Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ফেসবুককে জবাবদিহি করতে বললেন ব্রিটিশ সাংবাদিক

ফেসবুককে জবাবদিহি করতে বললেন ব্রিটিশ সাংবাদিক
ব্রিটিশ সাংবাদিক ক্যারোল ক্যাডওয়ালডার/ ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সর্বশেষ মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ক্যামব্রিজ এনালাইটিকা এবং ফেসবুকের যে প্রভাব ছিল, তা এখন সবারই জানা; যেখানে নির্বাচনী প্রচারণায় ভোটারদের প্রভাবিত করা হয়েছিল প্রযুক্তির ব্যবহার করে।

ক্যামব্রিজ এনালাইটিকা কেলেঙ্কারিতে প্রযুক্তি নির্মাতাদের চ্যালেঞ্জ করেছেন ব্রিটিশ সাংবাদিক ক্যারোল ক্যাডওয়ালডার। দেশটির অন্যতম জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘টেড টক’ -এ ক্যারোল বলেন, ফেসবুক ও টুইটারের কর্মকর্তাদের এই অধিবেশনে আসতে হবে। ক্যামব্রিজ এনালাইটিকা কেলেঙ্কারিতে প্রযুক্তির ব্যবহার করে যেভাবে নির্বাচনী প্রচারণা চালানো হয়েছিল, তার জন্য ফেসবুককে জবাবদিহি করতে হবে।

তিনি বলেন, আমাদের জীবনে প্রযুক্তির যে অবদান তা অনস্বীকার্য, কিন্তু তা বর্তমানে একটি অপরাধে রূপ নিয়েছে। পশ্চিমা রাজনীতি, নির্বাচন এবং সম্প্রতি ব্রেক্সিট ভোটেও ভোটারদের অনলাইন প্রচারণার মাধ্যমে প্রভাবিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সাংবাদিকতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় পুলিৎজার পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাব্যদের তালিকায় তার নাম রয়েছে। ক্যামব্রিজ কেলেঙ্কারি নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য ক্যারোলের নাম ওই তালিকায় উঠেছে।

ক্যারোলের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে উঠে আসে- ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ৮৭ মিলিয়ন ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয়; যে সব তথ্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যবহার করা হয়েছিল। সেসময় ভোটারদের অনলাইন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রভাবিত করা হয়েছিল।

আপনার মতামত লিখুন :

ভারতের একটি গ্রামে ১৮’র নিচে মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ

ভারতের একটি গ্রামে ১৮’র নিচে মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ
প্রতীকী ছবি

মোবাইল ফোন ছাড়া এক সেকেন্ডও চলতে পারে না বর্তমান যুগের তরুণ–তরুণীরা। কিন্তু ভারতের গুজরাট রাজ্যের মেহসানার জেলার লিচগ্রামে ১৮ বছর না হলে মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

গুজরাটের মেহসানা জেলার গ্রামপ্রধানের কড়া নির্দেশ, ১৮ বছর না হলে এ গ্রামের কোনো তরুণ অথবা তরুণী মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবে না।

গ্রামপ্রধানের এই নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেন সেই অঞ্চলের বাসিন্দারা। গ্রামপ্রধান মনে করেন, শারীরিক নানা সমস্যার মূলে রয়েছে এই মোবাইল ফোন। গ্রামপ্রধান অঞ্জনাবেন প্যাটেলের যুক্তি, মোবাইল ফোন অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে তরুণ-তরুণীদের মনে বিরক্তি, হতাশা তৈরি হচ্ছে। যা তাদের বাস্তব জীবন থেকে আলাদা করে দিচ্ছে।

তাই এই সমস্যার সমাধানে গ্রামে ১৮ বছরের নিচে মোবাইল ফোন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। গ্রামের এক বৈঠকে গ্রামবাসীদের সঙ্গে আলোচনার পরেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন গ্রামপ্রধান অঞ্জনাবেন প্যাটেল।

