Alexa
independent day 2019

তানজানিয়ায় ফেরি ডুবিতে ১০০ জনের প্রাণহানি, উদ্ধার কাজ অব্যাহত

তানজানিয়ায় ফেরি ডুবিতে ১০০ জনের প্রাণহানি, উদ্ধার কাজ অব্যাহত

ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,বার্তা২৪.কম

তানজানিয়ার লেক ভিক্টোরিয়ায় কয়েকশত যাত্রী বোঝাই ফেরি ডুবির ঘটনায় কমপক্ষে ১০০ জন মারা গেছে। দেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, আশংকা করা হচ্ছে দুইশরও বেশি লোক সেখানে ডুবে মারা গেছে। বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে বন্ধ হওয়ার পর শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে আবার নতুন করে উদ্ধার কার্যক্রম চালানো হয়েছে।

দেশটির উকারা ও বিউগলোরা দ্বীপের উপকূলে এমভি নিয়েরের ফেরিটি বৃহস্পতিবার ওল্টে যায়। ধারণা করা হচ্ছে যাত্রীরা ডেকের এক পাশ থেকে অন্য পাশে দৌঁড়াচ্ছিল তখন অতিবোঝাই নৌযানটি উল্টে যায়।

স্থানীয় গণমাধ্যম জানায়, ফেরিটির স্বাভাবিক ধারণ ক্ষমতা ছিল একশ জন কিন্তু এটি ডুবে যাওয়ার সময় চারশরও বেশি যাত্রী বহন করছিল।

তানজানিয়ায় বিবিসি’র প্রতিনিধি আবুবকর ফামাও বলেন, বৃহস্পতিবার এমভি নিয়েরের-এ যারা আরোহণ করেছিল, মাওয়ানজা অঞ্চলে তাদের স্বজনরা ভয়ে আচ্ছন্ন হয়ে আছেন আপনজনদের শেষ অবস্থা জানার জন্য।

স্থানীয় অধিবাসী এডিথা জোসেপহাট ম্যাগিচা বলেন, ‘আমাকে একজন ফোনে বলছিলেন, আমি আমার ফুফু, বাবা ও ছোট ভাইকে হারিয়েছি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Sep/21/1537527315758.jpg

‘আমরা খুবই মর্মাহত এবং কর্তৃপক্ষকে নতুন একটি ফেরি সরবরাহের আহ্বান জানাচ্ছি কারণ পুরাতনটি ছোট ছিল এবং মানুষজন অনেক।’

বিবিসি’র প্রতিনিধি জানান, ডুবে যাওয়া ফেরিটির আগের ইঞ্জিন সম্পর্কে স্থানীয় সাংসদ জোসেফ এমকুন্ডির অভিযোগের প্রেক্ষিতে সম্প্রতি তা প্রতিস্থাপন করা হয়।

ফেরিতে আরোহণ করা যাত্রীদের প্রকৃত সংখ্যা এখনও নিশ্চিত করতে পারেনি সেদেশের কর্তৃপক্ষ। রয়টার্স জানায়, ফেরির টিকেট বিক্রির দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিটিও তার রেকর্ডিং যন্ত্রসহ মারা গেছেন।

তানজানিয়ার মাওয়ানজা শহরের নিকটবর্তী বিউগলোরা দ্বীপে সেদিন বাজার ছিল বলে ফেরিতে যাত্রীদের প্রচুর ভিড় ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তানজানিয়ার ফেরি ট্র্যাজেডি :

অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাইয়ের কারণে গত কয়েক বছরে তানজানিয়ায় একাধিক ফেরি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

২০১২ সালে একটি যাত্রীবোঝাই ফেরি ভারত মহাসাগরের জানজিবার দ্বীপে যাওয়ার সময় ডুবে গেলে ১৪৫ জনের প্রাণহানি ঘটে।

এর আগের বছর একই দ্বীপের উপকূলে ২০০ জন প্রাণ হারান, ১০০জন প্রাণে বেঁচে যান।

এর আগে ১৯৯৬ সালে লেক ভিক্টোরিয়ায় এমভি বুকোভা ফেরি ডুবিতে ৮০০ জন মারা যান, যা কিনা গত শতাব্দির জঘন্যতম ফেরি দুর্ঘটনাগুলোর একটি।

আন্তর্জাতিক এর আরও খবর