Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

পাঁচ রাজ্যের বিধানসভায় বিজেপির ভরাডুবি

পাঁচ রাজ্যের বিধানসভায় বিজেপির ভরাডুবি
ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
বার্তা২৪


  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের পাঁচ রাজ্যের বিধানসভার নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সবকটি আসনে ভরাডুবি হয়েছে। তিনটি আসনে ক্ষমতা হারানোর পাশাপাশি কোন রাজ্যেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি বিজেপি। বিপরীতে মিজোরাম রাজ্যে ক্ষমতা হারালেও মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিসগড়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে কংগ্রেস।

মঙ্গলবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে ভারতের গণমাধ্যমগুলোতে মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তিসগড়ে, তেলেঙ্গা ও মিজোরামে বিধানসভার নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ হতে থাকে।

পাঁচটি রাজ্যে মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তিসগড়ে, তেলেঙ্গা ও মিজোরামে ভোটগ্রহণ শেষ হয় গত শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর)। এই পাঁচ রাজ্যের মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিসগড়ে ক্ষমতায় ছিল বিজেপি।

এ নির্বাচনে তিনটি রাজ্যেই কংগ্রেসের কাছে ক্ষমতা হারিয়েছে নরেন্দ্র মোদীর বিজেপি। পাশাপাশি বাকি দুই রাজ্য তেলেঙ্গা ও মিজোরামে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি ক্ষমতাসীন দলটি।

এদিকে বিধানসভার নির্বাচনে বিজেপির ভরাডুবি হলেও তিনটি রাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে কংগ্রেস। বিজেপির অধীনে থাকা মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিসগড় তিনটি রাজ্য এখন কংগ্রেসের দখলে।

তবে তিন রাজ্যে জয়ী হলেও কংগ্রেস ক্ষমতা হারিয়েছে মিজোরামে। রাজ্যটিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতাসীন হবে আঞ্চলিক জোট এমএনএফ। অন্যদিকে তেলেঙ্গা রাজ্যে বিপুল ভোটে এগিয়ে রয়েছে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতি (টিআরএস)। রাজ্যটিতে এর আগেও ক্ষমতায় ছিল দলটি।

ভোটের সংক্ষিপ্ত ফলাফল, মধ্য প্রদেশে ২৩০ আসনে ১১৭ টিতে জয় পেয়েছে কংগ্রেস, রাজস্থানের ১৯৯টি আসনে ১০২ আসনে জয়ী হয়েছে কংগ্রেস, ছত্তিসগড়ে ৯০টি আসনে ৬৩টিতে জয় নিয়ে এ রাজ্যে ক্ষমতায় আসছে কংগ্রেস।

তেলেঙ্গার ১১৯ আসনের ৮৭ আসনেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে আঞ্চলিক দল টিআরএস। মিজোরামে ৪০ আসনের ২৬ টিতে জয় পেয়েছে বিজেপির মিত্র জোট এমএনএফ।

উল্লেখ্য, মাত্র ৬ মাস পরেই দেশটিতে লোকসভা নির্বাচন। এ নির্বাচনের আগে বিধানসভার পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনে ভরাডুবি অনেকটা অশনি সংকেত ক্ষমতাসীন বিজেপির জন্য।

আপনার মতামত লিখুন :

মোজো সাংবাদিকতার তিন ধারণা

মোজো সাংবাদিকতার তিন ধারণা
ছবি. কানালায়উই ওয়ায়েক্লায়হং

সম্প্রতি থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল #মোজোএশিয়া২০১৯ বা মোবাইল জার্নালিজম কনফারেন্স এশিয়া ২০১৯। এই সম্মেলনের অংশগ্রহণ আমার জন্যে মোবাইল জার্নালিজমের নতুন কিছু দিক উন্মোচিত করে—কিভাবে বিভিন্ন প্লাটফর্মে মোবাইল ব্যবহার করে সাংবাদিকতা করা যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563272117653.png

