যার আইনি সহায়তায় বদলেছে অনেকের ভাগ্য



নাজমুল আহসান রাজু, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া

  • Font increase
  • Font Decrease

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া আইন পেশায় এসেছেন বেশি দিন হয়নি। এরইমধ্যে চাকরি সংক্রান্ত (সার্ভিস ম্যাটার) মামলায় দেশজুড়ে তার সুনাম। শিক্ষক ও অসংখ্য চাকরিজীবীর ভাগ্য বদলেছে তার দেওয়া আইনি সহায়তায়। অনেকের চাকরি জাতীয়করণ হয়েছে, কেউ পেয়েছেন পদোন্নতি, কারো গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ ও এমপিওভুক্ত করার নির্দেশনা এসবই এসেছে তার আইনি সহায়তায়। মূলত শ্রম, কর্মনিষ্ঠা ও সততার গুণে এসব সাফল্য এসেছে বলে মনে করেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া মিয়া।

গত মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমটোয়েন্টিফোর.কম-কে আইনজীবী হয়ে ওঠার গল্প শুনিয়েছেন অ্যাডভোকেট ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া। সাক্ষাৎকারের চম্বুক অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

 

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আপনার প্রথম মামলা সম্পর্কে বলুন।

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: ভোলা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অফিস সহকারি পদে লিখিত ও ভাইবায় উত্তীর্ণ হলেও নিয়োগ দেওয়া হয়নি বনি আমিন নামের এক ছেলেকে। পরে তাকে আইনগত সহায়তা দেই। পরে উচ্চ আদালত তার নিয়োগের পক্ষে রায় দেন এবং ছেলেটি চাকরিতে যোগদান করে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: চাকরি সংক্রান্ত আইনজীবী হিসেবে সফলতার কারণ কী?

সিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: চাকরির মামলার ক্ষেত্রে কঠোর পরিশ্রম, সততা ও নিষ্টার কারণে আমি এ সাফল্য পেয়েছি। ২০১০ সালের ৬ মে ১৬শ’ স্কুল এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। ওই বছর চারশ স্কুলকে বাদ দেওয়া হয়। এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে পঞ্চগড়, ভোলা, টাঙ্গাইলসহ কয়েকটি জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষে হাইকোর্টে রিট করি। আদালত তাদের পক্ষে রায় দেন এবং এমপিওভুক্ত করার নির্দেশ দেন। সুপ্রিম কোর্টেও এ রায় বহাল থাকে।

এরপর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্যানেলভুক্ত সহকারী শিক্ষকদের পক্ষে মামলা করি। যা আমার আইন পেশায় অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ মামলার একটি। প্রায় ৪২ হাজার প্যানেল শিক্ষকের মধ্যে দশ হাজার জনকে নিয়োগ দেওয়া হলেও বাকিদের নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এতে বঞ্চিত প্রার্থীরা হাইকোর্টে মামলা করেন। সিনিয়র আইনজীবীদের সঙ্গে কাজ করে পক্ষে রায় পাই। আদালতের রায়ের আলোকে প্রায় ৩২ হাজার প্যানেল শিক্ষক নিয়োগ পান।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: কোন দিকে নজর দিলে শিক্ষকদের দুর্ভোগের অবসান হবে?

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: আমরা ব্যক্তি হিসেবে শিক্ষকদের মর্যাদা দিলেও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে তাদের মর্যাদা নিশ্চিতের বিষয়ে বেশ উদাসীনতা। তাই শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানে সরকারকেই পদক্ষেপ নিতে হবে। সচিব পদমর্যাদার একজনকে প্রধান করে সংশ্লিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে তাদের সমস্যা চিহ্নিত করতে হবে এবং সেগুলো সমাধানে উদ্যোগী হতে হবে।

তবে শিক্ষকদের মধ্যেও বিভক্তি থাকায় তারা দাবি আদায় করতে পারেন না। সব সংগঠন ঐক্যবদ্ধ থাকলে সফলতা আসবেই। বিশেষ করে সমালোচনা ও লজ্জার ভয়ে শিক্ষকরা আন্দোলন করতে চান না। অথচ গার্মেন্টস শ্রমিক ও অন্য পেশাজীবীরা আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করেন।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আপনার করা চাকরি সংক্রান্ত মামলার রায় সম্পর্কে বলুন।

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: সরকারের ‘আমার বাড়ি, আমার খামার’ প্রকল্পে যারা চাকরি করেন তাদের পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও বাইরে থেকে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। পরে রিট করা হলে রুল নিষ্পত্তি করে ১২৯ জনকে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে সিনিয়র কর্মকর্ত পদে নিয়োগের রায় দেন হাইকোর্ট। আমি তাদের আইনি সহায়তা দিয়েছি।

