Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

১২ ঘণ্টা জেরার মুখে রাজীব কুমার, সোমবারও চলবে

১২ ঘণ্টা জেরার মুখে রাজীব কুমার, সোমবারও চলবে
ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ ১২ ঘণ্টা পর শিলংয়ের সিবিআই অফিস থেকে বের হয়েছেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার। এর মধ্যে দুপুরের খাবারের সময় ২ঘণ্টা ছাড়া পুরো সময় চলে জিজ্ঞাসাবাদ। সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি)  ফের তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে সিবিআই কর্মকর্তারা।

এ সময় সারদা কেলেঙ্কারির ঘটনায় দেওয়া রাজীব কুমারের জবানবন্দী  রেকর্ড করা হবে সিবিআই সূত্রে জানা যায়। রোববারই শিলং পৌঁছে  সারদা কেলেঙ্কারির তদন্ত শুরু করে সিবিআই অফিসাররা।

সিবিআই-এর  জেরার দ্বিতীয় দিনে রোবাবার সাড়ে ১০টার দিকে সিবিআই দফতরে যান রাজীব কুমার। প্রথম দফায় বেলা সোয়া ১টা পর্যন্ত তিনি সিবিআই দফতরেই ছিলেন। দুপুরে খাবারের জন্য দুই ঘণ্টা বাইরে ছিলেন। এরপর দ্বিতীয় দফার জেরা শেষে রাত ১০টা ৪০ মিনিটে বের হন রাজীব কুমার।

রাজীব কুমারের জেরার সময় তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার প্রাক্তন সংসদ কুণাল ঘোষকে ডাকেন সিবিআই কর্মকর্তারা। দুইজনকে আলাদা করে জেরা করা হয় বলে জানা গেছে। সোমবার তাদের দুইজনকে মুখোমুখি বসিয়ে বসে জেরা করা হবে বলে জানিয়েছে সিবিআই।

রোববার (৩ ফেব্রুয়ারি) তার বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই কর্মকর্তোদের একটি প্রতিনিধি দল। কলকাতা পুলিশ অনুমিত না নিয়ে কমিশনারের বাড়িতে যাওয়ায় সেখানেই তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরে যদিও তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। পুলিশ কমিশনারের বাড়িতে সেই রাতেই ছুটে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এরপরেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় সিবিআই। শুনানিতে শীর্ষ আদালত জানিয়ে দেন, কলকাতা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে গ্রেফতার করা যাবে না, তবে তাকে তদন্তকারীদের সহযোগিতা করার নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্ট।

আপনার মতামত লিখুন :

জঙ্গলে বিদ্রোহী, বাঘ গুণতে পারে না মিয়ানমার

জঙ্গলে বিদ্রোহী, বাঘ গুণতে পারে না মিয়ানমার
মিয়ানমারের জঙ্গলে বেঙ্গল টাইগার | ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমারের বিভিন্ন অঞ্চলে সশস্ত্র সংহাতের ফলে দেশটিতে থাকা বাঘের সংখ্যা গুণে বের করা যাচ্ছে না। দেশটির বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সমিতির মতে, সবশেষ বাঘের জরিপে মাত্র ১০ শতাংশ অঞ্চলে বাঘের সংখ্যা গোণা গেছে।

সমিতি বলছে, বাঘের সংখ্যা সঠিকভাবে জানা কঠিন। সংঘাতের কারণে কিছু এলাকায় তারা জরিপ চালাতে পারেনি। মিয়ানমার সেনার সঙ্গে বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সংঘাতের কারণে এসব অঞ্চলে তথ্য সংগ্রহ করা খুব বিপজ্জনক।

পৃথিবীতে বাঘের ৯টি প্রজাতির মাত্র ছয়টি প্রজাতি এখন আর অবশিষ্ট আছে। বাঘের বাসস্থানগুলির মধ্যে মিয়ানমারে দুটি প্রজাতি রয়েছে। বেঙ্গল টাইগার ও ইন্দো-চায়না বাঘ দুটি দেশটির বিভিন্ন জঙ্গলে দেখতে পাওয়া যায়।