এই সম্মেলনের একটি ছোট কর্মশালায় অংশ নিয়েছিলাম আমি। সেখান থেকে মোজো কী করতে পারে, এমন তিনটি আইডিয়া বা ধারণা শেয়ার করছি।

প্রথম হচ্ছে ডকুমেন্টারি। কী, শুনতে ভালো লাগছে, তাই না! আমি প্রথমবারের মতো এটা শিখলাম যে, মোবাইল গুণগত ডকুমেন্ট সংগ্রহের জন্যে ভালো মাধ্যম হতে পারে।

আমি স্পেনের টেলিভিশন মোবাইল সাংবাদিক লিওনোর সুয়ারেজের মোজো কর্মশালায় অংশ নিয়েছিলাম। তবে আমার জন্যে সবচেয়ে বিস্ময়কর ছিল তার ৫০ মিনিটের ইতিহাসনির্ভর ডকুমেন্টারি। যার নাম ‘টাইম অব রিভেঞ্জ’ বা ‘সময়ের বদলা’।

ডকুমেন্টারি দেখেই বোঝা গিয়েছে লিওনোর এটি নির্মাণ করতে কঠিন পরিশ্রম করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, এই ডকুমেন্টারির ভিডিও করেছেন তিনি ৬ দিন ধরে এবং সম্পাদনা করেছেন প্রায় একমাস সময় নিয়ে। আইফোন৬এস এবং আরো কিছু অনুষঙ্গ ব্যবহার করেছেন তিনি ভিডিওর জন্যে। আর আইমুভি অ্যাপসেই করেছেন পুরো ভিডিওর সম্পাদনা।

বিষয়টি হচ্ছে, যদি আমি এই কর্মশালার আগে তার এই ভিডিও ডকুমেন্টারিটি দেখতাম, আমার পক্ষে কখনোই বোঝা সম্ভব হতো না এটি মোবাইল ফোনে ধারণ করা। কারণ তার ফ্রেম, কম্পোজ, অভিনয় এবং অন্য সবকিছুই ছিল খুবই নিখুঁত। এটা আমার নিজের প্রকল্প তৈরিতেও উৎসাহ যোগায়। যেখানে আমি মোবাইলে দীর্ঘ প্রতিবেদন তৈরি করতে পারব। এছাড়াও বড় বিষয় হচ্ছে, লিওনোর শুধু মোবাইল দিয়ে যে একটি ডকুমেন্টারি তৈরি করেছেন তা নয়, বরং তিনি সেই ডকুমেন্টারি থেকে আরো বিভিন্ন বিষয় এবং বিভিন্ন দিক নিয়ে তার নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্যে কনটেন্ট তৈরি করেছেন। এটি আমাকে এই ধারণাও দিয়েছে যে, মোজোতে দক্ষ হলেই শুধু চলবে না, আসল বিষয় হচ্ছে কনটেন্ট নির্বাচন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563272152592.png
স্পেনের টেলিভিশন মোবাইল সাংবাদিক লিওনোর সুয়ারেজ ◢

 

তিনি শেষে আরো উল্লেখ করেন, যদিও মোজো তার নিজের কাজের জন্যে ব্যবহার করেন, পাশাপাশি এখনো তিনি টেলিভিশনের জন্যেও কাজ করছেন। আর মোজো নির্মাণে ১০টি ধাপের কথাও তিনি উল্লেখ করেছেন। তবে সেক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হচ্ছে ধৈর্য।

এই সম্মেলন থেকে আরেকটি বড় ধারণা পেয়েছে অডিও স্টোরি টেলিংয়ের। তবে এই কর্মশালা শুধু আমাদেরকে জানায়নি, কোন অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে আমরা গুণগত মানের অডিও পেতে পারি বা সম্পাদনা করতে সুবিধা হয় স্মার্টফোনে।