বৈঠকে এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা কেউ করেননি। এই নিয়ম কার্যকর হওয়ার পর অর্থাৎ তিন মাস আগেও সমস্যায় পড়েছিল তরুণ–তরুণীরা। কিন্তু এখন তা অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। এমনকি এই গ্রামের অনেক পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তিও মোবাইল ফোন ব্যবহার ছেড়ে দিয়েছেন। এরপরই বুধবার খরবটি প্রকাশ্যে আসে। এমন সিদ্ধান্তে গ্রামপ্রধানকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন ভারতের অন্যান্য রাজ্য।

‘প্রত্যর্পণ বিল’ বাতিলের বিষয়ে বিশ্ব নেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা

‘প্রত্যর্পণ বিল’ বাতিলের বিষয়ে বিশ্ব নেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা
হংকংয়ে ‘প্রত্যর্পণ বিল’ বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীদের অবস্থান, ছবি: সংগৃহীত

হংকংয়ে ‘প্রত্যর্পণ বিল’ বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত বিক্ষোভকারীরা জি ২০ সম্মলেনকে সামনে রেখে বিশ্ব নেতাদের কাছে সাহায্যের আবেদন করেছেন। 

বুধবার (২৬ জুন) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানায়, ২৮ ও ২৯ জুন জাপানের ওসাকা শহরে অনুষ্ঠিত হবে জি ২০ সম্মেলন। সম্মেলনে অংশ নেওয়া ২০টি দেশের নেতাদের কাছে বিক্ষোভকারীরা সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। 

‘লিবারেট হংকং’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে দেশটির স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যায় কালো পোশাকে প্রতিবাদ মিছিল বের করেন বিক্ষোভকারীরা।  

 লিবারেট হংকং
'লিবারেট হংকং' স্লোগানে অবস্থান নেন বিক্ষোভকারীরা, ছবি: সংগৃহীত

 

দুই সপ্তাহ ধরে শত শত বিক্ষোভকারী শহরের কেন্দ্র স্থলে বিতর্কিত ‘প্রত্যর্পণ বিল’ বাতিলের জন্য সমাবেশ করে আসছে। বুধবার মিছিল শেষে এক সমাবেশে হংকংয়ের অস্থিতিশীল অবস্থা ও রাজনৈতিক মুক্তির লড়াইয়ে বিশ্ব নেতাদের কাছে সাহায্য চান তারা।

গণ বিক্ষোভের মুখে গত ১৫ জুন হংকংয়রে প্রধান নির্বাহী ক্যারি ল্যাম প্রত্যর্পণ বিল স্থগতিতের ঘোষণা দেন। তবে বিক্ষোভকারীরা প্রত্যর্পণ বিল পুরোপুরি বাতিলের দাবিতে রাস্তায় নামেন।

 হংকং বিক্ষোভ
বুধবার (২৬ জুন) সন্ধ্যায়  বিক্ষোভকারীরা কালো পোশাকে অবস্থান নেন, ছবি: সংগৃহীত

 

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের সচিব মাইক পম্পে বলেন, আমি আশা করি ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের প্রধানমন্ত্রী শি জিংম্পিংয়ের সাথে প্রত্যর্পণ বিল নিয়ে আলোচনা করবেন।  

জি ২০ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, বেইজিং প্রত্যর্পণ বিল সংক্রান্ত কোনো বিষয় অনুমোদন করবে না। এ বিষয়ে কোনো আলোচনায় অংশ নিবে না। 

ফলে জি ২০ সম্মেলনে প্রত্যর্পণ বলের সুরাহার বিষয়টি এখনও অস্পষ্ট। 

আরও পড়ুন, 

হংকংয়ে বিক্ষোভ: ক্যারি ল্যামের পদত্যাগ দাবি 

চীনের প্রত্যর্পণ বিলের প্রতিবাদে নতুন ‘আমব্রেলা মুভমেন্ট’

প্রত্যর্পণ বিল স্থগিত করল হংকং সরকার

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র