সঙ্গে কেন তাকে জামিন দেওয়া হবে না তার কারণ জানতে চেয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রতি রুল জারি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) বিচারপতি মুহাম্মদ আবদুল হাফিজ ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চে এ জামিন দেওয়া হয়।

এর আগে সোমবার এ দুই মামলায় জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষে মঙ্গলবার রায়ের দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জয়নুল আবেদীন, মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন, নিতাই রায় চৌধুরী, তৈমুর আলম খন্দকার, নওশাদ জমির ও কায়সার কামাল। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান।

আদেশের পর ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত এবং মানহানির অভিযোগে দায়ের করা দু’টি মামলায় খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ দু’টি মামলাই মামুলি মামলা। বলা যায়, কোনো মামলাই না। দু’টি মামলাই জামিনযোগ্য। বিচারিক আদালত জামিনযোগ্য মামলায় জামিন দিতে বাধ্য হলেও জামিন পাননি বিএনপি চেয়ারপারসন। এর প্রেক্ষিতে আমরা হাইকোর্টে এসেছিলাম। আমরা আপিল বিভাগের বিভিন্ন মামলার নজির দেখিয়েছি, যেখানে জামিনযোগ্য মামলায় আপিল বিভাগের পর্যবেক্ষণ রয়েছে।’

মওদুদ আরো বলেন, ‘জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় জামিন পেলেই মুক্তি পাবেন বিএনপি চেয়ারপারসন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ১০ বছরের সাজার বিরুদ্ধে আপিল করা হয়েছে, চ্যারিটেবল মামলায়ও জামিন আবেদন করা হয়েছে। ওই দুই মামলায় নথি আসতে আরো ১২ দিন বাকি। আশা করি, ১২ দিন পর ওই দুই মামলায় তার জামিন শুনানি হবে।’

২০১৪ সালের ২১ অক্টোবর জননেত্রী পরিষদ সভাপতি এ বি সিদ্দিকী ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, ওই বছরের ১৪ অক্টোবর বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ধর্ম নিরপেক্ষতার মুখোশ পরে আছে। আসলে দলটি ধর্মহীনতায় বিশ্বাসী। আওয়ামী লীগের কাছে কোনো ধর্মের মানুষ নিরাপদ নয়।’

এ বি সিদ্দিকী ২০১৭ সালের ২৫ জানুয়ারি আরেকটি মানহানির মামলা দায়ের করেন। তাতে অভিযোগ করা হয়, `বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আওয়ামী লীগকে নিয়ে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে আয়োজিত ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে কটূক্তি করেন খালেদা জিয়া।’

আপনার মতামত লিখুন :

রাসেলকে ক্ষতিপুরণের ৫ লাখ টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশ

রাসেলকে ক্ষতিপুরণের ৫ লাখ টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশ
গ্রিন লাইন বাসের চাপায় পা হারান রাসেল, পুরনো ছবি

বাস চাপায় পা হারানো প্রাইভেটকারচালক রাসেল সরকারকে ক্ষতিপূরণের পাঁচ লাখ টাকার প্রথম কিস্তি ২৮ জুলাইর মধ্যে পরিশোধ করতে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এছাড়া আগের আইনজীবী নিজেকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর নতুন আইনজীবী নিয়োগ দিয়েছে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষ। 

রোববার (২১ জুলাই) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এদিন গ্রিন লাইনের পক্ষে শুনানিতে নতুন আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক সময় আবেদন করেন। আদালত সময় মঞ্জুর করে এক সপ্তাহ সময় দেন।

এর আগে গত ১৬ জুলাই আইনজীবী মো. অজি উল্লাহ তার নাম প্রত্যাহার করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। 

গত ২৫ জুন রাসেল সরকারকে প্রতি মাসের ৭ তারিখের মধ্যে ৫ লাখ টাকা করে পরিশোধ করতে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। টাকার দেওয়ার পর তা প্রতি মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে প্রতিবেদন আকারে জানাতে বলা হয় আদেশে।

গত ১০ এপ্রিল রাসেল সরকারের হাতে ক্ষতিপূরণের ৫ লাখ টাকার চেক তুলে দেয় গ্রিন লাইন বাস কর্তৃপক্ষ। ওই দিন হাইকোর্ট কক্ষে বিচারকের সামনে গ্রিন লাইনের আইনজীবী মো. অজি উল্লাহ এই চেক রাসেলের হাতে তুলে দেন। সে হিসেবে আরো ৪৫ লাখ টাকা দিতে হবে রাসেলকে।

গত ১৫ মে হাইকোর্ট ৭ দিনের মধ্যে রাসেলকে ক্ষতিপূরণের বাকি ৪৫ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

গত ১২ মার্চ হাইকোর্ট পা হারানো রাসেলকে ৫০ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে গ্রিন লাইন পরিবহন কর্তৃপক্ষকে রাসেলের চিকিৎসার জন্য যা খরচ তা দিতে বলা হয়।

যাত্রাবাড়িতে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারে গ্রিন লাইন পরিবহনের বাসের চাপায় ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারের বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। রাসেলের বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে।  তার পা হারানোর পর গত বছরের ১৪ মে ক্ষতিপূরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী উম্মে কুলসুম। ওই রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ক্ষতিপূরণের অন্তবর্তীকালীন আদেশ ও রুল জারি করেন।

 

 

মাউশি'র মহাপরিচালককে হাইকোর্টে তলব

মাউশি'র মহাপরিচালককে হাইকোর্টে তলব
মাউশি মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুককে তলব করেছেন হাইকোর্ট, ছবি: সংগৃহীত

ঝিনাইদহের একটি কলেজের ১৯ শিক্ষক-কর্মচারীকে এমপিওভুক্তিতে উচ্চ আদালতে আদেশ প্রতিপালন না করায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুককে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী ৩১ জুলাই তাকে হাইকোর্টে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

রোববার (২১ জুলাই) বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাস সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনকারীদের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্ল্যাহ মিয়া।

আইনজীবী ছিদ্দিক উল্ল্যাহ মিয়া জানান, ঝিনাইদহের সালেহা বেগম ডিগ্রি কলেজের ১৯ শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করতে ২০১৭ সালের ১৩ মার্চ রায় দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের করা হলে ২০১৮ সালের ৬ আগস্ট তা খারিজ করেন আপিল বিভাগ। এরমধ্যে হাইকোর্টের আদেশ বাস্তবায়ন না করায় ১৯ শিক্ষক আদালত অবমাননার মামলা করেন।

এ আবেদনের পর ১৮ ডিসেম্বর আদালত অবমাননার রুল জারি করেন হাইকোর্ট। সর্বশেষ ১৬ এপ্রিল তাকে (ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক) এক সপ্তাহ সময় দেন। তারপরও আদেশ বাস্তবায়ন না করায় আদালত তাকে তলব করলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র