কানাডার বক্তা কোরিনি পডজার এবং বাংলাদেশের জিএম মোর্তূজা, পোডবিনের মতো সহজ অ্যাপসগুলোর মাধ্যমে কিভাবে অডিও স্টোরি করা যায় সে বিষয়ে কিছু ধারণা দেন। তবে এরচেয়ে বড় কথা হলো তারা এও বলেছেন, যদি আমরা আমাদের শ্রোতা নির্ধারণ করতে পারি, তাহলে বুঝতে পারব পোডকাস্ট (অডিও প্রচার) কতটা গুরুত্বপূর্ণ এবং সেটা কোন সময়, কত সময়ের জন্য এবং কতবার প্রচার করা প্রয়োজন। এবং সেটা কি আলোচনা, সাক্ষাৎকার নাকি উভয় ফরম্যাটেই হতে পারে। আমাদের কি অতিরিক্ত মিউজিক বা ভয়েজ যোগ কারা প্রয়োজন রয়েছে। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবশ্যই ‘বি অরিজিনাল’ বা ‘সঠিকটাই নেওয়া।

এবার আসি তৃতীয় ধারণার বিষয়ে। আমি সত্যি ভার্টিকাল ভিডিওর আইডিয়া পছন্দ করেছি। স্মার্টফোনের এই ফিল্মিং অসাধারণ সুন্দর অভিজ্ঞতা ভিডিও দেখতে। এই অধিবেশনে, আল জাজিরা ইংরেজি বিভাগের ইনস্টাগ্রাম ও স্ন্যাপচ্যাট শাখার প্রধান কোনসটান্টিনোস অ্যান্টোনোপোউলাস আমাদেরকে জানান, টাইপো বাদ দিয়ে কিভাবে ক্রপিং, সম্পাদনা এবং ভিডিও করা যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563272216395.png
স্মার্টফোনে ভার্টিকাল ভিডিওর আইডিয়া ◢

 

আমার মনে হয় ভালো স্টোরির জন্যে এ কাজটি অবশ্যই জানা প্রয়োজন। কোনসটান্টিনোস আরো বলেছেন, অবশ্যই প্রথমে প্রতিবেদন, পরের বিবেচ্য বিষয় সেটি ভার্টিকাল হবে, নাকি হরিজোন্টাল! খুবই দৃঢ়ভাবে তিনি যে বিষয়ে খেয়াল রাখতে বলেছেন, সেটি হচ্ছে, যেই ফরম্যাটেই আমরা প্রতিবেদন করি না কেন, সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে আমাদের দর্শক শ্রোতারা কোন ফরম্যাটের সঙ্গে পরিচিত এবং তাদের জন্যে কোনটা সহজ।’

যদিও এটা মাত্র দুই দিনের সম্মেলন ছিল, আমার মনে হয়েছে এখান থেকে স্মার্টফোনে প্রতিবেদন তৈরির বেশ কিছু সুযোগের কথা জানা গেল। তবে একটি ভালো প্রতিবেদন তৈরির আগে আমাকে প্রথমেই একটি আইডিয়া ঠিক করতে হবে। এরপর কোন পদ্ধতিতে করা যাবে, সেটি নিয়ে ভাবা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563272428613.png

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ২, ধ্বংসস্তূপের নিচে বহু মানুষ

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ২, ধ্বংসস্তূপের নিচে বহু মানুষ
মুম্বাইয়ে ধসে পড়েছে একটি চারতলা ভবন

ভারতের মুম্বাইয়ে চারতলা একটি ভবন ধসে পড়েছে। উদ্ধারকারীরা দুই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছেন। অন্তত ৪০ থেকে ৫০ জন মানুষ ধ্বংসাবশেষের নিচে আটকে পড়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে মুম্বাইয়ের জনবহুল এলাকা ডোঙ্গরির খুব কাছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভারতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বাহিনী (এনডিআরএফ) উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে অ্যাম্বুলেন্স ও দমকল বাহিনীর গাড়ি।

উদ্ধারকর্মীরা ২ জনের মৃতদেহ ছাড়াও পাঁচজনকে জীবিত উদ্ধার করেছে বলে এনডিটিভি’র খবরে জানা গেছে।

সূত্র: এনডিটিভি

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র