Alexa

দুই সেলুন কন্যার হাতে দাড়ি কেটে গর্বিত শচীন

দুই সেলুন কন্যার হাতে দাড়ি কেটে গর্বিত শচীন

উত্তরপ্রদেশের দুই সেলুন কন্যা নেহা ও জ্যোতির হাতে দাড়ি কাটছেন শচীন টেন্ডুলকার/ ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ এশিয়ার সমাজ ব্যবস্থায় এমন কিছু পেশা আছে, যেগুলোতে মেয়েদের অংশ নেওয়া তো দূরের কথা, এসব কাজে তাদেরকে অনুপযুক্ত ভাবা হয়। এর মধ্যে আছে মাংস কাটা, সেলুনে চুল কাটা- এসব কেবল পুরুষদের দখলে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এটা মেয়েদের কাজ নয়- এই ধারণার ব্যত্যয় ঘটিয়েছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের বানওয়ারি তোলা গ্রামের দুই বোন নেহা ও জ্যোতি। বাবার অসুস্থতায় তাদের সেলুনের দোকান চালানোর দায়িত্ব নিজেদের কাঁদে তুলে নিয়েছে এই সহোদর দুই বোন।

নেহা ও জ্যোতির এই উদ্যোগ ইতোমধ্যে জনপ্রিয়তাও পেয়েছে বেশ। তাদের এই অন্যরকম পেশার গল্প নিয়ে নামকরা প্রতিষ্ঠান জিলেট বিজ্ঞাপনও তৈরি করেছেন। শুধু তাই নয়, নেহা ও জ্যোতিকে উৎসাহ জোগানোর জন্য সেখানে ছুটে গেছেন সর্বকালের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকারও।

নেহা ও জ্যোতির হাতে নিজের দাড়িও কামিয়েছেন শচীন টেন্ডুলকার। দুই বোনকে তাদের সাহসিকতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন শচিন টেন্ডুলকার। ভারতীয় এই ক্রিকেট আইকনের কথায় অনুপ্রাণিত হয়েছেন নেহা ও জ্যোতি।

জানা যায়, ২০১৪ সালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন সেলুনের দোকান চালানো নেহা ও জ্যোতির বাবা। সংসার চালাতে এই সেলুনের দোকানটিই তাদের একমাত্র ভরসা। তাই দুই বোন বাবার সেলুনের দোকান চালানোর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন।

সমালোচনার ভয়ে প্রথমে ছেলেদের ছদ্মবেশে কাজ করতেন নেহা ও জ্যোতি। শুধু তাই নয়, নামও বদলে দিয়েছিলেন ছেলেদের মতো করে। এরপর থেকে সেলুন চালানোর আয়  দিয়ে তাদের বাবার চিকিৎসা আর নিজেদের পড়াশোনা চালাচ্ছে তারা।

ক্রিকেটের লিটল মাস্টার শচীন টেন্ডুলকার শুক্রবার (১৭ মে) এক ইন্সটগ্রাম পোস্ট শেয়ার করেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, একটি সেলুনে তিনি দাড়ি কেটেছেন। দাড়ি কেটেছে দুই জন মেয়ে, নেহা ও জ্যোতি, তারা দুই বোন। তিনি আরও জানান, এর আগে এমন অভিজ্ঞতা কখনও হয়নি তাঁর।

পোস্টে শচীন লিখেছেন, ‘আপনি হয়ত এটা জানেন না, কিন্তু কখনও এর আগে এমনভাবে দাড়ি কাটার অভিজ্ঞতা হয়নি আমার। সেই রেকর্ড আজ ভেঙে গেছে। #BarbershopGirls দের সঙ্গে দেখা করতে পেরে সত্যি সম্মানিত আমি।’

আপনার মতামত লিখুন :