এছাড়াও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ৫২ জন প্রোগ্রামারের চাকরিতে যোগদান, ৩৫তম বিসিএসে সুপারিশপ্রাপ্ত ১৭ জনের চাকরিতে যোগদান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩০ জন সহকারী শিক্ষককে জাতীয় বেতন স্কেলের ১১তম গ্রেড প্রদান, সহকারী শিক্ষকদের বেতন ১৪তম গ্রেডে নির্ধারণের প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, সারাদেশে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আইসিটির ১৩৮ জন সহকারী শিক্ষকের পদ সংরক্ষণ, গত ২২ মে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য এনটিআরসিএ সনদধারী পঁয়ত্রিশোর্ধ বয়সের প্রার্থীদের আবেদনের সুযোগ ও মেধাতালিকা অনুসারে নিয়োগের নির্দেশ, গত ১ আগস্ট পিটিআই (প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট) সংলগ্ন পরিক্ষণ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চান হাইকোর্ট।

আর সদ্য জাতীয়করণ করা দ্বিতীয় ধাপে সহকারী শিক্ষক হিসেবে গেজেটভুক্তদের প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রদানের জন্য রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আইনজীবী হওয়ার পেছনের গল্প বলুন।

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন স্যার আমার বাবা ও নানার পরিচিত। পারিবারিকভাবে তার কাছে আসা যাওয়ার কারণে আইন পেশায় আসার অনুপ্রেরণা পাই।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আইন পেশায় আপনার খ্যাতি ও সুনামের কারণ কী?

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: সুপ্রিম কোর্ট অনেক বড় জায়গা। আমি সবে শুরু করেছি। এখনো শিখছি। সিনিয়র আইনজীবীরা আমাকে ভালবাসেন, পছন্দ করেন। তাদের প্রশংসা ও পছন্দই এক পর্যায়ে সুনামে পরিণত হয়েছে। আইন পেশায় ধৈর্য্য, শ্রম ও প্রচুর পড়াশোনা করতে হয়। বিশেষ করে চাকরি সংক্রান্ত মামলায় অত্যন্ত পরিশ্রম, অধ্যাবসায় এবং ধৈর্য্য নিয়ে পড়াশোনা করতে হয়। আমি এসব অনুসরণ করার চেষ্টা করি।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আইন পেশায় সফল হতে আপনার পরামর্শ কী?

ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া: এ পেশায় সফল হতে হলে পরিশ্রমী এবং আদালতমুখী হতে হবে। এছাড়া প্রচুর পড়াশোনা করতে হবে। নিজের লাইব্রেরি থাকলে ভালো। আদালতে গেলে সিনিয়র ও দক্ষ আইনজীবীদের যুক্তি উপস্থাপন মনোযোগসহকারে শুনতে হবে। আর বিচার প্রার্থীদের সেবা দেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে, পেশাগত সততা ও স্বচ্ছতাও রক্ষা করতে হবে।

কোটা নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল রাষ্ট্রপক্ষের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আদালত/ছবি: সংগৃহীত

আদালত/ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) দায়ের করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। লিভ টু আপিলে হাইকোর্টের রায় বাতিল চাওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৫ জুলাই) আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় লিভ টু আপিল দায়ের করা হয়।

সোমবার (১৫ জুলাই) প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল দায়েরের প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

এর আগে, গত ১৪ জুলাই প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধাসহ কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করা হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ২৭ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেন।

রায়ে বলা হয়েছে, ২০১২ সালে করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের দেওয়া রায় ও আদেশ, ২০১৩ সালের লিভ টু আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে আপিল বিভাগের তা বহাল ও সংশোধিত আদেশ এবং ২০১১ সালের ১৬ জানুয়ারির অফিস আদেশের (মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতি-নাতনির কোটা) আলোকে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/নাতি-নাতনিদের জন্য কোটা পুনর্বহাল করতে সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হলো। একইসঙ্গে জেলা, নারী, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, উপজাতি-ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য কোটাসহ, অন্যান্য কোটা (যদি থাকে) কোটা বজায় রাখতে নির্দেশ দেওয়া হলো। এ বিষয়ে যত দ্রুত সম্ভব, আদেশ পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে পরিপত্র জারি করতে নির্দেশ দেওয়া হলো।

আরও বলেছেন, প্রয়োজনে উল্লিখিত শ্রেণির ক্ষেত্রে কোটা পরিবর্তন ও হার কমানো বা বাড়ানোর বিষয়ে এ রায় বিবাদীদের জন্য কোনও বাধা তৈরি করবে না। যেকোনও পাবলিক পরীক্ষায় কোটা পূরণ না হলে সাধারণ মেধাতালিকা থেকে শূন্য পদ পূরণ করায় সরকারের স্বাধীনতা রয়েছে।

পরে সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মো. সাইফুজ্জামান বলেন, গত বুধবার (১০ জুলাই) আপিল বিভাগ কোটার বিষয়ে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে আদেশ দিয়েছেন। আগামী ৭ আগস্ট শুনানির দিন রেখেছেন আপিল বিভাগ। ফলে আপাতত হাইকোর্টের রায় কার্যকর হবে না।

গত ৫ জুন সরকারি চাকরিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। পরে গত ৯ জুন হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

;

