সেই আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা চলবে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা আব্দুল হাই, ছবি: সংগৃহীত

মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা আব্দুল হাই, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘আল্লাহ তোমার কাছে বিচার দিলাম', 'নাম বললে চাকরি থাকবে না'- বক্তব্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা আব্দুল হাইয়ের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা চলতে কোনো আইনি বাধা থাকলো না।

রাজউকের প্লট বরাদ্দ থাকলেও মিথ্যা হলফনামা দাখিল করে নিজ নামে প্লট বরাদ্দ নেওয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা বাতিলের রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে বিচারিক আদালতে থাকা দুদকের এ মামলাটির ওপর থেকে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করেছেন আদালত। এর ফলে তার বিরুদ্ধে মামলাটি চলতে আর কোনো বাধা থাকলো না বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

রোববার (২০ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল খারিজ করে এই রায় দেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানী করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না।

অন্যদিকে আসামীপক্ষে ছিলেন আইনজীবী খন্দকার মো. খুরশিদ আলম।

মামলার বিবরণী থেকে দেখা যায়, সাবেক সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী মো. আবদুল হাই ২০০৪ সালের ২৯ জানুয়ারি রাজউকে প্লট বরাদ্দের জন্য আবেদন করেন। নিয়ম অনুযায়ী এ আবেদনের সঙ্গে সম্পদের বর্ণনাসহ হলফনামা দাখিল করেন তিনি। পরে দুদকের অনুসন্ধানে হলফনামায় দেওয়া তথ্য মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে দুদকের উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ২০১৬ সালের ৯ নভেম্বর মতিঝিল থানার মামলা দায়ের করেন। পরে একই উপ-পরিচালক তদন্ত করে ২০১৭ সালের ২৮ নভেম্বর অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এরপর মামলাটিতে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৮। এরপর বিচারিক আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করা হলে ২০১৮ সালের ১০ মে হাইকোর্ট এই বিষয়ে রুল জারি করেন এবং মামলাটির কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেন।

এর আগে আবদুল হাই ২০১৭ সালের ৯ নভেম্বর এ মামলায় হাইকোর্ট থেকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পান।

আপনার মতামত লিখুন :