বাঘের বাসস্থান জরিপ করায় অনেক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। তাদের আবাসগুলো দূরবর্তী এবং সশস্ত্র সংঘাতের কারণে তা ব্যাপক ঝুঁকিপূর্ণ।

মিয়ানমারের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সমিতির সুপারিশ—বর্তমান বাঘের বাসস্থান সংরক্ষিত এলাকায় নিয়ে আসা, যাতে বংশবিস্তার নিশ্চিত করা যায়।

মিয়ানমার সরকারের দাবি সারাদেশে ৮০টি বাঘ এখনো অবশিষ্ট আছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ সংখ্যা আরো কম। সংখ্যা কমার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, বাঘেরা প্রচণ্ড খাদ্য সংকটে পড়েছে।

বাঘেরা যে প্রাণীগুলো শিকার করে খায় বনগুলোতে অবৈধ শিকারিরা সেই সব প্রাণী ধরে নিয়ে বিদেশে পাচার করে দিচ্ছে। বাঘের পছন্দের খাবারের মধ্যে গৌড়, হরিণ ও সাম্বার হরিণের সংখ্যা হুমকির মুখে। এসব বন্যপ্রাণী পাচারকারীদেরও খুব প্রিয়!

মিয়ানমারে জীববৈচিত্র্য ও বনাঞ্চল আইন দ্বারা সুরক্ষিত থাকলেও অভ্যন্তরীণ সংঘাতের কারণে প্রাণীগুলো অচিরেই হারিয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা
মিয়ানমারের কমান্ডার ইন চিফ মিন আং হলিং, ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) মিয়ানমারের কমান্ডার ইন চিফ মিন আং হলিং এবং আরো কিছু সামরিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলমানদের নির্বিচারে হত্যার অভিযোগ থাকায় এ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের গণ হারে হত্যার প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র যে শক্ত অবস্থান নিয়েছে, এ নিষেধাজ্ঞা তারই প্রমাণ।

মিয়ানমার কমান্ডার ইন চিফ সিনিয়র জেনারেল মিন আং হলিং ছাড়াও তার ডেপুটি সো উইন, সিনিয়র কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান ও এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং অং এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছেন। তাদের পরিবারও যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবে না বলে জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে এক বিবৃতিতে বলেছেন, 'যুক্তরাষ্ট্র বারবার বলার পরও মিয়ানমার সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘন ও অপব্যবহারের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের জবাবদিহির বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এতে আমরা উদ্বিগ্ন।’


পম্পে বলেন, ‘সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে, মিন অং হলিং ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নিশ্চিহ্ন করার জন্য ইন দিদিন গ্রামে নির্বিচারে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত সৈনিকদের মুক্তির আদেশ দেন। এটিই ছিল সামরিক বাহিনীর সিনিয়র নেতৃত্বের জবাবদিহিতা এবং দায়বদ্ধতার অভাবের একটি গুরুতর উদাহরণ।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ‘মিয়ানমারের কম্যান্ডার ইন চিফ রোহিঙ্গা হত্যায় অভিযুক্তকে মাত্র এক মাস জেল খাটিয়ে মুক্ত করে দিয়েছেন। অন্যদিকে এ হত্যার বিষয়ে বিশ্বকে যেসব সাংবাদিক জানিয়েছেন, তাদের ৫০০ দিনের বেশি জেল খাটানো হয়েছে।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে আয়োজিত 'ধর্মীয় স্বাধীনতা' বিষয়ে মন্ত্রী পর্যায়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রথম দিন নির্যাতিত রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এ নিষেধাজ্ঞা জারি হলো।

পম্পে বলেন, ‘এ ঘোষণার মাধ্যমে মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর সবচেয়ে সিনিয়র নেতৃত্বেকেও জনসম্মুখে জবাবদিহিতার আওতায় আনা হলো।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র