স্বামী হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বামী সজিব হাসানকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী শাহনাজ পারভীন ওরফে সাদিয়া আক্তার মৌকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (১৫ জুলাই) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক প্রদীপ কুমার রায় এ রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি আসামিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ২ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, ২০২০ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে বাদি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে জানতে পারে যে তার ভাগিনা সজিব হাসান ওয়ারী থানাধীন কেএম দাস লেনের একটি বাসায় হত্যা করা হয়েছে। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি, ওইদিন সকালে উভয়ের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ হওয়ার ফলে অনুমান সকাল ৮টা হতে ১০টার মধ্যে আসামি আমার ভাগিনা সজিবকে ছুরি দিয়ে বুকের নিচে পেটের উপরিভাগে পাড় দিয়ে হত্যা করে। হত্যার পরেও জিদের বশবর্তী হয়ে ছুরি দিয়ে মৃতের দুই হাত ও দুই পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে।

রায় ঘোষণার আগে এ মামলায় ১২ জন সাক্ষী গ্রহণ করে আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন মাহবুব আলম ভূঁইয়া মিলন এবং আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন আইনজীবী জেকে পাল।

;

আদালতের লোহার খাঁচা তুলে নেওয়া উচিত: ড. ইউনূস



মবিনুল ইসলাম, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ছবি: সংগৃহীত

অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আদালত থেকে আসামিদের জন্য লোহার তৈরি কাঠগড়া তুলে নেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

সোমবার (১৫ জুলাই) গ্রামীণ টেলিকমের বিরুদ্ধে দায়ের করা একটি দুর্নীতি মামলায় ঢাকার একটি আদালতে হাজিরা দিতে আসেন তিনি।

এর আগে দু’দিন হাজিরার সময় তাকেসহ ১৪ আসামিকে লোহার খাঁচায় ঢুকানো হয়েছিল। মামলার বিচারের সময় আসামিদের লোহার খাঁচায় আটকে রেখে বিচার করার বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন তিনি। কিন্তু সোমবার হাজিরার সময় তাকেসহ ১৪ আসামির কাউকে খাঁচার ভিতর ঢুকানো হয়নি।

আদালত থেকে বের হয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা ভেবে ভালো লাগছে যে আজ আমাদের কাউকে লোহার খাঁচার ভেতর ঢুকতে হয়নি। আমি মনে করি, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আদালত থেকে লোহার খাঁচা তুলে নেওয়া উচিত।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘লোহার খাঁচা মানবতার প্রতি অপমান। কেন পশুর মতো একজন মানুষকে খাঁচার ভেতর ভরে রাখবে? এটা সরিয়ে ফেলা উচিত।’

সোমবার মামলাটি সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য নির্ধারিত থাকলেও এই মামলায় চার্জগঠনকে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়েছে জানিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর আবেদন জানান আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক রবিউল আলমের আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ৫ আগস্ট শুনানির পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম, পরিচালক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক পারভীন মাহমুদ, নাজনীন সুলতানা, মো. শাহজাহান, নূরজাহান বেগম, এস এম হুজ্জাতুল ইসলাম লতিফী, আইনজীবী মো. ইউসুফ আলী ও জাফরুল হাসান শরীফ, গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ হাসান, ইউনিয়নের প্রতিনিধি মো. মাইনুল ইসলাম ও দফতর সম্পাদক মো. কামরুল হাসান।

গত বছরের ৩০ মে দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। অভিযোগ তদন্ত করে গত ১ ফেব্রুয়ারি এই মামলায় ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।

২৫ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ টাকা আত্মসাতের উদ্দেশে স্থানান্তর ও হস্তান্তরের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

;

ড. ইউনূসের দুর্নীতি মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ ৫ আগস্ট



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ড. মুহাম্মদ ইউনূস

ড. মুহাম্মদ ইউনূস

  • Font increase
  • Font Decrease

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে করা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ৫ আগস্ট ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার (১৫ জুলাই) মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু আসামিপক্ষের আইনজীবীরা আদালতকে জানান, এই মামলায় চার্জগঠনকে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়েছে জানিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর আবেদন জানান।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক রবিউল আলমের আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ৫ আগস্ট শুনানির পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন।

ড. ইউনূসের আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

গত ১২ জুন ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন একই আদালত।

অপর আসামিরা হলেন- গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম, পরিচালক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক পারভীন মাহমুদ, নাজনীন সুলতানা, মো. শাহজাহান, নূরজাহান বেগম, এস এম হুজ্জাতুল ইসলাম লতিফী, আইনজীবী মো. ইউসুফ আলী ও জাফরুল হাসান শরীফ, গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ হাসান, ইউনিয়নের প্রতিনিধি মো. মাইনুল ইসলাম ও দফতর সম্পাদক মো. কামরুল হাসান।

গত বছরের ৩০ মে দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। অভিযোগ তদন্ত করে গত ১ ফেব্রুয়ারি এই মামলায় ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।

২৫ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ টাকা আত্মসাতের উদ্দেশে স্থানান্তর ও হস্তান্তরের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

;